শহরের কৃষি ব্যাংক মোড় এখন “মৃত্যু ফাঁদ”

একের পর পর সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রানহানির ঘটনায় ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে শহরের কৃষি ব্যাংক মোড় যাত্রী-পথচারীর মৃত্যু ফাঁদে পরিণত হয়েছে। অনাকাঙিখত এই মৃত্যু ও দুর্ঘটনা এড়াতে কৃষি ব্যাংক মোড়ে গতিরোধক স্পিড ব্রেকার নির্মানের দাবী উঠেছে। শুধু মাত্র এই স্থানেই গেলো ৪ মাসের ব্যবধানে যানবাহনের চাঁপায় অন্তত ৩ জন নিহত হয়েছে। ছোট খাটো দুর্ঘটনা ঘটে বেশ কয়েকটি।

এই রাস্তার পাশেই উত্তর ইসলামপুর এলাকায় ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ-ণারায়নগঞ্জের প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (পি.টি.আই) প্রতিষ্ঠানটি থাকায় প্রতিদিন এখানে আহত হচ্ছেন প্রশিক্ষন নিতে আসা শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ শতাধিক পথচারি। একই স্থানে কি কারনে বার বার সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে- তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে না। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী হয়ে পড়লেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা লক্ষ্য করা গেছে। কাজেই “নিরাপদ সড়ক চাই”-শ্লোগান বা দাবীর কন্ঠস্বর এখানে স্থিমিত হয়ে পড়েছে। এ সব দুঘর্টনা ও প্রানহানির জন্য কর্তৃপক্ষ ও বিভিন্ন যানবাহনের অদক্ষ চালকদের দায়ী করছেন সচেতন মহল। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার রাতের সড়ক দুঘর্টনায় শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে ওই স্থানে দু’টি গতিরোধক স্পিড ব্রেকার নির্মানের দাবী আরো জোরালো হয়ে উঠে।

সম্প্রতি মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র একে এম ইরাদত মানুর কাছে কৃষি ব্যাংক মোড়ে গতিরোধক স্পিড ব্রেকার নির্মানে লিখিত দাবী জানিয়েছেন শহরের পিটিআই ও উত্তর ইসলামপুর এলাকাবাসী। স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর কামাল হোসেন জানান, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃপক্ষের কাছে কৃষি ব্যাংক মোড়ে স্পিড ব্রেকার নির্মানই এখন এলাকাবাসীর একমাত্র দাবী। এই দাবীতে রোববার সকালে শহরের সচেতন মহল মানববন্ধন করার উদ্যোগ নিয়েছেন। দুর্ঘটনাস্থলেই এই মানববন্ধন করা হবে।

এদিকে, নানী ও বোনের হাত ধরে সড়ক পারাপার হতে গেলে গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭ টার দিকে মো: আহাদ (০৮) নামে এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী নিহত হয়। শহরের কৃষি ব্যাংক মোড়ে সিএনজি চালিত একটি অটোরিকশা চাঁপায় ঘটনাস্থলেই প্রান হারায় এই মাদ্রাসা শিক্ষার্থী। সে সদর উপজেলার ভট্টচার্য্যরেবাগ এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে।
এর আগে গত ১১ এপ্রিল সকালে ঘাতক বাস ফেরীওয়ালা মো: শরীফের (১৩) প্রান কেড়ে নেয়। শহরের মুন্সীগঞ্জ লঞ্চঘাটের এই ফেরীওয়ালা সাইকেল চালিয়ে কাজে যেতে গেলে আন্তঃজেলা পরিবহন মালিক সমিতির একটি যাত্রীবোঝাই বাস (গাজীপুর মেট্রো জ-০৪-০৩০৯) চাঁপা দিলে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সে। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা ঘাতক বাসে আগুন ধরিয়ে দেয় ও বিক্ষোভ মিছিল বের করে। ৫ ভাই ও ৪ বোনের মধ্যে নিহত শরীফ চতুর্থ। সে নয়াগাঁও পূর্ব-পাড়া এলাকার মৃত ছমির মিল্কির ছেলে।

একই স্থানে ৯ এপ্রিল ইঞ্জিন চালিত টেম্পো উল্টে গিয়ে যানটির হেলপাড় আশিষ নিহত হয়। আগামিতে যেন এখানে আর কোন মায়ের বুক খালি না হয় সে ব্যাপারে কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন শহর বাসী।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী – শেখ মো.রতন

Leave a Reply