মাওয়া-কাওড়াকান্দি রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ, পরিদর্শনে কর্মকর্তারা

পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোতের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে যানবাহন পারাপারে নিয়োজিত সবগুলো ফেরির চলাচল শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে বন্ধ রাখার পর শনিবারও তা অব্যাহত রয়েছে। এদিকে, বৃহস্পতিবার এ রুটের ১৫টি ফেরির মধ্যে ১১টির চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর পর ৪টি ফেরি দিয়ে যান পারাপার অব্যাহত রাখা হয়। তাও ধীরগতিতে চলাচল করছিল।

শুক্রবার সকালের পর তীব্র স্রোতের কারণে আরও ২টি ফেরি নোঙর করে রাখা হয়। দুপুরের পর থেকে আরও একটি ফেরির চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। অবশেষে সন্ধ্যা ৬টা থেকে বাকি ফেরির চলাচলও বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। এতে করে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যোগাযোগের অন্যতম মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট বন্ধ হয়ে যায়।

এবিষয়ে, শনিবার সকালে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ জানায়, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল আবার কবে ও কখন শুরু হবে, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছেনা।

পদ্মায় তীব্র স্রোতের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে শনিবার সকাল ১১টার দিকে বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান মজিবুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাওয়া ঘাটে পৌঁছেছেন। বর্তমানে তারা মাওয়া ঘাট এলাকায় অবস্থান করছেন।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া ঘাটের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. আশিকুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট পরিদর্শন করছেন। তারা পদ্মানদীর মাওয়া প্রান্ত দিয়ে বয়ে যাওয়া স্রোতের তীব্রতা প্রত্যক্ষ করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

তবে ফেরি চলাচল আবার কখন থেকে শুরু হবে, সে বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান তিনি।

মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) খন্দকার খালিদ হোসেন বাংলানিউজকে জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর আটকে পড়া যানবাহনে থাকা যাত্রীরা অনেকে ফিরে গেছেন। অনেকে আবার লঞ্চ ও ট্রলারে করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে নিজ গন্তব্যে চলে গেছেন।

তিনি জানান, শনিবারও মাওয়া ঘাট ও আশপাশের এলাকায় আটকে পড়া যানবাহন রয়েছে। তবে এর মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যাই বেশি। ট্রাকগুলো গত কয়েকদিন ধরে পারাপারের অপেক্ষায় মাওয়া প্রান্তে অবস্থান করছে। আর এর চালক ও শ্রমিকরা মাওয়া ঘাটের হোটেল ও আশপাশের এলাকায় ঘুরে ফিরে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন।

এদিকে, মাওয়া ঘাট সূত্রে জানা যায়, ফেরি চলাচল বন্ধ থাকার কারণে যাত্রী ভোগান্তি ছাড়াও এ অঞ্চলের উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহনে সমস্যায় পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। পণ্যবাহী ট্রাকগুলো আটকা থাকায় বহন করা কৃষিপণ্যে এরই মধ্যে পচন শুরু হয়েছে।

কাজী দিপু : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply