পদ্মায় পানি বৃদ্ধি, মুন্সীগঞ্জের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

গত ৩ দিনে পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে মুন্সীগঞ্জের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে নদী তীরবর্তী গ্রামগুলোর শত শত মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বর্তমানে পদ্মার ভাগ্যকুল পয়েন্টে বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার ১৩ সেন্টিমিটার, বুধবার ৯ সেন্টিমিটার ও বৃহস্পতিবার ৮ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে পদ্মার ভাগ্যকুল পয়েন্টে। এরফলে পদ্মা নদীর তীর সংলগ্ন শ্রীনগর, লৌহজং, টঙ্গবাড়ি ও মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়ে। এতে প্লাবিত হয়ে পড়া গ্রামগুলোর শত শত মানুষ এখন পানিবন্দি অবস্থায় দিনযাপন করছে।

এবিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুল আউয়াল বাংলানিউজকে জানান, পাহাড়ি ঢলে কারণে হঠাৎ দেশের বিভিন্ন নদ নদীর মতো পদ্মায়ও পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে পদ্মায় বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

গত ৩ দিনে পদ্মার ভাগ্যকুল পয়েন্টে ৩০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে তিনি জানান।

এবিষয়ে লৌহজং উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইফুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, লৌহজংয়ের কলমা, গাওদিয়া ও নদী সংলগ্ন গ্রামগুলোতে পানি ঢুকেছে। এছাড়া আরও কোন কোন গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে তার খোজঁখবর নেওয়া হচ্ছে।

এবিষয়ে টঙ্গীবাড়ি উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) নাদিরা হায়দার বাংলানিউজকে জানান, নদী তীরবর্তী চরাঞ্চলের গ্রামগুলোতে কিছু পানি ঢুকলেও এখনো বিপদজনক কিছু হয়নি।

বিষয়টি তদারকির জন্য সার্বনিক খোজঁখবর নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এদিকে টঙ্গীবাড়ির পাচঁগাও ইউপির শামিম বাংলানিউজকে জানান, নদী তীরবর্তী হাসাইল, গারুরগাও, চিত্রকর, আটিগাও, বিদগাও, বানারী ও পাচনখোলা গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে। এছাড়া চরাঞ্চলের বিভিন্ন বাড়িতেও পানি ঢুকে পড়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply