ঢাকা-মাওয়া রুটে দুর্ঘটনায় নিহত ২, আহত ২৫, অবরোধ

ঢাকা-মাওয়া রুটে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে দু’টি যাত্রীবাহী বাসের সংঘর্ষ ঘটেছে। এতে ২ যাত্রী নিহত ও ২৫ যাত্রী আহত হয়েছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার ওমপাড়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী চার ঘণ্টা রাস্তায় ব্যারিকেড দেয়। এতে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। পরে শ্রীনগর সার্কেলের এএসপি সাইফুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা ও শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমানের উপস্থিতিতে গতিরোধক স্থাপন করলে তারা ব্যারিকেড তুলে নেয়।

নিহতরা হলেন শরিয়তপুর জেলার স্বর্ণ ঘোষ গ্রামের রাশিদা বেগম (৪৮) ও অজ্ঞাত পুরুষ (৪০)। আশংকাজনক ৫ যাত্রীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্ল্লেঙে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙে মান্নান (৬০), অনিক (২০), মকবুল (৬০), খালেক গাজী (৬০), মোশারফ (২৫), হাকিম (৭০), সোবাহান (১৯), নান্নু (২৬), সম্ভু দাস (৫০), ইউসুফ (২৭), লিটু (২৫), বাকের (৪০), আলমগীর (২৫)কে চিকিৎসা দেওয়া হয় ।

পুলিশ জানায়, দুপুর পৌনে দুইটার বিপরীত দিক থেকে আসা ঢাকা ও মাওয়াগামী ইলিশ পরিবহনের দুটি বাসের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে শরিয়তপুর জেলার স্বর্ণ ঘোষ গ্রামের রাশিদা বেগম ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে অজ্ঞাতনামা এক পুরুষ নিহত হয়। এ দুর্ঘটনায় অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে।

জাস্ট নিউজ
===============

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ২ বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে মহিলা নিহত, মহাসড়কে ব্যারিকেড়

ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ওমপাড়া এলাকায় গতকাল সোমবার দুপুর ২ টার দিকে ২ বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক মহিলাসহ ২ যাত্রী নিহত ও ৩০ জন আহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে রাশিদা বেগম (৪৮) নামে শরীয়তপুরের এক মহিলার পরিচয় পাওয়া গেছে। অপর জন এক ব্যক্তি (৪০) ঢাকা মিডফোর্ট হাসপাতালে মারা গেছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। অপর আহতদের শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমল্পেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ঢাকাগামী ও মাওয়াগামী ইলিশ পরিবহনের পৃথক ২টি বাসের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। উত্তেজিত এলাকাবাসী ব্যারিকেড সৃস্টি করলে দুপুর ২ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ
================

শ্রীনগরে দু’বাসের সংঘর্ষে নিহত ২

মুন্সীগঞ্জ: ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের ওমপাড়া এলাকায় সোমবার দুপুর ২টার দিকে ২টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত এবং কমপক্ষে ৩০ বাসযাত্রী আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- রাশেদা বেগম (৪৭), বাড়ি শরীয়তপুর জেলায় এবং বাসচালক হান্নান (৩০), বাড়ি ফরিদপুর জেলায়।

আহত যাত্রীদের মধ্যে ৫ জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বাকিদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনার পর ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে সাড়ে ৩ ঘণ্টা বাস চলাচল বন্ধ থাকে। পরে রেকার এসে মহাসড়ক থেকে বাস দুটি সরিয়ে নিলে বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে যান চলাচল আবার স্বাভাবিক হয়।

এবিষয়ে শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে জানান, মাওয়া থেকে ঢাকাগামী ইলিশ পরিবহনের একটি বাস শ্রীনগরের ওমপাড়া এলাকায় পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা একই পরিবহনের অপর একটি বাসের মুখোমুখি সংর্ঘষ হলে ২ জন নিহত এবং ৩০ বাস যাত্রী আহত হয়।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
===============

শ্রীনগরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ আহত ২৫ : ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে ৪ ঘন্টা যান চলাচল বদ্ধ

যোগাযোগ মন্ত্রীর সিদ্ধান্তে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের বিভিন্ন স্থান থেকে গতিরোধক তুলে নেওয়ার ৬ দিনের মাথায় সোমবার দুপুরে শ্রীনগরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত ও ২৫ জন আহত হয়েছে। এঘটনায় স্থানীয় জনগন ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের ঐ স্থানে পুনরায় গতিরোধকের দাবীতে প্রায় চার ঘন্টা যান চলাচল ব›দ্ধ করে রাখে। এতে প্রায় ৭ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে শ্রীনগর সার্কেলের এএসপি সাইফুল ইসলাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা ও শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান উপস্থিত থেকে গতি রোধক স্থাপন করলে জনতা তাদের ব্যারিকেট তুলে নেয়।

পুলিশ জানায়, দুপুর পৌনে দুইটার দিকে শ্রীনগর উপজেলার উমপাড়া নামক স্থানে বিপরীত দিক থেকে আসা ঢাকা ও মাওয়া গামী ইলিশ পরিবহনের দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে শরিয়তপুর জেলার স্বর্ণঘোষ গ্রামের রশিদা বেগম (৪৮) ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে অজ্ঞাতনামা পুরুষ (৪০) নিহত হয় এবং অন্তত ২৫ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে আশংকা জনক অবস্থায় ৫ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে। শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মান্নান (৬০), অনিক(২০), মকবুল (৬০), খালেক গাজী (৬০), মোশারফ (২৫), হাকিম (৭০), সোবাহান (১৯), নান্নু (২৬), সম্ভু দাস (৫০), ইউসুফ (২৭), লিটু (২৫), বাকের (৪০), আলমগীর (২৫) কে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয় । হাসপালে ত্রিশ জন ডাক্তারের মধ্যে মাত্র দুইজন ডাক্তার থাকার কারণে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সেবা না পেয়ে আহতদের আতœীয় স্বজনরা ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে। হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ঢাকার বাসায় যাওয়ার পথে পাওয়া যায় দুর্ঘটনা স্থলে। এসময় তিনি জানান,ঈদকে সামনে রেখে হাসপাতারে চিকিৎসক সল্পতা রয়েছে।

বাংলাপোণ্ট২৪
===================

দুর্ঘটনার পর মাওয়া সড়ক অবরোধ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে দুই বাসের সংঘর্ষে দুজন নিহত হওয়ার পর জনতার অবরোধে ঢাকা-মাওয়া সড়কে গাড়ি চলাচল সোমবার বিকালে চার ঘণ্টা বন্ধ থাকে।

এতে ঈদের আগে দেশের অন্যতম ব্যস্ত ওই সড়কে দেখা দেয় তীব্র যানজট।

পুলিশ জানায়, শ্রীনগরের উমপাড়া এলাকায় ইলিশ পরিবহনের বিপরীতমুখী দুটি বাসের সংঘর্ষ হয়। এতে দুই যাত্রী নিহত এবং ২৯ জন আহত হয়।

দুপুর পৌনে ২টায় এই দুর্ঘটনার পরপরই জনতা সেখানে গতিরোধক বসানোর দাবিতে সড়কে অবস্থান নেয়। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বিকাল পৌনে ৬টায় যান চলাচল পুনরায় শুরু হয় বলে শ্রীনগর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানিয়েছেন।

এদিকে ঈদের আগে ওই সড়কে চার ঘণ্টা চলাচল বন্ধ থাকায় সড়কে গাড়ির দীর্ঘ লাইন তৈরি হয়েছে। রোজার মধ্যে এই যানজটে দূরগামী যাত্রীদের হাঁসফাঁস করতে দেখা যায়।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন- ঢাকাগামী বাসের যাত্রী শরীয়তপুরের রাশিদা বেগম (৪৮) এবং ওই বাসের চালক ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার আব্দুল হান্নান (৩৫) ।

রাশিদা ঘটনাস্থলেই মারা যান। রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালে নেওয়ার পর হান্নানের মৃত্যু হয়। আহতদের মিটফোর্ড এবং স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

ওসি মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, দুর্ঘটনার পরপরই জনতা মহাসড়কে নামে। তারা গতিরোধক স্থাপনের দাবিতে বিক্ষোভ করতে থাকে।

সড়কে থাকা দুর্ঘটনাকবলিত বাস দুটি সরিয়ে নিতে বেলা ৪টায় রেকার গেলেও জনতার বাধায় কাজ করতে পারেনি বলে ওসি জানান।

তিনি বলেন, “বাস দুটি না সরালে যান চলাচল করতে পারবে না বলে মাওয়া ঘাট থেকে জরুরি ভিত্তিতে রেকার আনা হয়। কিন্তু উত্তেজিত জনতার বাধার মুখে কাজ শুরু করা যাচ্ছিল না।”

মহাসড়ক পুলিশের পরিদর্শক ওজিয়ার রহমান জানান, দুর্ঘটনাস্থলের কাছাকাছি আগে গতিরোধক বা স্পিডব্রেকার ছিল। যোগাযোগমন্ত্রীর নির্দেশে কয়েকদিন আগে তা তুলে নেওয়া হয়।

ওই মহাসড়কে এই ধরনের ৪০টির বেশি গতিরোধক তুলে নেওয়া হয় বলে জানান তিনি। উত্তেজিত জনতার দাবি, গতিরোধক তুলে নেওয়ার কারণেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

স্থানীয়রা জানায়, দুর্ঘটনাকবলিত দুটি বাসই বেপরোয়াভাবে চলছিল। আর এই কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় দুটি বাসের সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়।

জনতাকে শান্ত করতে এরপর স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সড়ক ও জনপথের প্রকৌশলী, সহকারী পুলিশ সুপারও ঘটনাস্থলে যান। তবে তারা জনতাকে সড়ক থেকে তুলতে পারছিল না।

লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরিসহ কোনো কাজই পুলিশকে করতে দিচ্ছিল না জনতা। তারা দাবি তোলে, আগে গতিরোধক বসাতে হবে, পরে অন্য কাজ।

এরপর ঘটনাস্থলে যান স্থানীয় সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। তিনি স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। পরে যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গেও মোবাইল ফোনে কথা বলেন তিনি।

সরকারদলীয় সংসদ সদস্য সুকুমার ঘোষ সাংবাদিকদের বলেন, “পরিস্থিতি শান্ত করতে তাৎক্ষণিকভাবে মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে স্পিড ব্রেকার বসানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।”

গতিরোধক বসানোর সরঞ্জাম ঘটনাস্থলে পাঠানোর পর পৌনে ৬টার দিকে জনতা অবরোধ তুলে নেয়।

সংসদ সদস্য সুকুমার ঘোষ বলেন, “মহাসড়কে যদিও স্পিড ব্রেকার কাম্য নয়, তার পরও স্পিড ব্রেকার আবার করা হচ্ছে।”

তবে তিনি ইলিশ পরিবহনের চালকদের বেপরোয়া চালনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, “এর আগেও এই পরিবহনটি মহাসড়কে রেকর্ড সংখ্যক দুর্ঘটনা ঘটায়। চালকদের এমনভাবে বাস চালনো থেকে বিরত থাকতে হবে।”

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply