মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট: বাস পারাপার বন্ধ

মাওয়া ঘাট থেকে: পদ্মায় পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারণে বন্ধ থাকার ২০ ঘণ্টা পর মাওয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হলেও তাতে পণ্যবাহী ট্রাক ও জরুরি যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। তবে কোনো যাত্রীবাহী বাস পারাপার করা হচ্ছে না। নৌরুটের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে যাত্রীবাহী বাস পারাপার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি।

এবিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া ঘাটের সহকারী মহাব্যবস্থাপক এসএম আশিকুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, আটকে থাকা পণ্যবাহী ট্রাক ও জরুরি যানবাহন পারাপার করা হবে। পানি বৃদ্ধি ও প্রচণ্ড স্রোতের কারণে পারাপার কাজ ব্যাহত হওয়ায় আপতত যাত্রীবাহী বাস পারপার করা হবে না।

তিনি আরও জানান, মাওয়া ঘাটের ৫শ গজের মধ্যে পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোত ও ঘূর্ণপাত। এ কারণে নৌপথ পাড়ি দিয়ে ঘাটের কাছে এসে ফেরি ভিড়তে পারছে না। এরফলে রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন ও শাহমখদুম এবং কেটাইপ ফেরি কেতকি, কিশোরী, কাকলী ও ফরিদপুর বিআইডব্লিউটিএর টাগ জাহাজ শৈবালের সাহায্যে ঘাটে নোঙর করছে।

তিনি জানান, নৌরুটে ১৫ ফেরির মধ্যে ৬টি ফেরি শনিবার দুপুর থেকে চালু করা হয়েছে। এখনো ৯টি ফেরি বন্ধ রয়েছে। এরমধ্যে ৭টি ডাম্প ফেরির সবকটিই বন্ধ।

ডাম্প ফেরি চালু করার পর থেকেই যাত্রীবাহী বাস পারাপার করা হবে জানিয়ে আশিকুজ্জামান বলেন, আগামী ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যে পূর্ণিমা কেটে গেলে পদ্মার পানি কমবে। পানি কমলে স্রোতের তীব্রতাও কমে আসবে। এরপরই নৌরুটের সব ফেরি চলাচল করতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হলেও তা স্বাভাবিক হতে আরও কয়েকদিন সময় লাগবে দাবি করে বিআইডব্লিউটিসি’র সহকারী মহাব্যবস্থাপক এসএম আশিকুজ্জামান জানান, পানি ও স্রোত কমলে এবং ফাট ফেরি চালু করা গেলে যানবাহন পারাপার স্বাভাবিক হবে। এর আগে আশা করা যাচ্ছে না। এ অবস্থায় যাত্রী সাধারণের একটু সমস্যা হবে, যা প্রাকৃতিক সমস্যা হিসেবেই ধরে নিতে হবে সকলের।

যানজট পরিস্থিতি
এদিকে গত কয়েকদিন ধরে নৌরুটে পারাপার ব্যাহত ও ২০ ঘন্টা বন্ধ থাকার কারনে কয়েক শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের ৬ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি করেছে। সেই সঙ্গে ছোট ছোট যানবাহনও আটকা পড়ে আছে।

আটকে পড়া পিকআপ ভ্যান চালক শহীদুল মোল্লা বাংলানিউজকে জানান, ঢাকা থেকে বরিশাল যাওয়ার জন্য রওনা হয়ে শুক্রবার বিকেল থেকে শনিবার বিকেল পর্যন্ত মাওয়া ঘাটে আটকা পড়ে আছেন। এখানে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হওয়ায় গাড়ি ঘুরিয়েও যেতে পারছি না। তাই এখানেই মালামাল নিয়ে রাত যাপন করতে হয়েছে।

মাদারীপুরগামী চন্দ্রা পরিবহনের সুপারভাইজার মাসুম খান বাংলানিউজকে জানান, শুক্রবার সকালে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে মাওয়া ঘাটে আটকা পড়েছি। ৪৭ জন যাত্রীও আটকা পড়ে মাওয়া ঘাটে দিন ও রাত কাটিয়ে শনিবার সকালে বিকল্প পথে লঞ্চযোগে কাওড়াকান্দি পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, সেখানে তাদের পরিবহনের অপর একটি বাস দিয়ে যাত্রীরা তাদের গন্তব্যে রওনা হয়েছেন। তবে পদ্মা সেতু নির্মিত হলে এ সমস্যা থাকবে না বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে ট্রাক চালকরা অভিযোগ করে বাংলানিউজকে জানান, মাওয়া ঘাটে কোনো নিয়ম-শৃঙ্খলা নেই। কে আগে যাবে এ প্রতিযোগিতার কারণে আরও যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

যাত্রীদের দুর্ভোগ
অপরদিকে ঢাকার গোড়ান থেকে মাদাবীপুর যাওয়ার জন্য রওনা হয়ে সকাল ১০টার দিকে মাওয়া ঘাটে পৌছেন যাত্রী রওশন আরা বেগম। তিনি স্বামী আনোয়ার হোসেন, ৭ বছরের ছেলে জনি ও ফুফু ফুলজান বেগমকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন।

কিন্তু, এখানে এসে পারাপার হতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন পরিবার নিয়ে। মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ, এ খবর তিনি জানতেন না।

বিকল্প পথে যাত্রী
এদিকে ফেরি চলাচল শুরু হলেও একটি ফেরি আসতে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা সময় ব্যয় হওয়ায় যাত্রী সাধারণ লঞ্চ, ট্রলার ও সি বোট দিয়ে নৌরুট পারাপার হচ্ছে। পদ্মায় তীব্র স্রোত থাকলেও লঞ্চ, ট্রলার ও সি বোট চলাচলে কোনো সমস্য হচ্ছে না বলে জানান লঞ্চ মালিক মো. দুলালা মিয়া।

তিনি আরও জানান, বর্তমানে মাওয়া ঘাটে ফেরির পরিবর্তে যাত্রীরা লঞ্চ, ট্রলার ও সি বোট দিয়ে পারাপারে ভীড় জমিয়েছেন মাওয়া ঘাটে।

কাজী দীপু, জেলা প্রতিনিধি
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply