লৌহজংয়ে হামলা সংঘর্ষে আহত ১০ বাড়িঘর ভাঙচুর

লৌহজংয়ে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তিন দফা হামলা, মারামারি ও ভাঙচুরের ঘটনায় কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত পাঁচজনকে লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। হামলার সময় নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

মাওয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই খন্দকার খালিদ হাসান জানান, শনিবার সকালে লৌহজং উপজেলার মেদিনীমণ্ডল ইউনিয়নের শিমুলতলী বাজারে এক রেস্টুরেন্টে বসে নাস্তা খাওয়ার সময় কথা বলার সময় কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে নুরু মাইদ, রউব মাইদ, খলিল মাইল ও কাদের মোল্লার মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। কিছুক্ষণ পর উভয় পক্ষ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে খবর দিয়ে লোকজন জড়ো করলে শিমুলতলীর রাস্তায় দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, মারামারি ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে এলাকাবাসীর হস্তক্ষেপে তা বন্ধ হয়। পরে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নুরু মাইদ, রউব মাইদ ও খলিল মাইদ তাঁদের লোকজন জড়ো করে কাদের মোল্লার খালাতো ভাই কালাম বেপারীর বাড়িতে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় এবং বাড়িঘর ভাঙচুর করে।

এ সময় পুলিশ ও র‌্যাবের সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। হামলার সময় কমপক্ষে ১০ ব্যক্তি আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত কাদের মোল্লা, জয়নাল বেপারী, মজিবর মিনা, করিম শেখ ও নান্দু শেখকে লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। বাড়ির মালিক কালাম বেপারী দাবি করেছেন হামলার সময় তাঁর বাড়িতে লুটপাট চালানো হয়েছে। তাঁর ঘরে থাকা সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা, প্রায় সাড়ে চার ভরি স্বর্ণালংকার ও হাতের মোবাইল ফোনসেট লুটে নিয়েছে হামলাকারীরা। এ ব্যাপারে কালাম বেপারী বাদী হয়ে লৌহজং থানায় একটি মামলা করেছেন।

লৌহজং থানার ওসি আবদুুল মালেক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শিমুলতলীতে হোটেলে নাস্তা খাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply