ভিক্ষুক দম্পতি ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থী হত্যারহস্য উদ্ঘাটন হয়নি

ভিক্ষাবৃত্তির সঞ্চিত টাকার জন্যই খুন হয়েছেন ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে চলাচলকারী বাসের হেলপার মরম আলীর ভিক্ষুক বাবা-মা। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার কামারগাঁও কেদারপুর গ্রামে আশ্রিত ভিক্ষুক দম্পতি হত্যার নেপথ্যে ভিক্ষাবৃত্তির সঞ্চিত অর্থকেই কারণ বলে মনে করছে স্থানীয়রা। চার দিনের ব্যবধানে পৃথক দুটি ঘটনায় ভিক্ষুক দম্পতি ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থী শিশু সজীব হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় রোববার পর্যন্ত শ্রীনগর থানা পুলিশ কোনো ক্লু উদ্ঘাটন করতে পারেনি। পুলিশের পক্ষে সম্ভব হয়নি কাউকে আটক বা গ্রেফতার করা।


স্থানীয়রা ধারণা করছে, মাদ্রাসা শিক্ষার্থী সজীবের খুনি বাইরের কেউ নয়। অনেকেই জানায়, মাদ্রাসার ভেতরে রাতে বহিরাগতদের প্রবেশ পুরোপুরি নিষিদ্ধ। তা ছাড়া মাদ্রাসার রান্নার কাজে দুটি বঁটি ব্যবহার করা হলেও সজীব হত্যার পর থেকে একটি বঁটি পাওয়া যাচ্ছে না রান্নাঘরে। হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হওয়ার দুই-তিন ঘণ্টার মধ্যে মাদ্রাসার পুকুর পাড়ে শিশু শ্রেণীর শিক্ষার্থী সজীবের মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। দু’দিন পর ওই পুকুরের পানিতে তল্লাশি চালিয়ে ডুবুরিরা উদ্ধার করে সজীবের বিচ্ছিন্ন মাথাটি। শ্রীনগরের বেলতলী রওজাতুল কোরআন মাদ্রাসাসংলগ্ন পুকুর পাড়ে আট বছরের শিক্ষার্থী সজীবের মাথাবিহীন লাশ পাওয়া যায় ৬ অক্টোবর রাত সাড়ে ৯টায়। এরপর নিহতের সহপাঠী, শিক্ষক, বাবুর্চিসহ এ পর্যন্ত মাদ্রাসাসংশ্লিষ্ট সাতজনকে পুলিশ বিভিন্ন সময় থানা হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। কিন্তু তাদের কাছ থেকে খুনের ক্লু উদ্ধার ও ঘাতক শনাক্তের মতো কোনো তথ্য পায়নি পুলিশ।


অন্যদিকে ভিক্ষুক দম্পতি কিনাজ উদ্দিন ও কদবানুকে খুপরি ঘরের বিছানায় ঘুমন্ত অবস্থায় খুন করা হয় ১০ অক্টোবর রাতে। দুষ্কৃতকারীরা খুপরি ঘরের দরজার সামনে সিঁধ কেটে ভেতরে প্রবেশ করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটায়।এ প্রসঙ্গে শ্রীনগর থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান বলেন, এখনও কোনো ক্লু উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

সমকাল

Leave a Reply