অন্ধত্বের কাছে হার মানেনি আনোয়ার

অন্ধত্বের অভিশপ্ত জীবন চলার পথে বাধা হতে পারেনি আনোয়ার হোসেনের(৪৫) কাছে। নিজের ইচ্ছা ও কর্মশক্তি তাকে আত্মনির্ভর করেছে। মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার বাসাইল ইউনিয়নের গুয়াখোলা গ্রামের শেখ বিশুর পাচ ছেলের মধ্যে তৃতীয় হচ্ছেন আনোয়ার। তিন বছর বয়সে বসন্ত রোগে তার দুটি চোখ অন্ধ হয়ে যায়। ১০ বছর বয়সে পিতাকে হারান। কয়েক বছর পর বড় ভাই হাসেম (২৮) কিডনি ও আলসার রোগে এবং মেঝ ভাই হালিম (২৬) হার্টের রোগে ছোট ছেলে-মেয়ে রেখে মারা যায়। তখন একান্নবর্তী পরিবারে অভাবের সংসারের পুরো দায়িত্ব তার ওপর এসে পড়ে। আনোয়ার বৃদ্বা মা ছোট দুই ভাই ও বড়ভাইয়ের সংসারের সদস্যদের নিয়ে জীবন সংগ্রাম শুরু করে। এক সময় উপায়ন্তর নাপেয়ে অনিচ্ছাসত্বেও ভিক্ষাবৃত্তি শুরু করে সংসার চালাত। কিন্তু অন্ধ আনোয়ারের সংগ্রামী মন ঘৃনিত এ পেশাকে বেশী দিন মেনে নিতে পারছিলেন না। তাই মনে মনে আত্মনির্ভরশীলতার চিন্তা শুরু করে।

আনোয়ার বিশ বছর বয়সে তার মায়ের সঙ্গে পরামর্শ করে জীবন ও জীবিকার তাগিদে এলাকাবাসীর কাছ থেকে ধারদেনা করে সামান্য পুজি নিয়ে ছোট ভাই জাকিরের (১০) সহযোগিতায় গ্রামেই এক ক্ষুদ্র মুদি দোকান শুরু করেন। এভাবে দোকান চালানোর কিছুুদন পর পুরো ব্যবসা পরিচালনার দায়িত্ব পরে অন্ধ আনোয়ারের উপর। সংসারের বাড়তি আয়ের জন্য ছোট ভাই অন্যত্র কাজে চলে যায়।


অন্ধ হলেও আনোয়ার দীর্ঘদিনের অভি¹তাকে পূজি করে একাই দোকানের মালামাল ক্রয়-বিক্রয়, টাকা-পয়সা লেনদেনসহ দোকানের সমস্ত কাজ পরিচালনা করতে পারেন। তবে মাঝে মাঝে প্রয়োজনে ক্রেতার সহযোগিতা চান।
গত ২৪ সেপ্টেম্ভর আনোয়ার এক প্রশ্নের জবাবে ইত্তেফাককে জানান, হাতের স্পর্শেই তিনি দোকানের বিভিন্ন মালপত্র ও বিভিন্ন মানের টাকা-পয়সা চিনতে পারেন। তবে বাজারে কোন নতুন মুদ্রা চালু হলে প্রথম প্রথম একটু অসুবিধা হয়।

অন্ধ আনোয়ার ২৬ বছর বয়সে পাশ্ববর্তী গ্রামের মাসুদা বেগমকে বিয়ে করে। বর্তমানে তাদের সংসারে ১ মেয়ে সুমা (১৬) এবং দুই ছেলে জীবন (১৩) ও বিল্লাল (১১) রয়েছে। কষ্ট হলেও আনোয়ার ছেলে মেয়েদের পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

তবে আনোয়ার জানান, বর্তমানে পূজির অভাবে তার ব্যবসা পরিচালনায় দারুন অসুবিধা হচ্ছে। যদি সমাজের কোন দানশীল ব্যক্তি তার এ দুর্দিনে এগিয়ে সাহায্যর হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে সে ছেলে মেয়ে নিয়ে বাচতে পারবেন বলে জানান।

বাংলাপোষ্ট২৪

Leave a Reply