জাপান : প্রধানমন্ত্রীর ত্রিশংকু অবস্থা

রাহমান মনি
কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা প্রশাসন। একদিকে নিজ দল অর্থাৎ ঘর সামলানো, অন্যদিকে শক্তিশালী এবং অভিজ্ঞতাসম্পন্ন বিরোধী দলের মোকাবিলা, তার ওপর বিরোধপূর্ণ দ্বীপপুঞ্জগুলোর কর্তৃত্ব নিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে যাওয়াকে অনেকে মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে দেখছেন। মোটকথা নোদা প্রশাসনে ত্রিশংকু অবস্থা বিরাজ করছে। এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসা খুব একটা সহজ বলে মনে হচ্ছে না।

২০১০ সালে বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার ধকল সামলিয়ে যখন জাপান কিছুটা সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছিল তখনই ২০১১ মার্চ ১১ জাপানে আঘাত হানে স্মরণকালের ভয়াবহ ভূমিকম্প। সৃষ্ট সুনামিতে পারমাণবিক বিদ্যুৎ চুল্লির ক্ষতিগ্রস্ত এবং পরবর্তী বিপর্যয়ের খবর স্যাটেলাইটের কল্যাণে বিশ্ববাসীর নখদর্পণে। এই বিপর্যয় মোকাবিলায় ব্যর্থতার অভিযোগ আনা হয় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নাওতো কানের বিরুদ্ধে সম্মিলিত বিরোধী দল থেকে। আর গরম কড়াইতে ঘি ঢালেন ক্ষমতাসীন দলের দুই জাঁদরেল নেতা। একজন হলেন কানের উত্তরসূরি হাতোয়ামা এবং অন্যজন ওজাওয়া। একপর্যায়ে কান পদত্যাগে বাধ্য হলে, ক্ষমতাসীন হন একই দলের ইয়োশিহিকো নোদা। নোদা ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাটিক পার্টি অব জাপান (ডিপিজে) এর ৬২তম সভাপতি নির্বাচিত হয়ে জাপানের ৯৫তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ২ সেপ্টেম্বর ২০১১।

দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকে নোদা প্রশাসন আপ্রাণ চেষ্টা চালান বিপর্যয় সামাল দেয়ার জন্য। অর্থনীতিবিদ নোদা এ ক্ষেত্রে সাফল্যের মুখও দেখেন কিছুটা। যদিও বিরোধী দল শুরু থেকেই বলে আসছে যে, যতটা আশা করা হচ্ছিল নোদা ততটা সফল হননি। বিরোধী দল আরো বলেন, কান এবং নোদার মধ্যে মূলত মৌলিক কোনো পার্থক্য নেই।

বিরোধী দল যাই বলুক না কেন সাধারণ মানুষ অবশ্য মনে করেন ক্ষমতায় যেই যাক না কেন, সবাই একই। ক্ষমতা নিয়ে কাড়াকাড়ি ছাড়া রাজনীতিবিদরা আর কিছুই করতে পারেন না। যদিও তাদের অনেক কিছুই করণীয় রয়েছে। তবে তারা এটাও মনে করে যে, এত বড় একটা বিপর্যয় সামাল দেয়া চাট্টিখানি কথা নয়।

ভোক্তা কর বৃদ্ধি প্রধানমন্ত্রী নোদার নির্বাচনী ইশতেহারের অন্যতম এজেন্ডা ছিল। বর্তমানে বিক্রি ও ভোক্তা কর ৫% থেকে ১০% বৃদ্ধি করা তার অঙ্গীকার ছিল। এই কর বৃদ্ধি করতে গিয়ে তিনি নিজ দলের পার্লামেন্টারিয়ানদের বাধার মুখে পড়েন।

রাজনীতিতে তার-ই অগ্রজ, দলের প্রভাবশালী নেতা ওজাওয়া গ্রুপ প্রধান ওজাওয়ার কঠিন বাধার সম্মুখীন হন। সাধারণত দলের নির্বাচনী এজেন্ডা বাস্তবায়নে বিরোধী দলের বিরোধিতার মধ্যে পড়তে হয়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে হয়েছে তার উল্টো।

পড়েছিলেন নিজ দলের সদস্যদের বিরোধিতার মুখে। বরং বিরোধী দল ভোক্তা কর বৃদ্ধি বিলে নোদাকে সহায়তা করেছে। অবশ্য বিরোধী দলের সহায়তা ছাড়া ভোক্তা কর বৃদ্ধি বিল পাস করানো সম্ভবও ছিল না। কারণ, বিরোধী দল নিয়ন্ত্রিত উচ্চকক্ষে বিলটি পাস না হলে তা আইনে পরিণত হয় না।

বিক্রয় ও ভোক্তা কর বৃদ্ধি নোদা মন্ত্রিপরিষদে ৩০ মার্চ ২০১২ সালে অনুমোদন লাভ করে। ২৬ জুন তা নিম্নকক্ষে ৩৬৩/৯৬ ভোটে পাস হয়। ১০ আগস্ট উচ্চকক্ষে পাস হলে তা আইনে পরিণত হয়। তবে এই কর একবারে না বাড়িয়ে দু’বারে তা বৃদ্ধির বিধান রাখা হয়। নতুন এই আইন অনুযায়ী ১ এপ্রিল ২০১৪ থেকে ৮% এবং অক্টোবর ২০১৫ থেকে ১০% হিসেবে বিক্রয় ও ভোক্তা কর আদায় করা হবে।
জাপানে বিক্রি কর ১৯৮৯ সালের এপ্রিলে প্রথম অনুমোদন পায়। সেই সময়ে জাপানে বর্তমান বিরোধী দল এবং তৎকালীন ক্ষমতাসীন দল ‘লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (এলডিপি) নোবোরু তাকেশিতা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। দীর্ঘ ৮ বছর পর একই দলের রিওতারো হাশিমোতোর সময় ১৯৯৭ এপ্রিল ১ থেকে ৫% হিসেবে বিক্রি ও ভোক্তা কর কার্যকর হয়, যা বর্তমান পর্যন্ত বলবৎ আছে।

দলের প্রধান নির্বাচিত হওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার (আগস্ট ২০১১) সময় থেকে নোদার বিরোধিতা করে আসছিলেন ওজাওয়া। তারই ধারাবাহিকতায় ২৬ জুন নিম্নকক্ষে পাস হওয়ার পর কয়েক দফা বৈঠক করার পরও নোদা প্রশাসন বিলটি পাসে অনড় থাকলে ইচিরো ওজাওয়া ৪৯ জন রাজনৈতিক সহকর্মীকে নিয়ে দল থেকে বেরিয়ে যান। ২ জুলাই ২০১২ দলের সেক্রেটারি জেনারেল কোশিইশি আজুমার কাছে এই পদত্যাগপত্র জমা দেন। নিম্নকক্ষের ৪০ জন এবং উচ্চকক্ষের ১২ জন মোট ৫২ জন আইনপ্রণেতা দল থেকে পদত্যাগপত্র জমা দিলেও পরে নিম্নকক্ষের ২ জন আইনপ্রণেতা প্রত্যাহার করে নেন তাদের পদত্যাগপত্র। পরে ওজাওয়া তার অনুসারীদের নিয়ে ১১ জুলাই পিপলস লাইফ ফার্স্ট (পিএলএফ) নামে নতুন এক দল ঘোষণা দেন এবং তিনি তার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। জাপান রাজনীতিতে ওজাওয়া একজন অঘটন ঘটনপটীয়সী।

১০ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নোদা মাত্র ৩ ঘণ্টার নোটিশে তার সরকারি বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বিক্রি কর বৃদ্ধি বিলটি উচ্চকক্ষে পাস হওয়াতে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, প্রতিটি রাজনীতিবিদদের উচিত নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতিজ্ঞা করা, এজেন্ডাগুলো বাস্তবায়ন করা। কর বৃদ্ধি করা আমার অন্যতম নির্বাচনী এজেন্ডা ছিল। আমি সচেষ্ট থেকেছি তা পূরণ করায়, বিভিন্ন বাধার সম্মুখীন হয়েছি। যাদের সহযোগিতা পাব বলে বিশ্বাস রেখেছি, তাদের সহযোগিতা পাইনি। তারপরও আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ, কারণ আমি অভীষ্টে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে নোদা যাই বলেন না কেন, বিরোধী দলের সঙ্গে রাজনৈতিক সমঝোতা করেই বিলটি পাস করাতে হয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের দখলে থাকা নিম্নকক্ষের সদস্যদের মেয়াদ ২০১৩ সালের আগস্ট মাস পর্যন্ত। সেই হিসেবে আরো এক বছর এখনো হাতে থাকার কথা। কিন্তু রাজনৈতিক সমঝোতায় নোদা তার আগেই সাধারণ নির্বাচনের ইঙ্গিত দেন। আগামী নভেম্বরের কোনো এক সময় এই নির্বাচন হতে পারে বলে নোদা ইঙ্গিত দেন। তবে বেশির ভাগ রাজনীতিবিদই চান, বছরান্তে সাধারণ নির্বাচন।

মাত্র ২ সপ্তাহের ব্যবধানে ২৪ আগস্ট নোদা আকস্মিক সংবাদ সম্মেলন ডাকেন। এইদিন তিনি ভ্রাতৃপ্রতিম দেশ চীন ও কোরিয়ার সঙ্গে বিবদমান দ্বীপগুলোতে জাপানের সার্বভৌমত্ব বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনে কঠোর অবস্থান নেয়ার ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, দ্বীপগুলোয় সামরিক টহল আরো জোরদার করা হবে। প্রধানমন্ত্রী নোদা বলেন, ঐতিহাসিক এবং আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে তাকেশিমা এবং সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ জাপানের সার্বভৌমত্বের। এই বিষয়ে কারোর কোনো সন্দেহ থাকা উচিত নয়। তারপরও এই নিয়ে সম্প্রতি যেসব ঘটনা ঘটছে তা অত্যন্ত দুঃখজনক এবং উদ্বেগের। এই প্রসঙ্গে তিনি ১০ আগস্ট দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট লি মিয়াং-বাক কর্তৃক বিরোধপূর্ণ তাকেশিমা দ্বীপপুঞ্জ সফর এবং সাম্প্রতিক তার কর্মকা-ের প্রসঙ্গ টেনে আনেন।

প্রধানমন্ত্রী নোদা দাবি করেন ১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে কোরিয়া জাপানের দ্বীপগুলো দখল করতে শুরু করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আত্মসমর্পণ করায় ১৯৫০-এর দশকে তাকেশিমা দখল করে নিলেও যৌক্তিক কারণে পাল্টা ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয়ে ওঠেনি। কিন্তু যেহেতু বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী দ্বীপ দখল করেছে তাই দ্বীপগুলো যে জাপানের তাতে সন্দেহ নেই। তারপরও যদি তারা তা দাবি করে তাহলে হেগ এ অবস্থিত আন্তর্জাতিক আদালতের স্মরণাপন্ন হয়ে বিরোধ-মীমাংসা করা যেতে পারে।

নোদা আরো বলেন, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টকে আমি ব্যক্তিগত চিঠি দিলে তিনি তা গ্রহণ না করে ফেরত দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন যা কূটনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত। এই রকম আচরণ প্রটোকলের কেবল ক্ষতিই করবে। তিনি বলেন, উভয় দেশকে খোলা মনে আলোচনা করে মীমাংসায় আসা উচিত।

উল্লেখ্য, জাপানে তাকেশিমা যা দক্ষিণ কোরিয়ার দোকদো নামে পরিচিত দ্বীপপুঞ্জটিতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট লি মিয়াং বাক আকস্মিক সফর করলে উদ্বেগ প্রকাশ করে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা দ্বীপপুঞ্জটি নিয়ে দুই দেশের মধ্যকার বিরোধ নিষ্পত্তিতে আন্তর্জাতিক আদালতে আইনের মাধ্যমে সমাধানের প্রস্তাব দিয়ে ব্যক্তিগত পত্র দেন। কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়া তথ্যগত ভুল থাকার অজুহাতে তা গ্রহণ না করে একজন কূটনীতিক পাঠিয়ে তা ফেরত দেয়ার ঘোষণা দেন। সেই মোতাবেক পরবর্তী সময়ে সিউল একজন কূটনীতিক পাঠিয়ে পত্রটি ফেরত পাঠায়। কিন্তু জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সিউলের কূটনীতিককে প্রবেশ করতে দেয়নি। জাপান মনে করে, প্রধানমন্ত্রীর পত্র ফেরত দেয়া শিশুসুলভ আচরণের বহিঃপ্রকাশ। পরে অবশ্য কোরিয়া সরকার হাতে হাতে পত্রটি ফেরত দেয়ার পরিকল্পনা থেকে পিছু হটে এবং পরবর্তী রেজিস্টার মেইলের মাধ্যমে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

১০ আগস্ট তাকেশিমা দ্বীপপুঞ্জে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের সফরের রেশ কাটতে না কাটতে ১৫ আগস্ট একদল চীনা নাগরিক হংকং থেকে জাপানের নিয়ন্ত্রণাধীন পূর্ব চীন সাগরে সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জে নামেন। এরা সবাই একটি রাজনৈতিক দলের কর্মী ছিল। জাপান কোস্টগার্ড এসব রাজনৈতিক কর্মীদের গ্রেপ্তারে সক্ষম হয়। পরবর্তী সময়ে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার ভিত্তিতে চীনের হাতে এদের তুলে দেয়া হয়। চীনারা অবশ্য সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জকে তাদের দাবি করে আসছে এবং চীনা ভাষায় ‘দিয়াওইউ’ দ্বীপপুঞ্জ নামে পরিচিত। যদিও নোদা দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, সেনকাকু দ্বীপ জাপান নিয়ন্ত্রণ করছে এবং সেখানে কোনো আঞ্চলিক বিরোধ নেই। তিনি আরো বলেন, সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জে কোনো ধরনের অবৈধ অনুপ্রবেশ স¤পূর্ণ প্রতিহত করা হবে।

কোরিয়ার প্রতিবাদ
২৫ আগস্ট সংবাদ সম্মেলনের পূর্বেই নোদার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র চো তাই-ইয়াং সিউলে আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদ সম্মেলনে দ্বীপগুলোকে কোরিয়ার দাবি করে বলেন, দ্বীপগুলো আন্তর্জাতিক আইন, ঐতিহাসিক ও ভৌগোলিকভাবে কোরিয়ার সার্বভৌম অঞ্চল। কিন্তু নোদা প্রশাসন অযৌক্তিক এবং অবৈধভাবে দাবি করে আসছে।

চো তাই-ইয়াং আরো বলেন, দ্বীপগুলো কোরিয়ার ছিল এবং কোরিয়ারই থাকবে। তিনি জাপানের বক্তব্যের জোর প্রতিবাদ জানিয়ে দ্বীপগুলো থেকে জাপানের দাবি প্রত্যাহার করে নেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

প্রতিবাদ জানিয়েছে চীন
দিয়াওইউ দ্বীপপুঞ্জ (সেনকাকু নামে যা জাপানে পরিচিত) নিয়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে চীন। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হং লেই বেইজিং-এ এক সংবাদ সম্মেলনে নোদার বক্তব্যে অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, নোদার বক্তব্য প্রকাশ্যে চীনের সার্বভৌমত্ব্যের ওপর আঘাতের শামিল। বেইজিং কোনো অবস্থায় তা মেনে নিতে পারে না।

চীনের বেশ কয়েকটি শহরে জাপানবিরোধী সমাবেশও হয়েছে। বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে শত শত চীনা নাগরিক। সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ তাইওয়ান ও নিজেদের বলে দাবি করায় সেখানেও বিক্ষোভ হয়েছে। চীন, হংকং এবং তাইওয়ানে ‘জাপানিরা দিয়াওইউ (সেনকাকু) দ্বীপপুঞ্জ থেকে সরে যাও, জাপানি আগ্রাসন বন্ধ কর’ ইত্যাদি লেখা সম্বলিত ব্যানার হাতে বিক্ষোভকারী সেøাগান দিতে দিতে সিটি অফিসের কার্যালয়ে সমবেত হয়।

শান্ত থাকার জন্য নোদার আহ্বান
চীনের প্রেসিডেন্ট হু জিনতাওকে লেখা এক পত্রে জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক সম্পর্ক বজায় রেখে এই ইস্যুতে একত্রে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে শান্ত থাকার জন্য অনুরোধ জানান।

জাপানের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুইয়োমি ইয়ামাগুচি প্রধানমন্ত্রীর চিঠি চীনা কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করেন। চিঠিতে নোদা চীন ও জাপানের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

উল্লেখ্য, ২৭ আগস্ট সোমবার বেইজিং শহরে জাপানি রাষ্ট্রদূত নিওয়া উইচিরোকে বহনকারী গাড়িকে প্রকাশ্যে রাস্তায় আটকিয়ে কূটনৈতিক পতাকা গাড়ি থেকে ছিনিয়ে হয়। ছিনিয়ে নেয়া যুবকের পরিচয় এখনো জানা যায়নি। জাপান প্রতিবাদ জানালে চীন ঘটনার দুঃখ প্রকাশ করে এবং সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেয়। তবে এ রকম ঘটনা এখানেই শেষ বলে মনে হয় না। কারণ, সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জে অবৈধ প্রবেশের দায়ে ১৪ জন চীনা নাগরিককে গ্রেপ্তার এবং পরবর্তী সময়ে চীনা সরকারের কাছে হস্তান্তরের পর থেকে বিভিন্ন স্থানে (চীনা) বিক্ষোভ ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

বিরোধী দলের অনাস্থা প্রস্তাব

আভ্যন্তরীণ এবং পররাষ্ট্রবিষয়ক ইস্যুতে নোদা প্রশাসন সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে অভিযোগ এনে জাপানের প্রধান ২টি বিরোধী দল লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এনডিপি) এবং নিউকোমেইতো পার্টি বিরোধী দল নিয়ন্ত্রিত উচ্চকক্ষে প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব এনেছে। ২৮ আগস্ট মঙ্গলবার তারা এই নিন্দা প্রস্তাব আনে এবং অবিলম্বে নিম্নকক্ষ ভেঙে দিয়ে নতুন নির্বাচনের দাবি জানান। সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে নোদা প্রশাসন নিম্নকক্ষে ২টি বিল পাস করতে বিরোধী দল এই প্রস্তাব আনে উচ্চকক্ষে। বিল দুটি ছিল, ঘাটতি মোকাবিলায় বীমা-সংক্রান্ত এবং অপরটি নিম্নকক্ষের নির্বাচন প্রক্রিয়া সংস্কার সংক্রান্ত। বিরোধী দল ভোটদান থেকে বিরত থাকে। নিন্দা প্রস্তাবটি ভোটাভুটির জন্য প্রক্রিয়াধীন।

মোট কথা দলের অভ্যন্তরীণ, বিরোধী দল মোকাবিলা এবং পররাষ্ট্রবিষয়ক সমস্যায় নোদা ত্রিশংকু অবস্থায় পড়েছেন। এ সমস্যা কাটিয়ে বের হয়ে আসা নোদা প্রশাসনের জন্য মঙ্গল নয়।

উল্লেখ্য, বর্তমান ক্ষমতাসীন ডিপিজে (উচঔ)’র তিন বছর শাসনামলে এলাকায় এবং বিগত ৫ বছরে ষষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী।

অবশেষে নিন্দা প্রস্তাব
অবশেষে প্রধানমন্ত্রী নোদার বিরুদ্ধে আনীত নিন্দা প্রস্তাব পাস হয়েছে। বিরোধী দল নিয়ন্ত্রিত উচ্চকক্ষে ২৯ আগস্ট বুধবার অপরাহ্ণে তা পাস হয়। প্রধান বিরোধী দল এলডিপির নেতৃত্বে মোট ৭টি বিরোধী দল এই নিন্দা প্রস্তাব আনে ২৮ আগস্ট, একদিন পরেই তা পাস হলো এই নিন্দা প্রস্তাব। তবে অন্যতম বিরোধী দল নিউ কোমেইতো ভোট প্রদান থেকে বিরত থাকে।

উচ্চকক্ষের ২৪২ জন সদস্যের মধ্যে ২২০ জন ভোটাভুটিতে অংশ নেন। এতে নিন্দা প্রস্তাবের পক্ষে ১২৯ ভোট এবং বিপক্ষে ভোট পড়ে ৯১টি। স্বাক্ষর করা ব্যালটে এই ভোট গ্রহণ হয়। ক্ষমতাসীন দলের শরিক দল পিপলস লাইফ ফাস্ট (চখঋ) প্রধান ইচিরো ওজাওয়ার নেতৃত্বে ১২ জন সদস্য প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেন। ওজাওয়া ২ জুলাই দল থেকে বেরিয়ে গিয়ে ১১ জুলাই নতুন দল গঠন করেন।

তবে নিন্দা প্রস্তাব পাস ও নোদা প্রশাসন মোটেই বিচলিত নন। তা বোঝা যায় ক্ষমতাসীন দলের অন্যতম সদস্য নোরিও তাকে উচির বক্তব্য থেকে। তিনি বলেন, খুবই পরিতাপের বিষয়, প্রধান বিরোধী দল শুধু বিরোধিতা করার জন্য এবং দলীয় স্বার্থে নিন্দা প্রস্তাবে সমর্থন দিয়েছেন। নোদা প্রশাসন দাবি করে যে, তারা নিন্দা প্রস্তাবে আনা নোদার পদত্যাগ ও নিম্নকক্ষ ভেঙে দেয়ার আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছেন। নিন্দা প্রস্তাবের আইনগত কোনো ভিত্তি নেই এবং নিন্দা প্রস্তাব ও অনাস্থা প্রস্তাবের মধ্যে বাস্তবে কোনো মিল নেই বলে নোদা প্রশাসন দাবি করে।

২৯ আগস্ট ভোটাভোটির প্রাককালে পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে ইয়োর পার্টির সদস্য জিরোওনো নিন্দা প্রস্তাবের কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন। নোদা প্রশাসনের পাস করা বিক্রি কর বা ভোগ্যকর বৃদ্ধি নোদার নিজের দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির পরিপন্থী। তাই নোদার উচিত, এর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়ে ক্ষমতা থেকে সরে গিয়ে আপস নির্বাচন দেয়া।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী নোদার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাস ছিল জাপানের সংসদীয় ইতিহাসের তৃতীয় ঘটনা। ১১ জুন ২০০৮ প্রথমবারের মতো ইয়াসুও ফুকুদা এবং ১৪ জুলাই ২০০৯ আসো তারোর বিরুদ্ধেও নিন্দা প্রস্তাব পাস হয়। তারা উভয়ে বর্তমান বিরোধী দল এলডিপির সদস্য ছিলেন। এর মধ্যে আসে বাংলাদেশের একজন সুহৃদ। দুই-একটি বাংলা কথাও শিখেছেন। তার মধ্যে ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ অন্যতম। বাংলাদেশি সংশ্লিষ্ট কোনো আয়োজনে তিনি এই কথাটি সব সময় বলে থাকেন।

তথ্য সূত্র : আন্তর্জাল এবং প্রধানমন্ত্রীর অফিস
সহযোগিতায় : আশিকুর রাহমান হিরো আকি
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply