সিরাজদিখানে রেইন ওয়াটার ফর স্কুল চিলড্রেন প্রকল্প ব্যর্থ

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে আট বছর আগে প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ‘রেইন ওয়াটার ফর স্কুল চিলড্রেন প্রকল্প’ এক দিনের জন্যও কোনো কাজে আসেনি। বর্ষায় আর্সেনিকমুক্ত বৃষ্টির পানি ধারণ করে সারা বছর তা বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা পান করবে এই লক্ষ্যে প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়।

উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ আট বছরে তারা এক দিনের জন্যও এ ট্যাংকগুলোতে আর্সেনিকমুক্ত বৃষ্টির পানি ধারণ করেনি। এমনকি পানি ধারণ ও খাবারের নিয়ম পদ্ধতি সম্পর্কেও তারা কিছুই জানেন না। বরং প্রকল্প থেকে নির্মিত পানির ট্যাংকগুলো বর্তমানে বিদ্যালয়ের বিশাল জায়গা দখল করে বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কোনো কোনো বিদ্যালয়ে পানির ট্যাংকগুলো ভেঙে গর্ত হয়ে আছে। ফলে যে কোনো সময় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

জানা যায়, ২০০৪ সালের জানুয়ারি মাসে ইউনিসেফের আর্থিক সহায়তায় এনজিও ফোরাম ও সিরাজদিখান উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে উপজেলার ৩৫টি বিদ্যালয়ে আর্সেনিকমুক্ত পানির জন্য এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়।

প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন বিদ্যালয়ে পানির ট্যাংকগুলো বর্তমানে অনেকটাই ভেঙে ময়লা আবর্জনা জমে একাকার হয়ে আছে। ফলে এলাকায় মশা-মাছির উপদ্রব বেড়ে গেছে। পানির ট্যাংকগুলোর ভাঙা অংশে ছাত্র-ছাত্রীরা প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

উপজেলার উত্তর রাঙ্গামালিয়া রেজিস্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আমানুল্লাহ জানান, তার বিদ্যালয়ের সামনের খালি জায়গাটুকু বেশিরভাগ অংশ জুড়ে আছে পানির ট্যাংকটি। ফলে ছাত্র-ছাত্রীরা খেলাধুলা করতে পারছে না। এমনকি প্রায়ই ছাত্র-ছাত্রীরা নানা দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

সিরাজদিখান উপজেলা জনস্বাস্থ্য বিভাগের প্রকৌশলী মো. নুরুল ইসলাম জানান, এ ধরনের প্রকল্পের প্রয়োজন না থাকায় পরবর্তী বরাদ্দ দিতে নিষেধ করা হয়েছে। সেসব এলাকায় পানির অভাব সেখানে এগুলোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

তিনি আরো জানান, পরবর্তীতে ইউনিয়সেফ এ ব্যাপারে পদক্ষেপ না নেয়ায় প্রকল্প আর কাজে আসেনি। তবে বিভিন্ন স্কুলে নির্মিত পানির ট্যাংক এখনো কিছু ভালো আছে বলে তিনি দাবি করেন।

বার্তা২৪

Leave a Reply