ম্যাজিস্ট্রেটের ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে আইনজীবীরা ঐকবদ্ধ, প্রতিবাদ সভা

আনোয়ার হোসেন আনু: মুন্সীগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তাওহীদা আক্তারের ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে আইনজীবীরা ঐকবদ্ধ হয়ে আন্দোলনের প্রস্ততি নিয়েছেন। তাকে অপসারণ করা না হলে জেলা আইনজীবী সমিতি বিচার প্রার্থীদের নিয়ে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

এ লক্ষ্যে সোমবার সকালে জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আইনজীবীরা এক জরুরি সাধারণ সভা করেন। এ সভায় জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি কাজী আফসার হোসেন নিমুকে সভাপতি করে সিনিয়র আনজীবীদের সমন্বয়ে ১২ সদস্য বিশিষ্ট একটি অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়। জরুরি ভিত্তিতে এ কমিটি তাদের প্রতিবেদন দেওয়ার পর তারা কঠোর কর্মসূচি দেবেন বলে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এছাড়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপনের বিরুদ্ধে আইনজীবি সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন খানের কাছে জেলা ও দায়রা জজ মঞ্জুর বাসিদের দেয়া মৌখিক অভিযোগের কোন সত্যতা মিলেনি বলে আইনজীবীরা জানান। এদিকে এ সাধারণ সভা শেষে দুপুর ১২ টার দিকে আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গনে এক প্রতিবাদ সভা হয়। সভায় জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপন মাইকে বলেন, তার দুনীর্তির বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে প্রতিবাদ করায় এই দুর্নীতিবাজ ম্যাজিস্ট্রেট আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে অভিযোগ এনেছিল। এ অভিযোগ আজ মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।এই দুর্নীতিবাজ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অজামিনযোগ্য ধারার আসামিদের ঘুষ নিয়ে জামিন দিয়ে দিচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ থেকে তাকে যতোদিন পর্যন্ত অপসারণ করা না হয় ততোদিন পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। দুর্ণীতির বিরুদ্ধে বিচার প্রার্থী ও সাধারণ আইনজীবীদের নিয়ে এ আন্দোলন অব্যাহত খাকবে। তিনি বলেন, কারাবন্দি এক আসামীর জামিনের আবেদনের শুনানী না করেই রোববার দুপুরে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের তাওহীদা আক্তার বিব্রত বোধ করেছেন। তাওহীদা আক্তারের আদালতে আসামি পক্ষে জামিনের আবেদন জানালে তিনি বিব্রত বোধ করে আবেদনের কোন শুনানীই করেননি। অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন খান স্বপন জানান, কর্মস্থলে যোগদানের পর থেকে বিচারক তাওহিদা আক্তার ঘুষ গ্রহণ করে আসছেন।

এতে সর্বদা প্রতিবাদ করায় ওই বিচারক তার উপর ক্ষুব্ধ হয়ে আছেন বলে তিনি দাবি করেন। এছাড়া জামিন অযোগ্য মামলায় অসংখ্য আসামিকে ঘুষের বিনিময়ে এ বিচারক জামিন দিয়ে থাকেন বলেও তার দাবি । এদিকে, গতকাল রোববার বিব্রত বোধের আগে গজারিয়া থানার অপর একটি মামলার (যার নম্বর-৮(১০)২০১১) ৪ আসামির অনুপস্থিতিতে তিনি আদালতের কাছে সময় প্রার্থনা করলে এ বিচারক আসামিদের জামিন কেটে দেন। ইতিপূর্বে ওই বিচারক একটি হত্যা মামলায় ৪৭ আসামি হাইকোর্ট থেকে অর্ন্তবর্তীকালীন জামিন নিয়ে নিন্ম আদালতে হাজির হতে এসে হাইকোর্টের বেঁধে সময় অতিবাহিত করে ফেলেন। তারপরও সম্প্রতি এই বিচারকের আদালতে আতœসর্মপন করলে হত্যা মামলার ওই ৪৭ আসামির প্রত্যেককে এক দিনেই তিনি জামিন মঞ্জুর করেন। গজারিয়া থানায় দায়ের করা মামলার নম্বর- ১ (০৯) ২০১১।এ ব্যাপারে ম্যাজিস্ট্রেট তাওহীদা বেগমকে তার মোবাইলে ফোন করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply