মাওয়া চৌরাস্তায় সন্ধ্যার পরে মালবাহি ট্রাক ও লরি থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের হিড়িক

মাওয়া চৌরাস্তায় রাতভর চলে মালবাহি ট্রাক, যাত্রীবাহি বাস, লরির উপর দিয়ে চাঁদাবাজির হিড়িক। সর্বোচ্চ চাঁদা আদায়ের রেকড গড়েছেন ১৩ঘন্টা ফেরী বন্ধের দিন। আগে সিরিয়ালের জন্য ১০০০টাকা করে নেয়া হয়েছে ড্রাইভারদের। জ্যাম আর ফেরী বন্ধ হলেই এদের যেন পোয়াবারো। সকল ফেরী চালু থাকলে দুই শত থেকে আড়াইশ যানবাহন থেকে প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০হাজার টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হয়।

প্রায়ই মাওয়া-কা্ওড়াকান্দ নৌরুটে নাব্যতা ও পানির উল্টো স্রোতের কারণে ফেরী চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে শুরু হয় দীর্ঘ যানজট এতে শত শত মানুষ হয় দুর্ভোগের শিকার। দোগাছি বাজার পর্যন্ত দীর্ঘ লাইনে গাড়ি ও মানুষ আটকে পড়েছে।

নাব্যতার কারণে মঙ্গলবার দ্বিতীয় বারের মত বিকাল ৫টা থেকে ফেরী চলাচল বন্ধ রয়েছে যদিও কর্তৃপক্ষ বলছে ফেরী চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। মাওয়া থেকে সাড়ে ৪ কিলোমিটার দূরে নৌরুটের কবুতর খোলা নামকস্থানে ডুবোচরে ফেরী আটকে যায়। অর্থাৎ এই চ্যানেলটি এখন পর্যন্ত চালু করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। ফলে পানির স্রোত ও নাব্যতার কারণে ছোট ফেরী ছাড়া বন্ধ রয়েছে সকল ফেরী পারাপার। এই কবুতরখোলা চ্যানেল দিয়ে সকল ফেরি চলাচল করে সময়ও বাঁচে। কত দিনে চালু হবে কেউ বলতে পারে না। মাওয়া ঘাট থেকে দোগাছি পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক মালবাহি ট্রাকসহ প্রায় ২ শতাধিক যাত্রীবাহি বাস অটকা পড়ে। এই যানজট শ্রীনগর ছনবাড়ি ছাড়িয়ে দীর্ঘ হয়ে কুচিয়া মোড়া পর্যন্ত পৌছে যাওয়ার আশংকা করছে বাস ড্রাইভার।

যদিও সোনার হারিণ ফেরী চালু হয় তবে যাদের টাকার জোর নেই তাদের আর ফেরীতে উঠা হয় না। সিরিয়াল পান না। সিরিয়াল পেতে হলে ধার্য্যকৃত টাকার চেয়ে ৫০০/১০০০টাকা করে নিয়ে পিছনের গাড়িগুলো আগে দিচ্ছে। রাতে ট্রাক ড্রাইভার, হেলপাররা ঘাট মালিকদের ২০০টাকা অতিরিক্ত দিয়েও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। রাত যত গভীর হয় তত ছিনতাইকারী উৎপাত বেড়ে যায়। ইতিমধ্যে ২জন ড্রাইভারকে চাকু দেখিয়ে ৬হাজার করে ১২হাজার টাকা মোবাইল নিয়ে গেছে। অপরদিকে ড্রাইভার ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী কিছু লোকদের জিজ্ঞাসা করলে তারা জানান, বিআইডব্লিউটিসির কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম, আইসি খালিদ (নৌফাঁড়ির পুলিশ) ও লাইন ম্যান, আনসার এদের ভাগ রেখে বাকী আদায়কৃত অতিরিক্ত টাকা বিভিন্নভাবে ভাগবটোয়ারা হয়। তদন্ত করলেই এ সকল অভিযোগের সত্যতা ১০০% পাওয়া যাবে বলে নিশ্চিত করেন নাম না প্রকাশের শর্তে কর্তব্যরত এক পুলিশকর্মকর্তা। সোমবার রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশ প্রকাশ্যে টাকা নিচ্ছে, আনসার টাকা নিচ্ছে, লাইন ম্যান রিসিট দিয়ে ৩০০টাকা করে নিয়ে খাতায় উঠাচ্ছে। ১৪,৯০টাকার স্থলে ২৫,০০ টাকা দিলেই সে হয়ে যায় ভিআইপি। গতকাল ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে দেখা যায় ঢাকা থেকে সরাসরি মালবাহি ট্রাক এসে চলে যাচ্ছে ফেরীর দিকে। কিন্তু যারা গতকাল রাতে লাইনে আছে তাদের ট্রাক যেতে পারছে না। মোবাইলের মাধ্যমে পূর্বেই ইরেজীতে এ নামক একটি সংকেত দিয়ে ভিআইপির তালিকায় লেখা হয় ট্রাকগুলোকে। এভাবে আর কত দিন কর্মকর্তা, পুলিশ, আনসার, লাইন ম্যানের মাধ্যমে চাঁদাবাজি হবে মাওয়া ঘাটের চৌরাস্তায় এটাই জানতে চায় মাওয়া ঘাটের ভুক্তভোগীরা।

এ বিষয় নেŠফাড়ির ইনচার্জ খালিদ হাসান মোটা অংকের টাকা পাওয়ার কথা কৌশলে এড়িয়ে গিয়ে বলেন, মঙ্গলবার রাতে দু একটি টাকা নেয়ার ঘটনা শুনেছি। তার পর থেকে পুরোপুরি টাকা নেয়া বন্ধ করে দিয়েছি। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। যাতে কেউ টাকা নিতে না পারে।

এ বিষয় বিআইডবিবউটিসির ম্যানেজার সিরাজুল ইসলাম মোটা অংকের টাকা নেয়ার কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এগুলো আপনাদের মত লোকেরাই বলতে পারে, প্রমাণ দেখাতে পারলে আমি এখানে চাকুরী করব না, প্রমাণ দিতে পারলে এখানে এক সেকেন্ডও থাকবো না। আমার কোন লোক টাকা উঠায় না।

tnb24

Leave a Reply