আতাউস সামাদের হঠাত্ চলে যাওয়া

ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
আতাউস সামাদ সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা হলো, তার মতো ভদ্র ও হাসি-খুশি মানুষ আমি জীবনে খুব কম দেখেছি। একই সঙ্গে তার মধ্যে সাংবাদিকতা এবং দেশের প্রতি যে অঙ্গীকার ছিল, সেটা ছিল অনমনীয়। বলা যায়, ব্যক্তিগত আচরণে কোমল, কিন্তু অঙ্গীকারে কঠিন। তার অনেক সাহিত্যিক গুণ ছিল। তিনি ইংরেজি ও বাংলা দুই ভাষাতেই পারদর্শী ছিলেন। যেটা তার কালের সাংবাদিকদের মধ্যে সাধারণত দেখা যেত না। তখন যারা বাংলা ভাষায় সাংবাদিকতা করতেন, তারা ইংরেজি ভাষায় সাংবাদিকতা করতে অস্বস্তি বোধ করতেন। আবার যারা ইংরেজি ভাষায় লিখতেন, তারা বাংলা ভাষার ক্ষেত্রে অতটা সাবলীল হতে পারতেন না। আতাউস সামাদ দুই ভাষাতেই সাবলীল ছিলেন। তার সব রিপোর্টই প্রাণবন্ত ও আকর্ষণীয় হতো।

আতাউস সামাদকে সাংবাদিকতার বাইরে অন্য পেশাতে আমি ভাবতে পারি না। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকতাতেই তার জীবন কেটেছে। এটাই ছিল তার জন্য স্বাভাবিক। তাকে বলা যাবে একজন দুরন্ত সাংবাদিক। অল্প বয়সে ছাত্রজীবনে তিনি দৈনিক সংবাদে রিপোর্টার হিসেবে কাজ শুরু করেন। এরপর আজাদ, পাকিস্তান অবজারভার, করাচির দি সান ও বিবিসিতে সাংবাদিকতা করেন। আরও পরে তিনি দৈনিক আমার দেশ-এর উপদেষ্টা সম্পাদক হলেন। তিনি সাপ্তাহিক এখন নামে একটি পত্রিকা বের করেন। এসব কিছুর মধ্যে তরুণ বয়সের ধর্ম দুরন্তপনা ছিল। এ দুরন্তপনাকে তারুণ্যও বলা যায়। সাংবাদিক হিসেবে যেখানেই সংবাদ তৈরি হতো, সেখানেই তিনি ছুটে যেতেন এবং যা দেখতেন তাকে বস্তুনিষ্ঠভাবে উপস্থাপন করার ব্যাপারে কোনো কার্পণ্য করতেন না। তাই প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যে যেমন আতাউস সামাদ উপস্থিত থাকতেন, তেমনি তার সাংবাদিক জীবনে যত রাজনৈতিক দুর্যোগ এবং বিপজ্জনক ঘটনা ঘটেছে, প্রত্যেকটি উপস্থাপনাতে তার সাহস দেখা যেত। সত্তর সালের নির্বাচনের পর ইয়াহিয়া খান যেদিন ঢাকায় আসেন, সেদিন আতাউস সামাদের সঙ্গে আমার হঠাত্ করে দেখা হয়েছিল ঢাকার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাম অফিসে। তিনি সেদিন করাচির সান পত্রিকার জন্য প্রতিবেদন পাঠাতে সেখানে গিয়েছিলেন। তাত্ক্ষণিকভাবে তার কাছ থেকে যেটা জানতে পারলাম, সেটা তার ভাষায়—‘ইয়াহিয়া খান এবং শেখ মুজিবের মধ্যে একটা স্নায়ু যুদ্ধ শুরু হতে যাচ্ছে।’ তার সেই ধারণাটা যে কত সত্য ছিল, আমরা পরে তা টের পেয়েছি।

একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধের সময়টাতে আতাউস সামাদের সঙ্গে আমার দু’একবার দেখা হয়েছে। আমরা সবাই তখন বিপর্যয়ের মধ্যে ছিলাম। আতাউস সামাদের তখন বিশেষ বিপর্যয় ছিল। তার এক আত্মীয় মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। কিন্তু ওই বিপর্যয়ের মধ্যেও আতাউস সামাদ আশা হারাননি। কথিত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার সময় তিনি নিয়মিত সংবাদ পরিবেশন করতেন। কিন্তু তার কাজ সেখানেই সীমিত ছিল না। তিনি শেখ মুজিব ও মওলানা ভাসানীর মধ্যে যোগসূত্র হিসেবে কাজ করেছেন। এখানে সাংবাদিক হিসেবে আতাউস সামাদের আরেকটা বৈশিষ্ট্য দেখতে পাচ্ছি। সেটা হলো দেশপ্রেম। তার সাংবাদিকতার ভেতরে সবসময় দেশপ্রেম ছিল। যদিও তিনি বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপস্থাপন করতেন, কিন্তু তার অঙ্গীকার ছিল নতুন একটি সমাজ গঠনের প্রতি। এ অঙ্গীকার স্থূলভাবে প্রকাশ পায়নি। ভেতর থেকে তাকে অনুপ্রাণিত করত বলেই তিনি পেশাদারিত্বের সঙ্গে দেশপ্রেমকে যুক্ত করতে পেরেছিলেন। আতাউস সামাদকে নিরপেক্ষ বলা যাবে না। তিনি সবসময় ছিলেন জনগণের পক্ষে। আর সেজন্য সাংবাদিকদের পেশাগত অধিকার প্রতিষ্ঠার যে আন্দোলন, তার মধ্যে তাকে দেখেছি। সাংবাদিক ইউনিয়নের সঙ্গে তার সবসময় যোগাযোগ ছিল ঘনিষ্ঠ।

পেশাগতভাবে কোনটা সংবাদ আর কোনটা নয়, এটা চিহ্নিত করতে তার দক্ষতা ছিল অসামান্য। আবার সংবাদের ভেতরে কোন অংশটা জরুরি, সেটাকেও তিনি তুলে ধরতেন। তার উপস্থাপনায় সেটা মুখ্য হয়ে উঠতো।

আতাউস সামাদের রুচি ছিল অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন। সেই রুচি তার সাংবাদিকতাতে প্রকাশ পেত। তিনি রিপোর্ট লিখতেন অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে তো বটেই, যত্ন সহকারেও। কোন শব্দটি যথার্থ হবে, বাক্যের গঠনটি কেমন হওয়া দরকার, কীভাবে শুরু করলে সংবাদটি আকর্ষণীয় হবে অথচ স্থূল হবে না—এসব বিষয়ে তার দৃষ্টি ছিল অত্যন্ত প্রখর। আমি লক্ষ্য করতাম, তার সংবাদ পরিবেশনায় একটি নাটকীয়তা থাকত। এ নাটকীয়তা প্রাণবন্ততারই অন্য নাম। আতাউস সামাদের দৃষ্টান্ত বিরল আরও এক ক্ষেত্রে। তিনি ছিলেন সাহসী এবং কখনোই আপস করেননি। অন্যদিকে সরকারের বিরূপ দৃষ্টিতে পড়বেন, এমনটা ভেবেও বিচলিত বোধ করেননি। এই জন্ম-সাংবাদিক সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে যেমন ছিলেন রুচিবান, তেমনি ছিলেন অননুমেয়। সাংবাদিকতায় সংবাদের বোধ ও সাহস দুটোরই যে প্রয়োজন, সেই সত্যের প্রতিফলন আমরা তার দীর্ঘ কর্মজীবনের সব পর্যায়েই দেখেছি।

আতাউস সামাদকে আমি বিশেষভাবে দেখেছি এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময়। তখন তিনি বিবিসির সংবাদদাতা। তিনি প্রতিদিন বিবিসির জন্য রিপোর্ট পাঠাতেন। যেটা শোনার জন্য শ্রোতারা আগ্রহের সঙ্গে অপক্ষো করতেন। আমার বিশেষভাবে মনে পড়ে একদিনের ঘটনার কথা। তখন এরশাদবিরোধী আন্দোলন প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ধর্মঘট করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এটা ছিল সকালের ঘটনা। আতাউস সামাদ যেন এ সংবাদটার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। সেদিন সন্ধ্যায় বিবিসিতে সংবাদটা প্রচারিত হলে দেশজুড়ে এরশাদবিরোধী আন্দোলনে একটা নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছিল। এর আগে এরশাদবিরোধী সংবাদ পাঠানোর কারণে আতাউস সামাদকে গ্রেফতার করে কারাবন্দী করা হয়। একজন সাংবাদিকের জন্য এটাও একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। তাকে আটক করার প্রতিক্রিয়াস্বরূপ শুধু বাংলাদেশেই নয়, যেখানে যেখানে বিবিসির সংবাদদাতারা আছেন, তারা সবাই এর প্রতিবাদ করেছেন এবং এতে এরশাদ সরকার অত্যন্ত নিন্দিত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী তৈরি চাপের ফলে এরশাদ সরকার আতাউস সামাদকে ১৫ দিন পর ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। আতাউস সামাদের মধ্যে সেই সাহস ছিল, যার জন্য তিনি স্বৈরশাসনের ভ্রূকুটিতে নিজেকে গুটিয়ে নেননি।

আতাউস সামাদকে আমি কখনও অপ্রসন্ন দেখিনি। মৃত্যুর পরও তার যে ছবি খবরের কাগজে দেখলাম, সেখানেও মনে হলো তার মুখে হাসি। পেশাগত ও ব্যক্তিগত জীবনে নিশ্চয় তাকে বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে। কিন্তু মুখের হাসিটি কখনও মিলিয়ে যায়নি। সাংবাদিকতার কাজটি তিনি কখনও বোঝা হিসেবে মনে করেননি। এ কাজে তার আনন্দ ছিল। তার সুযোগ হয়েছিল আগের প্রজন্মের কয়েকজন সাংবাদিক ও সম্পাদকের কাছ থেকে শিক্ষা নেয়ার। তিনি নিজেও তার প্রজন্মের এবং পরবর্তী কালের সাংবাদিকদের কাছে সবসময় দৃষ্টান্ত আর কখনও কখনও শিক্ষক হিসেবে ছিলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে যখন তিনি শিক্ষকতা করেছেন, তখন তার শিক্ষার্থীরা তার কাছ থেকে যে ধরনের শিক্ষা লাভের সুযোগ পেয়েছেন, সেটা তারা পরে ভুলতে পারেননি।

বিবিসির যখন তিনি সংবাদদাতা, তখন তিনি বিভিন্ন উপলক্ষে আমার সাক্ষাত্কার নিয়েছেন। এমনই ছিল তার কতর্ব্যজ্ঞান, ওই সাক্ষাত্কার যেদিন প্রচার হবে সেদিন তিনি সকালে ফোন করে আমাকে জানিয়ে দিতেন। উচ্চশিক্ষার জন্য আমি ইংল্যান্ডে গিয়েছিলাম। ফেরত আসার পর আতাউস সামাদের অনুরোধে বাংলাদেশ অবজারভার পত্রিকায় ইংল্যান্ড সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা নিয়ে একটা প্রবন্ধ লিখেছিলাম। এটা কখনোই লিখা হতো না, যদি তিনি আগ্রহ প্রকাশ না করতেন। এ ঘটনার এজন্য উল্লেখ করলাম, তিনি মানুষকে লেখার জন্য উদ্বুদ্ধ করতেন।

আরেকটা ব্যক্তিগত কথা বলতে পারি, আতাউস সামাদ আমাকে স্যার বলতেন। যদিও আমাদের মধ্যে বয়সের ব্যবধান বেশি ছিল না। ঘটনাক্রমে তিনি তখন ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শেষ দিকের ছাত্র। আমি লেকচারার হিসেবে ওই বিভাগে সদ্য যোগ দিয়েছি। আমার কিছু ক্লাসে তিনি উপস্থিত ছিলেন। আমাকে স্যার বলার মধ্যে তার বিনয় প্রকাশ পেত। কিন্তু আমার সঙ্গে তার সম্পর্কটা কোনো দিক দিয়েই ছাত্র-শিক্ষকের ছিল না। সেটা ছিল বন্ধুত্বের।

তার অপ্রত্যাশিত চলে যাওয়ায় ব্যক্তিগতভাবে আমার দুঃখটা স্বজন হারানোর। আর সাংবাদিকতা জগতের ক্ষতিটা হলো এই যে, একজন নিষ্ঠাবান, দৃষ্টান্তস্বরূপ সাংবাদিক আমাদের ছেড়ে চলে গেল। এ ক্ষতি অপূরণীয়। তার চলে যাওয়াটা আরও দুঃখের। কেননা, এ ছিল সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত।

লেখক : প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ, প্রাবন্ধিক, গবেষক

আমার দেশ

Leave a Reply