হতাশ-ক্ষুব্ধ মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি

কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেয়া বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের কমিটি নিয়ে মুন্সীগঞ্জ বিএনপিতে চলছে অস্থিরতা। কোন রকম সম্মেলন না দিয়ে ঢাকায় বসে এ পর্যন্ত বিএনপির ৫টি সহযোগী সংগঠনের মুন্সীগঞ্জ জেলা কমিটি গঠিত হয়েছে। যুবদল ছাড়া এসব চাপিয়ে দেয়া কমিটির তেমন কার্যক্রমও জেলা শহরে নেই। কমিটি গঠনে জেলা বিএনপি নেতাদেরও কোন মতামত বা সুপারিশ নেয়া হচ্ছে না। এতে করে ত্যাগী ও দক্ষ নেতৃত্বের দেখা মিলছে না কমিটিগুলোতে। জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গেও ওইসব অদক্ষ নেতার সমন্বয় হচ্ছে না। ঢাকায় বসে পদ নেয়ার পর দলীয় কোন কর্মসূচিতেও তাদের দেখা মিলছে না। তবে তারা ঢাকার কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন পদ ধরে রাখার জন্য। এতে করে শহরে সরকার বিরোধী কোন আন্দোলনে লোকবল পাওয়া যাচ্ছে না। নেতাকর্মীর অভাবে অনেক সময় সরকার বিরোধী কেন্দ্রীয় কর্মসূচিও মুন্সীগঞ্জে পালন করতে দেখা যায় না। তবে জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে বিরোধী আন্দোলন কর্মসূচি পালন করছেন। কর্মসূচিগুলোতে শীর্ষ পদের অধিকাংশ নেতা থাকছেন অনুপস্থিত। ইতিমধ্যে কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেয়া জেলা যুবদলের কমিটি গঠন নিয়ে গত ৩রা জানুয়ারি সকালে মুন্সীগঞ্জ শহরের থানারপুল এলাকায় জেলা বিএনপির পার্টি অফিসে দলীয় কর্মীদের তাণ্ডব ও হামলায় নবগঠিত জেলা যুবদলের সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুলসহ দলীয় ২০ নেতাকর্মী আহত হন। এ সময় শীর্ষ পদ বঞ্চিতরা পার্টি অফিসের চেয়ার-টেবিল ও নিচে দলীয় কর্মীদের ১৫টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। এ নিয়ে সদর থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করা হয়। কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেয়া কমিটিগুলো হচ্ছে- জেলা যুবদল, মহিলা দল, জাসাস, স্বেচ্ছাসেবক দল ও জিয়া পরিষদ।

দলীয় নেতাকর্মীদের মতে, সর্বশেষ গত ৭ই আগস্ট মুন্সীগঞ্জে জেলা জিয়া পরিষদের ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান কবীর মুরাদ। এ কমিটিতে কয়েকজন শিক্ষককে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সভাপতি শ্রীনগরের জাহাঙ্গীর খান, সাধারণ সম্পাদক মুন্সীগঞ্জ শহরের মঞ্জুর মোর্শেদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান- এরা তিনজনই শিক্ষক। কিন্তু বিএনপি ছাড়া এককভাবে দলীয় কোন কর্মসূচি পালন করার মতো সাংগঠনিক যোগ্যতা এ কমিটির নেই বলে দলীয় একাধিক নেতার অভিমত। এছাড়া দলীয় কোন কর্মসূচিতেও তাদের দেখা মেলে না। এর আগে গত ১৪ই ফেব্রুয়ারি কোন রকম সম্মেলন না দিয়ে ঢাকায় বসে জেলা মহিলা দলের ৭৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। এ কমিটিতে শহরের রহিমা সিকদারকে সভাপতি, শ্রীনগরের জাহানারা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক ও টঙ্গিবাড়ীর পাপিয়া ইসলামকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়েছে।

গত বছরের ১৬ই আগস্ট ঢাকায় বসে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি অনুমোদন করে দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। এ কমিটিতে শ্রীনগর উপজেলার আওলাদ হোসেন উজ্জলকে সভাপতি, গজারিয়ার ইদ্রিস মিয়াজী মহনকে সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তারপুরের শহীদুল ইসলামকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়। এই কমিটির কার্যক্রম ঢাকাভিত্তিক। তবে জেলার শ্রীনগর, গজারিয়া উপজেলা এলাকায় এ কমিটি মাঝে মধ্যে তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাতে দেখা যায়। এদিকে, গত বছরের ২৯শে জুন জেলা জাসাসের ৪১ সদস্য বিশিষ্ট জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। গজারিয়ার হাসান জাহাঙ্গীরকে আহ্বায়ক ও শহরের মাঈন উদ্দিন আহমেদ সুমনকে সদস্য সচিব করে এ কমিটি কেন্দ্র থেকে অনুমোদন করা হয়। এরপর একটি পরিচিতি সভা করার পর আজ পর্যন্ত এ কমিটির রাজনৈতিক কিংবা সাংস্কৃতিক কোন কর্মকাণ্ড লক্ষ্য করা যায়নি।

যুবদল ছাড়া কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেয়া মহিলা দল, জাসাস, স্বেচ্ছাসেবক দল ও জিয়া পরিষদের কোন নেতার সঙ্গে জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতা, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা, জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিকসহ জেলা বিএনপির নেতাদের কোন সমন্বয় নেই বলে দলীয় নেতাদের অভিমত। এসব কমিটি বিরোধী শিবিরের হাত ধরে অনুমোদন হয়েছে বলেও জেলা বিএনপির একাধিক নেতার অভিযোগ। এছাড়া জেলা ছাত্রদলের কার্যক্রমও একেবারে ঝিমিয়ে পড়েছে। দীর্ঘ বছর ধরে সম্মেলন হচ্ছে না এ কমিটির ।

এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল বলেন, কাউন্সিল হলে তৃণমূল থেকে যোগ্য নেতৃত্ব বেরিয়ে আসতো। সংগঠনও শক্তিশালী হতো। কেন্দ্র থেকে চাপিয়ে দেয়া কমিটিতে কখনও যোগ্য নেতা বেরিয়ে আসতে পারে না। জেলা বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির স্থানীয় সরকারবিষয়ক সম্পাদক আবদুল হাই বলেন, এসব কমিটি কেন্দ্র থেকে কিভাবে অনুমোদন করা হচ্ছে- তা আমার জানা নেই। কমিটিগুলোতে যারা দায়িত্বশীল পদে আসছে তারা ওই পদের উপযুক্ত এবং বিএনপির আদর্শে বিশ্বাসী কিনা তাও আমার জানা নেই। এসব কমিটি গঠনে অনেক সময় ভাল হয়, আবার খারাপও হয়। তবে খারাপ নেতৃত্বই বেশি আসে।

মানবজমিন

Leave a Reply