স্বাস্থ্য খাতে কালো তালিকাভুক্ত হলো ৫ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান

লাইসেন্স ফি বাবদ ১ হাজার টাকা সরকারি রাজস্ব খাতে জমা না দেওয়ায় ও প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা গোপন করার অপরাধে মুন্সীগঞ্জে স্বাস্থ্য খাতে বিভিন্ন সামগ্রী সরবরাহকারী ৫টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে ঠিকাদারদের তোপের মুখে পড়েছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস। মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১ টার দিকে নিজ কক্ষে ঠিকাদারদের তোপের মুখে পড়েন জেলার এ সিভিল সার্জন মহোদয়। যে সব ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- মেসার্স মজিদ এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স রিয়া মেডিসিন, অগ্রনী ট্রেডিং, মেসার্স জসিমউদ্দিন এন্টারপ্রাইজ ও এস ইউ ড্রাগস।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, শহরের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালসহ জেলার ৬টি উপজেলার সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওষুধ, খাবার ও চিকিৎসা সেবায় ব্যবহারের বিভিন্ন সামগ্রী সরবরাহে সিভিল সার্জন অফিসের তালিকাভুক্ত ৫৯ টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স ফি’র ১ হাজার টাকা সরকারি রাজস্ব বিভাগে জমা দেওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হয় সম্প্রতি। ডাক মারফত ওই চিঠি প্রেরনের পরও কয়েকটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে তাদের ঠিকানা অনুযায়ী খুঁজে পাওয়া যায়নি। যে সব প্রতিষ্ঠানকে খুঁজে পাওয়া যায়নি সেই সব প্রতিষ্ঠান রাজস্ব খাতে ১ হাজার টাকা করে জমা দিতেও ব্যর্থ হন।

এতে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয় বলে দাবী করেন সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস। গত ২৬ আগষ্ট সিভিল সার্জন কার্যালয় ওই ৫ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকা ভুক্তি করনের সিদ্ধান্ত নেয়। এদিকে, কালো তালিকাভক্ত হওয়ার খবরে মঙ্গলবার দুপুরে জসিমউদ্দিনসহ কয়েকজন ঠিকাদার সিভিল সার্জন অফিসে গেলে সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস তাদের তোপের মুখে পড়েন। এ সময় ওই সব ঠিকাদাররা বিভিন্ন কাগজ পত্রাদি দেখতে চাইলে ঠিকাদার জসিম উদ্দিন ও সিভিল সার্জনের মধ্যে উত্ত্যপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। ঠিকাদার জসিমউদ্দিনের দাবী-সম্পুর্ণ নিজস্ব ক্ষমতা বলে সিভিল সার্জন তাদের কালো তালিকাভুক্ত করেছে।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী
===========

মুন্সীগঞ্জে স্বাস্থ্য খাতে কালো তালিকাভুক্ত হলো ৫ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান

লাইসেন্স ফি বাবদ ১ হাজার টাকা সরকারি রাজস্ব খাতে জমা না দেওয়ায় ও প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা গোপন করার অপরাধে মুন্সীগঞ্জে স্বাস্থ্য খাতে বিভিন্ন সামগ্রী সরবরাহকারী ৫টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে ঠিকাদারদের তোপের মুখে পড়েছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস। মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১ টার দিকে নিজ কক্ষে ঠিকাদারদের তোপের মুখে পড়েন জেলার সিএস। যে সব ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- মেসার্স মজিদ এন্টারপ্রাইজ, মেসার্স রিয়া মেডিসিন, অগ্রনী ট্রেডিং, মেসার্স জসিমউদ্দিন এন্টারপ্রাইজ ও এস ইউ ড্রাগস।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, শহরের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালসহ জেলার ৬টি উপজেলার সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ওষুধ, খাবার ও চিকিৎসা সেবায় ব্যবহারের বিভিন্ন সামগ্রী সরবরাহে সিভিল সার্জন অফিসের তলিকাভুক্ত ৫৯ টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স ফি’র ১ হাজার টাকা সরকারি রাজস্ব বিভাগে জমা দেওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হয় সম্প্রতি। ডাক মারফত ওই চিঠি প্রেরনের পরও কয়েকটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে তাদের ঠিকানা অনুযায়ী খুঁজে পাওয়া যায়নি। যে সব প্রতিষ্ঠানকে খুঁজে পাওয়া যায়নি সেই সব প্রতিষ্ঠান রাজস্ব খাতে ১ হাজার টাকা করে জমা দিতেও ব্যর্থ হন। এতে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয় বলে দাবী করেন সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস। গত ২৬ আগষ্ট সিভিল সার্জন কার্যালয় ওই ৫ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকা ভুক্তি করনের সিদ্ধান্ত নেয়।

এদিকে, কালো তালিকাভক্ত হওয়ার খবরে মঙ্গলবার দুপুরে জসিমউদ্দিনসহ কয়েকজন ঠিকাদার সিভিল সার্জন অফিসে গেলে সিভিল সার্জন ডা: বনদ্বীপ লাল দাস তাদের তোপের মুখে পড়েন। এ সময় ওই সব ঠিকাদাররা বিভিন্ন কাগজ পত্রাদি দেখতে চাইলে ঠিকাদার জসিম উদ্দিন ও সিভিল সার্জনের মধ্যে উত্ত্যপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। ঠিকাদার জসিমউদ্দিনের দাবী-সম্পুর্ণ নিজস্ব ক্ষমতা বলে সিভিল সার্জন তাদের কালো তালিকাভুক্ত করেছে।

বাংলা ২৪ বিডি নিউজ

Leave a Reply