পকেট কমিটি ও বহিস্কার ভারে নুয়ে পড়েছে শ্রীনগর বিএনপি

আন্দোলন বিক্ষোভে মাঠে নেই
মো: আরিফ হোসেন: সারাদেশে বিএনপি যখন দল গুছিয়ে তাদের অবস্থান পোক্ত করতে ব্যস্ত তখন পকেট কমিটি ও বহিস্কারভারে নুয়ে পরেছে শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি । ফলে তারা কেন্দ্র ঘোষিত দেশ ব্যাপী চলমান আন্দোলন বিক্ষোভে মাঠে নেই। নিজেদের অন্তদন্দ্বের কারনে উপজেলা বিএনপি এখন একাধিক ধারায় বিভক্ত।

একাধিক গ্র“পের মধ্যে রয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপির কোষাদক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা সমর্থিত গ্র“প, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ সভাপতি শাহ মোয়াজ্জেম এর অনুসারী গ্র“প ও কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু সমর্থিত অপর গ্রুপ। আন্দোলন বিক্ষোভ সফল করার জন্য কেউ কারো সাথে সম্পৃক্ত হয়না।

এক সময়ের বিএনপির শক্ত ঘাটি হিসাবে পরিচিত শ্রীনগর বিএনপি তার ঐতিহ্য ও জৌলশ হারাতে বসেছে। ইতিমধ্যেই সামান্য করাণে বা কোন কারণ ছাড়াই উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের কয়েকজন ত্যগী নেতাকে বহিস্কার করা হয়েছে। বহিষ্কার আতঙ্কে রয়েছেন আরো অনেকে। দলীয় সিদ্ধান্ত নয় মুলত উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে মতের অমিল হলেই দল থেকে বহিস্কার করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

অপরদিকে ছাত্রদল, যুবদলসহ একাধিক পকেট কমিটি গঠনের অভিযোগ ঊঠেছে। এতে ঝিমিয়ে পড়েছে কার্যক্রম। কেন্দ্র ঘোষিত বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়নে উপজেলা বিএনপির তেমন কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত না হওয়ায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ হতাশা। তবে সেচ্ছাসেবক দল দুএকটি কর্মসূচী বিচ্ছিন্ন ভাবে পালন করে থাকে। এসকল কর্মসূচীতে উপজেলা বিএনপির সভাপতি মমিন আলীর উপস্থিতি একদম কম। তার অনুপুস্থিতে নেতৃত্ব দিয়ে সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন কয়েকবার আক্রমনের মুখে পড়ে এখন অনেকটা স্থবির। মূলত উপজেলা বিএনপির নেতৃত্ব সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে।

উপজেলা বিএনপির প্রথম সারির নেতারা মাঠের কাজে তেমন আগ্রহী নন। যারা মাঠে করিতকর্মা তাদের কয়েকজন বহি®কৃত। অন্যদের দলে যায়গা থাকবেনা সেই আতঙ্কে ঝিমিয়ে পড়েছে দলীয় কার্যক্রম। এর মধ্যে সর্বশেষ বহিষ্কার করা হয়েছে বিএনপির ভাগ্যকুল ইউনিয়নের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক সরদার ইমদাদুল হক মিলনকে। সে উপজেলর বিএনপির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক। ইউনিয়ন সভাপতি কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালন না করায় তার সমালোচনা করার কারণে এমদাদকে বহিষ্কার করা হয় বলে তিনি জানান। তবে পত্রিকায় পাঠানো ইউনিয়ন সভাপতির পত্রে লেখা হয়েছে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কথা।

একই কারণ দেখিয়ে এর আগে বহিষ্কার করা হয়েছে বীরতারা ইউনিয়ন বিএনপির নির্বাচিত সভাপতি মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন খানকে। তিনি জিয়া পরিষদের জেলা কমিটির সভাপতি এবং জেলা বিএনপির গনশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক। মূলত তাকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে বহিস্কার করা হয়। তার স্থলে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব দেওয়া হয় আওয়ামী লীগ থেকে ড্রাইভ দিয়ে বিএনপিতে আসা সোহরাব হোসেনকে। ইউনিয়ন বিএনপিকে চাঙ্গা করা দূরের কথা কোন আন্দোলনেই তার উপস্থিতি নেই। ফলে তার নেতৃত্ব নিয়ে খোদ ইউনিয়ন বিএনপি,যুবদল ও ছাত্রদলের নেতারাও সন্দিহান। ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বহি®কৃত হন কুকুটিয়া ইউনিয়ন বিএনপির নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন। এছাড়া বহিস্কার হয়েছেন শ্রীনগর ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য তাজুল ইসলাম। এই সব বহিষ্কার গঠনতন্ত্র মোতাবেক হয়নি বলে দাবী করেন বিএনপির একাধিক নেতা।

ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। নিজেদের বিরোধের কারণে জেলা থেকে কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটি ঘোষনার দশ মাসের মাথায় ঢাকায় তারা একটি পরিচিতি সভা করে। কিন্তু এলাকাতে ছাত্রদলের কোন কার্যক্রম নেই। ছাত্রদলের বিদ্রোহী গ্র“প ইতিমধ্যে তরুন দল গঠন করে বিভক্ত হয়ে পরেছে।যুবদলের কমিটি থেকে আবুল কালাম কাননকে সভাপতি থেকে বাদ দেওয়ায় যুবদলও দুধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

অপরদিকে কেন্দ্রীয় সেচ্ছা সেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপুর বাড়ী এই এলাকায় হওয়ার কারনে তিনি এলাকায় আসলে বা জেলা কমিটির তৎপরতায় কেন্দীয় কর্মসূচি পালনের ক্ষেত্রে তারা কিছুটা এগিয়ে।

জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে শ্রীনগরে বিএনপি এখনো ঘুরে দাড়াতে পারেনি। এর অন্যতম কারণ বয়সের ভাড়ে নুজ্য কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন এর কম উপস্থিতি।

এব্যাপারে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আ: কুদ্দুস ধীরণ বলেন, বিএনপির গঠনতন্ত্রের ৫(গ) ধারা অনুযায়ী চেয়ারপারসন ব্যতীত কেউ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারেণা। তাছাড়া দলের এ ক্রান্তিলগ্নে কেউ ভুল করলেও সকলের উচিৎ ভেদাভেদ ঘুচিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলা।

Leave a Reply