জখমি মানিক ছিনতাই মামলার আসামি

এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোস্তফা হাবিবে আলম শাহরিয়ারসহ ৪ কর্মীকে মামলায় আসামি করার পর নিজেই এখন ছিনতাই মামলার আসামি। জখমী মানিক ঢাকার বক্ষব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে ছিনতাই মামলার আসামি হিসেবে গতকাল মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ১১ই সেপ্টেম্বর রাতে মানিককে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়। এতে তার স্বজনরা এলাকার প্রতিপক্ষ জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোস্তফা হাবিবে আলম শাহরিয়ারসহ ৪ কর্মীকে আসামি করে মামলা করেন।

এ ঘটনার ১১ দিন পর তাদের মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অভিযোগে পুলিশ মানিককে ছিনতাইকারী হিসেবে চিহ্নিত করে। তার বিরুদ্ধেই মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় ছিনতাই মামলা করা হয়। গত ২২শে সেপ্টেম্বর রাতে সদর উপজেলার উত্তর চরমশুরা গ্রামের ব্যবসায়ী রজ্জব আলী মানিককে আসামি করে ছিনতাই মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ জানায়, শহরের দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামের বিএনপি’র একনিষ্ঠ কর্মী প্রয়াত আবুল হোসেন আবুর ছেলে মানিককে গলা কেটে হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগে জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি মোস্তফা হাবিবে আলম শাহরিয়ার, বাকাউল্লাহ, রাজু ও সোহাগকে আসামি করে গত ১২ই সেপ্টেম্বর সদর থানায় মামলা করা হয়। মামলার বাদী হন মানিকের চাচা নাসিরউদ্দিন ওরফে নাসির। এ মামলা দায়েরের ১১ দিন পর গত ২২শে সেপ্টেম্বর ছিনতাই চেষ্টার অভিযোগ এনে চরাঞ্চলের উত্তর চরমশুরা গ্রামের রজ্জব আলীর পিতা হেফাজউদ্দিন মুন্সীগঞ্জ থানায় এসে হাজির হয়। একই দিন মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে হেফাজউদ্দিন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।


জবানবন্দিতে তিনি বলেন, গত ১১ই সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহরের সরকারি হরগঙ্গা কলেজের পূর্ব পাশের সড়কে ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে তিনি জখম হলে প্রাণ বাঁচাতে রাতের আঁধারে মানিকের গলায় ছুরিকাঘাত করেন তিনি নিজেই। ছিনতাইকালে হেফাজউদ্দিন একই এলাকার সঙ্গীয় কাউসারকে নিয়ে রিকশাযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় মানিক ও সঙ্গীয় ২-৩ যুবক ছিনতাইয়ের চেষ্টায় হেফাজউদ্দিনকে কুপিয়ে জখম করে। তিনি আদালতকে আরও বলেন, এ ঘটনায় মানিকের চাচার দায়ের করা মামলার ৪ আসামির কেউই জড়িত নয়। তাদের মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শেষে একই দিন ব্যবসায়ী হেফাজউদ্দিনের ছেলে রজ্জব আলী বাদী হয়ে মানিকসহ অজ্ঞাতনামা ৩ জনকে আসামি করে মুন্সীগঞ্জ থানায় ছিনতাই মামলাটি করা হয় বলে পুলিশ জানায়।

এ মামলা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ওইদিন রাতে মানিককে সদর থানার এসআই মোশারফ হোসেন গ্রেপ্তার করতে ঢাকায় অভিযান চালায়। মানিককে না পেয়ে তার আত্মীয় মো. শাহীন (৪৫)কে মানিকের চিকিৎসার কাগজপত্রসহ ঢাকার কমলাপুর এলাকা থেকে আটক করে নিয়ে আসে। পরে মানিকের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় শাহীনকে আসামি করে আদালতে প্রেরণ করে। এদিকে গতকাল মানিকের জামিন হওয়ার সংবাদে এসআই মোশারফ হোসেন ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। দুপুরে মামলার বাদী মানিকের চাচা নাসিরউদ্দিনের মোবাইল ফোনে প্রশ্ন করেন, মানিক কোথায়, জামিন হয়েছে কি না। এতে নাসিরউদ্দিন নাসির মানিকের জামিন হওয়ার কথা বললে তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, কিভাবে তার জামিন হলো। এতে করে পরিবারটি এসআই মোশারফ আতঙ্কে রয়েছেন। এলাকাবাসী জানায়, এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শহরের দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামে শহর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক, সাবেক কাউন্সিলর শহীদুল ইসলাম ও শহর যুবদলের সভাপতি কাউন্সিলর এনামুল গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে।

মানবজমিন

Leave a Reply