ঋণচুক্তির মেয়াদ আরো বাড়াল এডিবি-জাইকা

পদ্মা সেতু
পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন চুক্তির মেয়াদ আরো এক মাস বাড়িয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ও জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা)। বৃহস্পতিবার এ দুই দাতা সংস্থার ঢাকা কার্যালয়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর অনুরোধ করা হলে তাতে সম্মতি পাওয়া যায় বলে সরকারের ঘনিষ্ঠ এক সূত্র বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছে।

বিকাল ৩টার দিকে শেরে বাংলা নগরে ইআরডি কার্যালয়ে যান এডিবির আবাসিক প্রতিনিধি থেরেসা খো। এ সময় ইআরডি পক্ষ থেকে মেয়াদ বাড়ানো সংক্রান্ত চিঠি আনুষ্ঠানিকভাবে তার হাতে তুলে দেওয়া হয়।

তখন থেরেসা খো মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়ে তার সংস্থার সম্মতির কথা জানান।

এরপর জাইকার একজন প্রতিনিধি ইআরডিতে গেলে তাকেও একই ধরনের চিঠি দেওয়া হয়।

বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বাতিলের পর জটিলতার মধ্যে থাকা পদ্মা সেতু প্রকল্পে এডিবি ও জাইকার ঋণচুক্তির মেয়াদ ৩১ জুলাই শেষ হওয়ার কথা ছিল। তখন প্রথম দফায় চুক্তির মেয়াদ এক মাস বাড়ানো হয়। এখন দ্বিতীয় দফায় আরো এক মাস বাড়ল।

এডিবি ও জাইকা চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোয় বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতার জন্য আরো এক মাস সময় পেল সরকার, যে আলোচনা সফল হবে বলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আশা করছেন।

২৯১ কোটি ডলারের পদ্মা সেতু প্রকল্পে এডিবি ৬১ কোটি ৫০ লাখ এবং জাইকা ৪০ কোটি ডলার দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে গত বছর চুক্তি করে।

প্রকল্পের প্রধান অর্থায়নকারী সংস্থা বিশ্ব ব্যাংকের ১২০ কোটি ডলার দেওয়ার কথা থাকলেও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে গত জুন মাসে ঋণচুক্তি বাতিল করে তারা।

এই প্রকল্পে ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংক-আইডিবিও ১৪ কোটি ডলার ঋণ দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ঋণচুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর আগে বৃহস্পতিবার সকালে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে করেন এডিবির দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের মহাপরিচালক হুয়ান মিরান্ডা। ওই বৈঠকের পর তিনি বলেন, পদ্মা প্রকল্প হবে।

এডিবি কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠকের পর উৎফুল্ল অর্থমন্ত্রী বলেন, “পদ্মা সেতু হবেই হবে।”

পদ্মা প্রকল্প নিয়ে আগের দিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা করেন অর্থমন্ত্রী। এই প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংককে ফিরিয়ে আনতে সরকারের চেষ্টাকে স্বাগত জানিয়ে তাতে সফলতা আশা করেন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা।

পদ্মা প্রকল্প নিয়ে জটিলতার শুরু গত বছর সেপ্টেম্বরে। তখন দুর্নীতির অভিযোগ তোলার পর সরকারকে কয়েকটি শর্ত দেয় বিশ্ব ব্যাংক। তা পালন হয়নি জানিয়ে অর্থায়ন বাতিল করে তারা।

তবে অর্থায়ন বাতিলের পর এই প্রকল্প নিয়ে অভিযোগের মুখে থাকা মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন পদত্যাগ করেন। সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসাইনও ছুটিতে যান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

Leave a Reply