মুন্সীগঞ্জে ছেলে ধরা গুজব, ৮ জনকে গণধোলাই

মুন্সীগঞ্জ জেলা জুড়ে চলছে ছেলে ধরা আতঙ্ক। ইতিমধ্যে ছেলে ধরে সন্দেহের জেরে প্রায় আট জন নারী-পুরুষ গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন। তবে এখনো কারো ছেলে-মেয়ে কেউ ধরে নিয়ে গেছে কি-না তথ্য কেউ জানাতে পারেনি। এসব গুজবের কারণে অনেকেই ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। অনেক স্কুলে গিয়ে দেখা গেছে অভিভাবকদের ভিড়।

এদিকে গণধোলাইয়ের শিকার হওয়ার প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধের ঘটনাও ঘটছে। তবে এ ব্যাপারে প্রশাসন নিরব রয়েছে।

গত ৯ অক্টোবর মেয়ের শ্বশুর বাড়ি মুন্সীগঞ্জ শহরস্থ হাটলক্ষীগঞ্জ যাচ্ছিলেন ফাতেমা। পরহেজগার এই মহিলার পরনে ছিল বোরকা। স্কুলের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় সন্দেহে বশত তাকে গণপিটুনির শিকার হতে হয়। তিনি বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন।

আহত নারী ফাতেমার নিকট আত্মীয় মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খোরশেদ আলম তপন জানান, মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে তিনি শহরের হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকায় মেয়েকে দেখতে মেয়ে শ্বশুর বাড়িতে যাচ্ছিলেন।


এ সময় হাটলক্ষীগঞ্জ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে যেতেই স্থানীয় লোকজন ছেলে ধরা চক্রের সদস্য ভেবে ফাতেমাকে আটক করে। এ সময় অতি উৎসাহী লোকজন তাকে বেধড়ক পেটালে তিনি রক্তাক্ত জখম হন। আহত ফাতেমা মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার শিলমন্দি এলাকার ইউসুফ মিয়ার স্ত্রী।

একই দিন শহরের জোড়পুকুর পাড় এলাকায় আদর করে এক পথ শিশুকে আইসক্রিম খাওয়াতে গেলে ভিক্ষু জামালাকে পাকড়াও করে স্থানীয় এলাকাবাসী। তিনি গণপিটুনির শিকার হন। মারাত্মক আহত অবস্থায় তাকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

পরে জানা যায় তিনি বাড়ি বাড়ি ভিক্ষে করে বেড়ান।

আহত জামেলা জানান, তার বাড়ি চাঁদপুর সদরের পুরান বাজার এলাকায়। তিনি বাড়ি বাড়ি ভিক্ষা করে বেড়ান। জোড়পুকুর পাড় এলাকায় ভিক্ষা করতে গেলে তাকে নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ, যে যেভাবে সুযোগ পেয়েছে পিটিয়েছে।

পরদিন ১০ অক্টোবর রিকাবীবাজার এলাকায় গরু কিনতে গিয়ে মহসিন নামের এক যুবক ছেলে ধরা সন্দেহে জনরোষে মৃত্যুর প্রহর গুনছে ঢাকা মেডিকেলে।

পরের দিন তার প্রতিবাদে মুন্সীগঞ্জ সদরের সিপাহীপাড়া এলাকায় ঢাকা-বালিগাঁও-টঙ্গিবাড়ি সড়কে অবরোধ ও বাস কাউন্টার ভাঙচুর করে গণধোলাইয়ের শিকার মহসিনের স্বজন ও এলাকাবাসী।

১০ অক্টোবর বুধবার রাতে সিরাজদিখান উপজেলার রামানন্দ গ্রামে শিশুপুত্রসহ মাকে গণধোলাই দেয়া হলে পুলিশ আসমা বেগম ও তার এক বছরের শিশুপুত্র রিয়াদকে উদ্ধার করে।

এছাড়া অটোরিকশার চালক লাভলু হাওলাদার ওরফে কালু মা-ছেলের সঙ্গে গণধোলাইয়ের শিকার হন। এর আগে ৬ অক্টোবর নয়াগাঁও এলাকায় রাবেয়া বেগম নামের এক পাগলকে গণধোলাই দেয় স্থানীয় জনতা।

পুলিশ জানায়, রাবেয়া নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ থানার চরকিশোরগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা। তাকে মসজিদের একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটায় স্থানীয় জনতা। খবর পেয়ে তারা তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

বিষয়টি নিয়ে সরেজমিনে মাঠপাড়া ও পাঁচঘরিয়াকান্দিসহ বিভিন্ন প্রাইমারি স্কুলে গিয়ে অভিভাবক ও শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে পাওয়া গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অভিভাবকরা জানিয়েছেন-জেলার সর্বত্র ছেলে ধরা আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিভিন্ন স্থানে ধরাও পড়ছে।

ঘটনার সত্যতা না জানলেও গণধোলাইয়ের ঘটনায় তারা ভীত-সন্ত্রস্ত। ছেলে-মেয়েদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে নিজেরাই স্কুলে তাদের ছেলে মেয়েদের নিয়ে আসছেন। তাদের নিয়ে বাসায় ফিরছেন।


তবে এ ব্যাপারে ভিন্ন মত পোষণ করছেন প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা। তারা জানান, কোথাও কোনো ছেলে-মেয়ে ধরে নিয়ে গেছে, এমন কোনো ঘটনার সত্যতা খুঁজে পাওয়া যায়নি। যা হচ্ছে তা গুজব ছাড়া কিছুই নয়।

তারা আরো জানান, এই গুজবের কারণে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলে আসছে না। যারা আসছেন তারা তাদের অভিভাবকদের নিয়ে আসছেন। তারা আরো জানান, কে বা কারা এসব গুজব ছড়িয়েছেন জানি না। এসবের কোনো ভিত্তি নেই।

স্কুল থেকে শিক্ষার্থী অপহৃত হওয়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি। তবে, অপ্রচার রোধে প্রশাসনের কোনো প্রচারণা নেই বলে অনেকেই ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খান জানান, শিশু অপহরণের বিষয়টি সম্পূর্ণ গুজব। সম্প্রতি এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। এসব অপপ্রচারের পিছনে কোনো একটি কুচক্রী মহল কাজ করতে পারে বলে তিনি জানান।

তিনি আরো জানান, পুলিশ প্রশাসন এ ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন রয়েছে। তারা নিয়মিত স্কুলে ভিজিট করছেন। সবশেষে তিনি অভিভাবকদের কাছে আহবান জানান তারা যেন নির্ভয়ে তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠান।

বার্তা২৪

Leave a Reply