শিল্পপতি আসমতের মৃত্যু ঘিরে রহস্য

রাজধানীর কলাবাগানে শ্বশুরবাড়িতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মেট্রোসেম গ্রুপের পরিচালক আসমত উল্লাহর মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে রহস্য দানা বেঁধেছে। টয়লেটে ধূমপান করতে গেলে বায়োগ্যাস বা মিথানল গ্যাসের বিস্ফোরণে আসমত উল্লাহর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছিল। ঘটনার এক সপ্তাহ পর শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছে আসমতের স্বজনরা। তদন্তসংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারাও বলছেন, ঘটনাটি রহস্যজনক। আলামত ও আসামিপক্ষের বক্তব্যে সৃষ্টি হয়েছে জটিলতা। শিল্পপতি আসমত উল্লাহর স্বজন ও সহকর্মীরা অভিযোগ করছেন, আর্থিক সুবিধা ভোগের জন্য স্ত্রীর পরিবারের সদস্যরাই হত্যা করেছে আসমতকে। এদিকে আসামিপক্ষ দাবি করছে, আসমতের মৃত্যু হয়েছে দুর্ঘটনায়। সন্দেহ থেকে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ আগস্ট দুপুরে কলাবাগানের ৬৪ লেক সার্কাস ডলফিন গলির শ্বশুরের বাসায় অগ্নিদগ্ধ হন আসমত। ২৫ আগস্ট ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। ঘটনা প্রসঙ্গে আসমতের স্ত্রী উম্মে সালমা ওরফে লক্ষ্মী ও তাঁর স্বজনরা আসমতের পরিবারকে জানান, টয়লেটে সিগারেট ধরাতে গেলে বিস্ফোরণে অগ্নিদগ্ধ হন আসমত উল্লাহ। ২৫ আগস্ট আসমতের মৃত্যুর আগেই কলাবাগান থানায় আসমতের স্ত্রীর ভাই ব্যারিস্টার আলী বাসার একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন_’একটি সিগারেট ধরানোর সঙ্গে সঙ্গে সম্ভবত টয়লেটে বায়োগ্যাস বা মিথানল গ্যাস থাকার কারণে টয়লেটটিতে বিস্ফোরণ ঘটে।’ ওই ঘটনায় আসমতের শরীরের ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। একই তারিখে আসমতের বড় ভাই আতাউর রহমান কলাবাগান থানায় আরেকটি সাধারণ ডায়েরি করেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন_’আসলে আসমত উল্লাহ পুড়েছে, নাকি অন্য কোনো ঘটনা আছে, তা তদন্ত করে দেখা একান্ত প্রয়োজন।’

অবশেষে গত ২ সেপ্টেম্বর আসমতের বড় ভাই আতাউর রহমান বাদী হয়ে কলাবাগান থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় শ্বশুর হাজি নিজাম উদ্দিন, স্ত্রী উম্মে সালমা ওরফে লক্ষ্মী এবং লক্ষ্মীর তিন ভাই আলী আজম, দবির হোসেন ওরফে সাজু ও ব্যারিস্টার আলী বাসারকে আসামি করা হয়। মামলা দায়েরের পর থেকেই পাঁচ আসামি গা ঢাকা দেন। গত বুধবার আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন বলে জানা গেছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ঈদ উপলক্ষে ১৫ আগস্ট আসমত উল্লাহ স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে শ্বশুরবাড়ি যান। ২৪ আগস্ট দুপুর দেড়টার দিকে লক্ষ্মীর ভাই ব্যারিস্টার আলী মামলার বাদীর বাসায় ফোন করে জানান, আসমত উল্লাহ টয়লেটে গিয়ে সিগারেট ধরানোর জন্য আগুন জ্বালালে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে এবং তার সারা শরীর ঝলসে যায়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের নিবিড় পরিচর্যা ওয়ার্ডে (আইসিইউ) তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে নিহতের বড় ভাই হাজি শহীদুল্লাহ, রকিব উল্লাহ ও রফিক উল্লাহ হাসপাতালে ছুটে যান। তাঁরা বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে আসমতের সারা শরীরে ব্যান্ডেজ বাঁধা অবস্থায় দেখতে পান। তাঁরা জানতে পারেন, হাসপাতালে ভর্তির পর কর্তব্যরত চিকিৎসক আসমতের গলায় ফুটো করে বিকল্পভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার উদ্যোগ নিলে তাঁর শ্বশুর ও স্ত্রীর ভাইরা এতে বাধা দেন। পরে নিহতের বড় ভাইয়ের অনুরোধে বিকল্পভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আসমত ভাইদের বলেছিলেন, ‘বাথরুমে ঢোকার পর মারাত্মক গন্ধ পান এবং দপ করে আগুন জ্বলে ওঠে।’

বাদী এজাহারে অভিযোগ করেন, টয়লেটের মধ্যে সিগারেটের ছাই বা সিগারেট ধরানোর কোনো আলামত পায়নি পুলিশ। বাথরুমের একটি দরজা বিস্ফোরণে ভেঙে গেছে বলে দাবি করেছে আসমতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তবে আগুনে ঘরের কোনো মালপত্র পোড়েনি। এমনকি টয়লেটের ভেতরে দুটি কাঠিসহ দিয়াশলাইয়ের বাক্স, পেস্ট, শেভিং ক্রিম, লোশন, শ্যাম্পুসহ সবই অক্ষত আছে।

বাদী আতাউর রহমান আরো দাবি করেন, ওই টয়লেটে বায়োগ্যাস বা মিথেন গ্যাস থেকে বিস্ফোরণ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কারণ, বাথরুমের পেছন দিকে একটি ভেন্টিলেটর আছে। শ্বশুরবাড়ির লোকজন আসমতকে নানাভাবে প্ররোচিত করছিল। তারা আসমতকে তাঁর ভাই আবদুর রহমানের ব্যবসা থেকে আলাদা হয়ে টাকা নিয়ে ঢাকায় ব্যবসা করতে বলে। এসব প্রস্তাবে রাজি না হওয়ার কারণে তারা আসমতের ওপর ক্ষিপ্ত ছিল। এ ছাড়া আবদুর রহমান চিকিৎসা ও হজ পালনের জন্য দেশের বাইরে থাকার সময় আসমতের শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আনে। ওই টাকা নিয়েও বিরোধ দেখা দেয়। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে দাহ্য পদার্থের মাধ্যমে আসমত উল্লাহকে অগ্নিদগ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

মেট্রোসেম গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘নিহত আসমত উল্লাহ সাহেবের শ্বশুরবাড়ির লোকজন ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফনের কথা বলে। এটি রহস্যজনক। আমরা এ ঘটনার কার্যকর তদন্ত চাই।’

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জের মিরাপাড়ার মৃত ইউনুস মুন্সীর ছেলে আসমত উল্লাহ চট্টগ্রামের আসাদগঞ্জ রোডের ট্রেড লিংক ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক ছিলেন। একই সঙ্গে তিনি মেট্রোসেম গ্রুপের পরিচালকও ছিলেন। তিনি চার বছর আগে রাজধানীর কলাবাগানের বাসিন্দা নাজিম উদ্দিনের মেয়ে উম্মে সালমা লক্ষ্মীকে বিয়ে করেন। তাঁদের আজমাইন নামের দুই বছরের একটি ছেলে আছে। পরিবার নিয়ে আসমত চট্টগ্রামেই থাকতেন।

কলাবাগান থানায় আসমত উল্লাহ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাসুদ শিকদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ঘটনাটি রহস্যজনক। বাদীর অভিযোগের ভিত্তি ও আলামত থেকে সন্দেহ হচ্ছে। মনে হচ্ছে, এটি নিছক কোনো দুর্ঘটনা নয়। তবে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া আগেই কিছু বলা যাবে না। ঘটনার পর আসমতের একটি লুঙ্গি ও বাড়ির গৃহকর্মীর একটি শাড়ি আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে। আগুনে আসমত উল্লাহর শরীরের প্রায় পুরো অংশ পুড়ে গেলেও তাঁর লুঙ্গির সামান্য অংশ পুড়েছে। গৃহকর্মীর হাত পুড়েছে। তবে তার শাড়ির এক কোণে আগুন লাগে। এ ছাড়া টয়লেটের দেয়ালে আগুন বা বিস্ফোরণের কোনো চিহ্ন নেই। এ আগুন বা বিস্ফোরণ কিসের তা পরীক্ষার জন্য আলামত দুই-এক দিনের মধ্যে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) পাঠানো হবে বলে জানান তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলার আসামি ও আসমতের স্ত্রী লক্ষ্মীর ভাই ব্যারিস্টার আলী বাসার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এটা একটি দুর্ঘটনা। দুঃখজনক ব্যাপার হলো, এমন ঘটনার পর আমার বিধবা বোন ও আমাদের বিরুদ্ধে শ্বশুরবাড়ির লোকজন মামলা করল। আমরা কেন আমার ভগ্নিপতিকে হত্যা করব? যে ঘরে দুর্ঘটনা ঘটে সেখানে তিন-চার মাস কোনো লোকজন থাকে না। টয়লেটের ভেন্টিলেশন নেই। তাই গ্যাস থেকেই দুর্ঘটনা ঘটেছে।’

কালের কন্ঠ – এস এম আজাদ

Leave a Reply