শ্রীনগরে সরকারী হাসপাতাল ও তিনটি বিদ্যালয় হুমকির মুখে

পদ্মাতীর থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন
আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে পদ্মাতীর থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে সরকারী হাসপাতাল,তিনটি বিদ্যালয় ও ইউনিয়ন পরিষদ ভবন। উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদ ভবন থেকে মাত্র পঞ্চাশ গজ দুরে চলছে এ রমরমা বালুর ব্যাবসা। স্থানীয়রা জানান, দিনের বেলায় মাঝ পদ্মা থেকে ট্রলারে করে বালু অনলেও রাতের চিত্র ভিন্ন। সন্ধ্যার পর পরই শুরু হয় কাটিং ড্রেজারের মাধ্যমে পদ্মাতীর থেকে বালু উত্তোলন। যেখান থেকে কাটিং ড্রেজার দিয়ে বালু উঠানো হয় তার একশ গজের মধ্যে রয়েছে কাজী ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, চৌধুরী বাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, এম,এফ হক টিউটোরিয়াল, ভাগ্যকুল উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদ।


বর্ষার পানি কমতে শুরু করলেই দেবে যেতে পারে এসব স্থাপনা। এলাকাবাসী আরো জানান এরকম ভাবে বালু উত্তোলনের ফলে গত বছর পার্শ্ববর্তী বাঘরা বাজারের একাংশ দেবে যায়। সরজমিনে দেখা যায় ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি কাজী শাহাদাতের জায়গা ভাড়া নিয়ে নদীর তীরে স্তুপ আকারে বালু জমা করা হচ্ছে। সেখান থেকে প্রতি ঘন্টায় প্রায় ত্রিশটি ট্রাক ও ট্রলি লোড করে হাসপাতাল ও স্কুলের মাঝখান দিয়ে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এতে প্রতিনিয়ত স্কুলের শ্রেনী কক্ষে বালু উড়ে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের শরীরে জমা হয় বালুর স্তর। অভিবাকরা অভিযোগ করে বলেন বালুতো ধুয়ে ফেললে চলে যাবে।

কিন্তু যেভাবে প্রতিদিন ট্রাক ও ট্রলি যাতায়াত করে এতে যেকোন মূহুর্তে চাকার নিচে পৃষ্ট হয়ে প্রান যেতে পারে ক্ষুদে ছাত্র-ছাত্রীদের। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক জানান গাড়ির শব্দে ছেলে মেয়েরা পড়ায় মন দিতে পারে না। ছাত্র-ছাত্রীদের চোখে বালু ঢোকার কারণে অনেকে স্কুল ছুটির আগেই বাড়িতে চলে যেতে বাধ্য হয়। এব্যাপরে ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বলেন গত বছর এখানে বালু ব্যাবসা নিয়ে তিনবার মারামারি হয়েছে । আমি আমার ব্যাক্তি মালিকানার জায়গা ভাড়া দিয়েছি আমার জায়গা থেকে বালু কাটা হচ্ছেনা। শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহানারা বেগম বলেন বিষয়টি আমি অবগত নই,তবে এব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Leave a Reply