শায়নার কলেজ জীবন

তরুণ প্রজন্মের অভিনেত্রীদের মধ্যে শায়না আমিন তার অভিনয় দক্ষতার মাধ্যমে নিজেকে নির্মাণ করছেন ধীরে ধীরে। মেহেরজানখ্যাত এই অভিনেত্রী সমপ্রতি কাজ করছেন মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের কলেজ নামক ধারাবাহিক নাটকে। তার সাথে কথা বলে লিখেছেন শওকত মিথুন ও নাসিম সাহনিক

শায়না আমিন তার মিষ্টি হাসি আর মায়াবী চেহারা দিয়ে দর্শকের হৃদয় আকর্ষণ করে নেন বেশ সহজেই। সাথে যোগ হয়েছে সাবলিল অভিনয়। ফলে বলা যায় এই অভিনেত্রী দর্শকের কাছে সময়ের সাথে সাথে আরো বেশি গ্রহণযোগ্য হবেন। মেহেরজান চলচ্চিত্র এবং এই চলচ্চিত্র পরবর্তী বিজ্ঞাপনগুলো তাকে দর্শক পরিচালকদের মনোযোগে নিয়ে আসে। কামিং সুন ধারাবাহিকের পর এখন অভিনয় করছেন কলেজ ধারাবাহিকে। এই তো সেদিন মহাখালীর প্যারা মেডিকেলে শায়নার সাথে কথা বলার সুযোগ হলো। শায়না শুটিং নিয়ে ব্যস্ত। চারপাশে শায়নাকে দেখার জন্য দর্শকের ভিড়। ফলে অগত্যা শায়নার অভিনয় দেখতে হলো। ভালোও লাগছিল বেশ। চারপাশের দর্শকও বেশ উপভোগ করছিলেন আর হাসছিলেন। নাটকের সংলাপে শায়না তার প্রেমিককে বললেন , ‘তুমি আমাকে বিয়ে করবে? ‘পাশে থাকা প্রেমিকের উত্তর, ‘হ্যা করবো! ‘ ‘তাহলে করো।’ ‘কি করবো? ‘বিয়ে করবে। ‘ ‘বিয়ে করব মানে? এখন কিভাবে বিয়ে করবো। আমরা সবেমাত্র ফার্স্ট ইয়ারে পড়ি। ‘ ‘ফার্স্টইয়ারে পড়ি তো কি হয়েছে? ফার্স্ট ইয়ারে পড়লে কি বিয়ে করা যায় না?’ ‘না যায় না। আর এই বয়সে আমি বাড়িতে আমার বিয়ের কথা বলতে পারবো না।’ ‘কি? বিয়ে করতে পারবা না? বিয়ে করতে পারবানা মানে? ‘ প্রচ- রাগ করতে গিয়েও নিজেকে কন্ট্রোল করে ফেলে শায়না।


কারণ তার আরেক বন্ধু চলে এসেছে। শায়নার এই প্রচন্ড রাগারাগি তার প্রেমিকের সাথে। শায়না এখনই বিয়ে করতে চায় কিন্তু তার প্রেমিক চায়না। কারণ সবেমাত্র তারা কলেজে ফার্স্টইয়ারে পড়ছে। রেদোয়ান রনির পরিকল্পনায়, পল্লব বিশ্বাসের পরিচালনায় কলেজ ধারাবাহিক নাটকের একটি দৃশ্যের সংলাপ এইগুলো। এখানে শায়না আমিন অভিনয় করছে নাবিলা চরিত্রে। একদল তরুণ তরুণী রঙিন একটি স্বপ্ন নিয়ে কলেজে ভর্তি হয়েছে। এমনি সময়টা রঙিন তার উপর আবার রূপচর্চায় পটু নাবিলা। সুযোগ পেলেই একটু লিপস্টিক দিয়ে নিবে, চোখের কাজলটা গাঢ় করবে। চুলটা ঠিক করে মুখটা ফ্রেশ করে পরিপাটি করে নিবে নিজেকে। সবশেষ করে একটি কাজ মনে হয় করতেই হবে নাবিলাকে, মানে শায়নাকে। বলেনতো কি? আরে পারলেন না? প্রেম প্রেম! এত কষ্ট করে সাজুগুজু কি আর এমনি এমনি করে? যদি একটা প্রেম-ই না করতে পারে তাহলে এত সাজুগুজুর কি দরকার? মিষ্টি একটি হাসির সাথে কথাগুলো আসছিল শায়না আমিনের কাছ থেকে।

কারণ কলেজ নাটকটায় সে নিজেই এখন নাবিলা হয়ে গেছে পুরোদস্তুর। মিষ্টি হাসির এই চঞ্চল মেয়েটার জনপ্রিয়তা সে নিজেও হয়তো জানে না। একজীবনের এত প্রেমের মিউজিক ভিডিওর সুবাদে তার একজীবনে যে পরিমাণ ভালোবাসা আর জনপ্রিয়তা সে দর্শকদের কাছ থেকে পেয়েছে তার জন্য তাকে তিনদিন অপেক্ষা করতে হয়নি। তিনদিনের কথা কেন বলছি নিশ্চয় বুঝতে পারছেন? অমিতাভ রেজার প্যারাস্যুট নারিকেল তেলের বিজ্ঞাপনের জন্য বন্ধু তিনদিন কথাটি এখন সায়না আমিনকে নিয়ে গেছে জনপ্রিয়তায় নিয়ে গেছে আরো কয়েক ধাপ উপরে। তবে এর জন্য সায়নাকে পরিশ্রম করতে হয়েছে স্বাভাবিক পরিশ্রমের ছেয়েও তিনগুণ বেশি। সায়না যে শুধু এই বিজ্ঞাপনে বেশি পরিশ্রম করেছে তা কিন্তু না। সে এমনিতেই পরিশ্রমী একজন শিল্পী। তবে এই পরিশ্রমের জন্য অবশ্যই অবশ্যই গল্প ভালো হতে হবে। মানে সে যে কাজই করুক হোক সেটা নাটক, বিজ্ঞাপন, মিউজিক ভিডিও এমনকি চলচিত্রও…। যদি গল্পটা ভালো না হয় তবে কোনোভাবেই সেই কাজে পাওয়া যাবে না। কোনো অনুরোধেও না। একদমই না। সায়না আমিনের ব্যস্ততা কিন্তু শুধু নাটক, বিজ্ঞাপন আর মিউজিক ভিডিও নিয়েই শেষ না। এর মধ্যে সে বড় পর্দায়ও নিজেকে প্রমাণ করেছেন আলাদা হিসাবে তার অভিনয় দক্ষতা আর পরিশ্রমের গুণে।

ইমপ্রেস টেলিফিল্ম এর পিতা চলচিত্রে তার বিপরীতে ছিল কল্যাণ আর এটিএন মাল্টিমিডিয়ার পুত্র এখন পয়সাওয়ালা চলচিত্রে তার বিপরীতে ছিলেন ইমন। বড় পর্দার এই অপূর্ব সুন্দরী মেয়েটাকে দেখে অনেক যুবকই বুকের কোন একটা জায়গায় মিষ্টি একটা ব্যথা অনুভব করেছিল যা এখন সারা বুকেই ছড়িয়ে গেছে হাজার যুবকের। গতানুগতিক ধারার চলচিত্রের বাইরে মেহেরজান চলচিত্র তার একটি বিশাল অভিনয় দক্ষতার প্রমাণ আমরা দেখতে পেয়েছি। পাকিস্তান বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক ওমর রাহিম ছিল তার বিপরীতে। জয়া বচ্চনের যুবতী চরিত্রে তাকে দেখতে পেয়েছিলাম আমরা মেহেরজান চলচিত্রে। মেহেরজান ছবিটা কোন একটা বিশেষ সমস্যার কারণে যদি বন্ধ না হয়ে যেত তবে আমরা হয়তো শায়না আমিনকে আরো অন্যভাবে দেখতে পেতাম। তারপরও তিনি কিন্তু থেমে নেই। চলছে তো চলছেই। আজ একঘণ্টা নাটকের শুটিং কাল ধারাবাহিকের শুটিং, পরশু বিজ্ঞাপনে কোথাও সে স্থীর না। কাজের পাশাপাশি পড়াশোনাতো আছেই।

যত ব্যস্তই থাকুক, প্রিয়জনদের সাথে তার চঞ্চলতা থাকছে সবসময়। আড্ডায় মাতিয়ে রাখছে সব বন্ধুদের। তা সেটা হোক নিজের ইউনিভার্সিটি শুটিং স্পট কিংবা নিজের ঘরে, সদা হাস্যোজ্জ্বল কৌতূহলী মায়াবী চোখের মেয়েটির আবার অনেক কিছুই অপছন্দ আছে। না না ভয় পাওয়ার কিছু নেই, অপছন্দ করার মতোই বিষয়। কেউ যদি কথা দিয়ে তা ঠিকভাবে রাখতে না পারে তাহলে তো সায়নার কিছুই করার নেই। অপছন্দতো করবেই। সায়নার সাথে কথা বলতে বলতে কখন যে অনেক সময় পার হয়ে গেছে তা বুঝতেই পারিনি যদি না তাকে শর্টের জন্য ডাক না দিত। লাইট, ক্যামেরা, আর্টিস্ট সবই রেডি, শুধু পরিচালক একশন বললেই সেলুলয়েডের ফিতা ধারণ করতে থাকবে দৃশ্যগুলো। তাই অ্যাকশনের অপেক্ষায় আছে সায়নারা। আর বাইরে গেটের কাছে রাস্তায় অপেক্ষা করছে বহুলোক। কারণ একটু পরেই শুটিং শেষ হবে আর এ পথ দিয়েই বাইরে যেতে হবে সায়নাকে। কত আগ্রহ নিয়েই না মিলন নামের ছেলেটা দাড়িয়ে আছে সায়নাকে দেখার জন্য। সায়না কি জানে কত গভীর, কত অকৃত্রিম ভালোবাসা আর শ্রদ্ধা নিয়ে বাইরে দাঁড়িয়ে আছে মিলনের মতো হাজারো দর্শক।

যায় যায় দিন

Leave a Reply