একজন সফল কারিগর

রাহমান মনি
লেখার শুরুতেই হুমায়ূন স্যারের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই। হুমায়ূন আহমেদ একটি নাম, একটি প্রতিষ্ঠান, একটি ইতিহাস। এই কিছু দিন আগেও যে মানুষটি ক্যান্সার আক্রান্ত হয়েও জীবন সায়াহ্নে লিখছিলেন পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হত্যাকা-ের মর্মস্পর্শী ঘটনা নিয়ে ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস ‘দেয়াল’। সেই তিনিই আজ ইতিহাস হয়ে দূর আকাশে তারা হয়ে জ্বল জ্বল করে জ্বলছেন (হুমায়ূন আহমেদের শিশুপুত্র নিষাদ এবং নিনিতের ভাষায়)। তাদের বাবা নাকি সেখান থেকে ভালো হয়ে ফিরে আসবেন।

কি বিশেষ বিশেষণে অভিহিত করব হুমায়ূন আহমেদকে? কিংবদন্তি সাহিত্যিক, উপন্যাসিক নাকি নির্মাতা? বিশেষণে বিশেষিত হতে পছন্দ হওয়া এক জাতি আমরা। নিজেরা যেমন বিশেষণ পেতে পছন্দ করি তেমনি অন্যকেও বিশেষিত করতেও কার্পণ্য বোধ করি না। এ যেন নামের আগে-পিছে কিছু জুড়ে দেয়া না হলে কেমন যেন অপরিপূর্ণতায় গ্রাস করে পৈতৃকসূত্রে পাওয়া নামটির। সেই হিসেবে হুমায়ূন আহমেদকে কথাসাহিত্যিক, গীতিকবি, সফল অধ্যাপক, ছোট গল্পকার, ঔপন্যাসিক, ভ্রমণ কাহিনীকার, নাট্যকার, প্রযোজক, চলচ্চিত্রকার, নির্মাতা নাকি অন্য কোনো পরিচয়? এসব পরিচয় ছাপিয়ে তিনি কালজয়ী এক কথাসাহিত্যিক। জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী এই চলচ্চিত্র নির্মাতা বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় টিভি নাট্যকারও বটে। সাহিত্যে অবদানের জন্য একুশে পদক, বাংলা একাডেমী পুরস্কারসহ দেশের সবকটি গুরুত্বপূর্ণ পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। সবগুলো বিশেষণই জুড়ে দেয়া যায় তার নামের আগে। এতে করে বিশেষণের ভারে তার আসল নামটি খুঁজে নিতে বেগ পেতে হবে অথবা উপাধিগুলো পড়তে পড়তে তার নাম পড়ার আর ধৈর্য থাকবে না। তবে আমার কাছে সবচেয়ে প্রিয় শ্রদ্ধার এবং উপযুক্ত নামটি হচ্ছে হুমায়ূন স্যার। আমাদের প্রিয় হুমায়ূন স্যার।

হুমায়ূন স্যার ছিলেন গড়ার কারিগর। তিনি গড়েছেন, একের পর এক কেবল সৃষ্টি করে গেছেন। যেখানেই হাত দিয়েছেন সেখানেই তিনি সফলতার ছাপ রেখেছেন। গড়তে গড়তে তিনি কিংবদন্তি হয়েছেন, সেই তিনি আজ ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছেন। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে অধ্যাপনা করার সময় তিনি মানুষ গড়েছেন। তিনি ছিলেন মানুষ গড়ার কারিগর। তার সময় রসায়নের ক্লাসেই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক উপস্থিতি ছিল। রসায়নের অধ্যাপক হয়ে সাহিত্যিক হিসেবে আবির্ভূত হয়ে তিনি সফল হয়েছেন। যদিও তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা শুরু করার অনেক আগেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবস্থায় ‘নন্দিত নরকে’ উপন্যাস লিখে জানান দিয়েছিলেন যে সাহিত্য জগতে তিনি হারাতে আসেননি। তারও বহুপূর্বে দিনাজপুরের জগদ্দলে থাকা অবস্থায় একটি কুকুরকে নিয়ে তিনি ‘বেঙ্গল টাইগার’ নামে একটি সাহিত্য রচনা করেছিলেন। হুমায়ূন আহমেদের সাহিত্যের ভিতটা গড়ে ওঠে তাঁদের পারিবারিক বলয় থেকেই। তাঁর বাবা ফয়জুর রহমান আহমেদ (১৯৭১ সালে পুলিশ অফিসার থাকা অবস্থায় পাক সেনাকর্তৃক শহীদ হন) ছিলেন সাহিত্যের অনুরাগী। আজকের প্রথিতযশা লেখক ড. জাফর ইকবাল (লেখক, অধ্যাপক বুদ্ধিজীবী) এবং আহসান হাবিব (উন্মাদ পত্রিকার সম্পাদক) তাঁরই অনুজ সহোদর, জনপ্রিয় চরিত্র মিসির আলী এবং হিমুর স্রষ্টা হুমায়ূন আহমেদ।

হুমায়ূন স্যার সাহিত্যিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে তিনি নিজেই যে জনপ্রিয় হয়েছেন, লাভবান হয়েছেন তা কিন্তু নয়। বাংলাদেশের রুগ্ন প্রকাশনা শিল্পকে তিনি চাঙ্গা করেছেন। স্যারকে কেন্দ্র করে প্রকাশনা শিল্প প্রাণ চাঞ্চল্যতা ফিরে পেয়েছে। বাংলা একাডেমী বইমেলার প্রাণপুরুষ ছিলেন হুমায়ূন স্যার। বইমেলা মানেই হুমায়ূন আহমেদের বইয়ের কাটতি আকাশ ছোঁয়া। তিনি সহায়তা করেছেন প্রকাশনা শিল্প উঠে দাঁড়াতে।

হুমায়ূন স্যার ছিলেন মানুষ গড়ার কারিগর। স্যারের হাত ধরে অনেক অপরিচিত শিল্পী খ্যাতির শিখরে পৌঁছেছেন। আজকের বারি সিদ্দিকী হুমায়ূন স্যারের সৃষ্টি। বারি সিদ্দিকী বেশ কয়েক জায়গায় তা স্বীকারও করেছেন। এমন অনেক শিল্পী তিনি সৃষ্টি করেছেন।

নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ ছিলেন কিংবদন্তি। আশির দশকের মাঝামাঝি তার প্রথম টিভি নাটক ‘এই সব দিন রাত্রি’ তাকে এনে দিয়েছিল তুমুল জনপ্রিয়তা। তার হাসির নাটক ‘বহুব্রীহি’ এবং ঐতিহাসিক নাটক ‘অয়োময়’ বাংলা টিভি নাটকের ইতিহাসে অনন্য সংযোজন ছিল। হুমায়ূন আহমেদ সৃষ্ট ‘বাকের ভাই চরিত্র’, কোথাও কেউ নেই ধারাবাহিকে এই চরিত্রটি বাস্তব হয়ে ধরা দিয়েছিল টিভি দর্শকদের কাছে। নাটকের শেষে বাকের ভাইয়ের ফাঁসির রায় হলে তা বন্ধ এবং বাকের ভাইয়ের মুক্তির দাবিতে রাজপথে মিছিল পর্যন্ত হয়েছিল। বাংলা নাটকের ইতিহাসে এমনটি আর কখনো হয়নি। একমাত্র হুমায়ূন আহমেদের পক্ষেই তা সম্ভব।

চলচ্চিত্র নির্মাণেও হুমায়ূন স্যার ছিলেন এক সুদক্ষ্ম কারিগর। তাঁর নির্মিত প্রথম ছায়াছবি ‘আগুনের পরশমনি’। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এই চলচ্চিত্রটি ১৯৯৪ সালের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে আটটি শাখায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছিল। তিনি নিজেও ৩টি পুরস্কার পেয়েছিলেন এই ছবিটিতে। শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র প্রযোজক, কাহিনীকার এবং সংলাপ রচয়িতা হিসেবে তিনি শ্রেষ্ঠ পুরস্কার পান। এছাড়া একই ছবিতে তার তনয়া শিলা আহমেদ শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পীর পুরস্কার অর্জন করেন। ২০০০ সালে ‘দুই দুয়ারী’ ছবিটিও ২টি শাখায় জাতীয় পুরস্কার লাভ করে। নির্মাতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে তিনি অনেক অভিনয় শিল্পী তৈরি করেছেন। অনেক নবাগতকে স্থান দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ডা. এজাজ, চ্যালেঞ্জার, ফারুক এমনকি সহধর্মিণী মেহের আফরোজ শাওনও তাঁরই সৃষ্ট অভিনয় শিল্পী। চিত্রকর্ম, পরিচালনা, নাট্যকার এবং নির্দেশক সব ভূমিকায়ই তিনি সমান সফল ছিলেন। একজন দক্ষ অভিনেতা ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। একজন দক্ষ অভিনেতা না হলে অভিনয় শিল্পী গড়ে তোলা এবং তাদের কাছ থেকে অভিনয় আদায় করা সম্ভব নয়। আর এই অভিনয় করতে এবং করাতে গিয়ে তিনি জীবনের বড় ভুলটি করে ফেলেন।

জীবন সায়াহ্নে শেষ পর্যায়ের কিছু লেখাতে তার বহিঃপ্রকাশও করেছিলেন তিনি। তিন ডব্লিউ লেখাতে তাঁর তিন কন্যা নোভা, শিলা এবং বিপাশাকে মিস করার কথা বলেছেন। কষ্ট প্রকাশ করেছেন গ্রান্ড চাইল্ডদের কাছ থেকে গ্রান্ডপাপা ডাক না শুনার কথা। প্রিয় মেয়েদের আম্মা বলে ডাকতে না পারার কথা। মেয়েরাও মনোকষ্টের কথা বহিঃপ্রকাশ করেছেন প্রিয় বাবার মৃত্যুর পর। সব কিছুই ম্লান হয়ে যায় শিলা আহমেদের একটি কথায়। কফিনের পাশে প্রিয় বাবাকে কেবল একটি অনুরোধই তিনি করছিলেন অশ্রুসজল কণ্ঠে। তারপর তিনি বলছিলেন ‘শুধু একবার আমাকে আম্মা বলে ডাকো’। বিপাশার গায়ের গন্ধ শিশিতে ভরে দেয়ার কথা জেনেছি তারই লেখাতে। নুহাশ বলেছেন ‘আমার অস্তিত্বজুড়ে বাবার অবস্থান।’

হুমায়ূন স্যার একজন গর্বিত পিতা ছিলেন। তিনি নোভা, শিলা, বিপাশা, নুহাশের মতো সুসন্তান জন্ম দিতে পেরেছেন। (নিনিত এবং নিষাদ এখনো ছোট। তাদের নিয়ে মন্তব্য করার সময় এখনো আসেনি। ভবিষ্যৎই বলে দেবে।) তার আদর্শে বড় হওয়া এই চার সন্তান। হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর পর প্রমাণ করেছে তারা বাবাকে কতটা ভালোবাসে এখনো এবং ভালোবাসত।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply