শেষ ঘাটটিও অচল, মাওয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ

মাওয়া ঘাটে সচল থাকা সর্বশেষ ৩ নম্বর ফেরিঘাটটিও অচল হয়ে গেছে। ফলে মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে এ ঘাটটিও সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ কারণে যানবাহন পারাপার এখন পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। পদ্মায় ভাঙন অব্যাহত থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তবে জরুরি মেরামত শেষে মঙ্গলবার দুপুরের মধ্যে ৩ নম্বর ঘাটটি আবার সচল করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন বিআইডব্লিউটিসি’র কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সকাল ৯টায় ৩ নম্বর ঘাটের পাশে হঠাৎ করে ১২০ ফুট এলাকায় গর্ত দেখা দেয়। ফলে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটে ফেরি পারাপার বন্ধ রাখতে হয়েছে।

নদী ভাঙনের কারণে গত ৯ অক্টোবর দুই নম্বর ফেরিঘাটটি বন্ধ হয়ে যায়। এর পাঁচদিনের মাথায় রোববার সন্ধ্যায় আকস্মিকভাবে এক নম্বর ফেরিঘাটও পদ্মায় বিলীন হয়ে যায়। চালুর অপেক্ষায় থাকা চার নম্বর ফেরিঘাটেও ফাটল ধরে।

এ পরিস্থিতিতে কেবল ৩ নম্বর ঘাট দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে পারাপার চালু রাখার চেষ্টা চালায় বিআইডব্লিউটিসি। রোববার রাত থেকে যানবাহন চালকদের পাটুরিয়া হয়ে পদ্মা পারাপারের অনুরোধ জানানো হয়।

সোমবার একটিমাত্র ৩ নম্বর ফেরিঘাটটি চালু ছিল। ফলে সীমিত আকারে যানবাহন পারাপারের কারণে দুই পারে যানজটে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন।

মঙ্গলবার ওই ফেরিঘাটটিও বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে বিআইডব্লিউটিসি।

ঘাটটি সাময়িকভাবে বন্ধ রেখে জরুরি মেরামত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক সিরাজুল হক।

তিনি জানান, ‘‘দুপুর ১টার মধ্যে ৩ নম্বর ফেরিঘাট পুনরায় সচল করা সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করছি।’’

উল্লেখ্য, নদী ভাঙন ও তীব্র স্রোতের কারণে মাওয়ায় যানবাহন পারাপার হুমকির মুখে পড়ায় সোমবার নতুন তিনটি ঘাট চালুর নির্দেশ দিয়েছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। আগামী সাত দিনের মধ্যে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply