আড়মোড়া ভেঙে আসছেন শায়না

‘মেহেরজান’ খ্যাত অভিনেত্রী শায়না আমিন। আবারও মিডিয়ায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন এই মডেল-অভিনেত্রী। মডেলিংয়ের মাধ্যমে মিডিয়ায় অভিষেক হয়েছিল তার। এরপর টিভি নাটকে হাতেখড়ি।

মিডিয়ায় তার পরিচিতি ঘটে রুবাইয়াত হোসেনের `মেহেরজান` চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে। আগামী ১৪ ডিসেম্বর আসছে মাসুদ আখন্দের পরিচালনায় তার অভিনীত দ্বিতীয় ছবি ‘পিতা’। এ ছবিতে শায়নার বিপরীতে অভিনয় করেছেন মডেল-অভিনেতা কল্যাণ। ছবিটির গল্পের প্রেক্ষাপট গ্রামীণ জীবন।

ছবিটি নিয়ে শায়না বাংলানিউজকে বলেন, “এ ছবিতে পল্লবী নামের সদ্য বিবাহিতার চরিত্রে অভিনয় করেছি। যুদ্ধের সময় দেশের হিন্দু পরিবারগুলোর মধ্যে এক ধরণের ভয় কাজ করত। কারণ তারা সংখ্যালঘু। এমন কিছু পরিবারকে ঘিরে গড়ে ওঠেছে এ ছবির গল্প। বিশেষ করে আমার অভিনীত পল্লবী চরিত্রটি আমি সত্যিই খুব উপভোগ করেছি। কারণ প্রতিটি মুহূর্তে চরিত্রটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে। কাহিনী ধারাবাহিকভাবে পরিবর্তন হয়েছে আর আমিও নিজেকে প্রতিটি মুহূর্তে চরিত্রের প্রয়োজনে বদলে নিতে পেরেছি।”

শায়নার জন্ম সৌদি আরবে। বেড়ে ওঠা ঢাকার লালমাটিয়ায়। সপ্তম শ্রেণীতে পড়ার সময়ই নাচ শিখতে ভর্তি হন নৃত্যাঙ্গনে। ঝমঝম নূপুর বাজে পায়ে। স্বপ্নগুলোও রঙিন হয়ে ওঠে তার।

বরাবরই ভালো কাজ দিয়ে ধীরগতিতে চলা পছন্দ তার। মডেলিংয়ের ইচ্ছায় একবার নিজের ছবি জমা দেন বিভিন্ন বিজ্ঞাপন সংস্থায়। একদিন ডাক আসে বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাতা কিসলু হায়দারের কাছ থেকে। সানসিল্কের একটি বিজ্ঞাপনচিত্রের মডেল হিসেবে নেওয়া হয় তাকে। সেই থেকেই শুরু তারার ভুবনে তার পথচলা।

২০০৫ সালে দশম শ্রেণীতে ওঠার পরই টিভি পর্দায় অভিষেক। সময় গড়াল, সেই সঙ্গে শায়নার কাজের সংখ্যাও বাড়ল। অমিতাভ রেজা, আফসানা মিমির পরিচালনায় বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্রের মডেল হলেন তিনি।

বর্তমানে প্রচারিত বেশ কিছু বিজ্ঞাপনচিত্রে দেখা যাচ্ছে তার মুখ। এরমধ্যে প্যারাসুট, আইসকুল পাউডার, আপন জুয়েলার্স এবং চন্দন ফেসওয়াশ অন্যতম।


এরপর টিভি নাটকে অভিনয়ের পালা। বদরুল আনাম সৌদ পূরণ করলেন সে ইচ্ছা। সৌদের `ক্রস কানেকশন` নাটক দিয়েই অভিনয়ে অভিষেক। এরপর একে একে অভিনয় করেছেন আবু আল সায়ীদের `প্রেমের অঙ্ক`, `এলমি নো`, আরিফ খানের `মন উচাটন`সহ বেশ কিছু একক নাটকে।

এছাড়া মাছরাঙা টিভিতে নিয়মিত প্রচার হচ্ছে শায়না আমিন অভিনীত ও পল্লব বিশ্বাস পরিচালিত ধারাবাহিক নাটক ‘কলেজ’।

ক্যারিয়ারের টা‍র্নিং পয়েন্ট জ‍ানতে চাইলে শায়না বলেন, “প্রথম টার্নিং পয়েন্ট আমার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ‘মেহেরজান’। পরেরটি গত বছর প্রকাশ হয় সংগীতশিল্পী শহীদের একক অ্যালবাম `এক জীবন`। এতে কলকাতার গায়িকা শুভমিতার সঙ্গে গাওয়া `এক জীবন` শিরোনামের গানটির মিউজিক ভিডিওটি। আমি অনেক বেশি রেসপন্স পেয়েছি এবং আমাদের দেশের মিউজিক ভিডিও অনেক মডেল আগে করতে চাইত না। কিন্তু এটারও এখন পরিবর্তন এসেছে।”

এবারের ঈদেও শায়না অভিনীত একটি নাটক প্রচার হবে। বদরুল আনাম সৌদের লেখা ও জামিনের পরিচালনায় এ নাটকটির নাম ‘বেকার কারকে নিয়ে যে গল্প শুরু’। একটি গাড়িকে কেন্দ্র করে একটি পরিবারের সম্পর্ক তৈরি এবং তার ভাঙন দেখানো হয়। এ নাটকে শায়না ছাড়া অভিনয় করেছেন সুবর্ণা মুস্তাফা, জিতু আহসান, সাজু থাদেম, চিত্রলেখা গুহসহ আরো অনেকে।

এ নাটকটি নিয়ে শায়না বললেন, “চমৎকার গল্প। আমি অনেক বেছে কাজ করতে পছন্দ করি। এখানে একটি গাড়িকে কেন্দ্র করে আমার পরিবারের সাথে অন্য একটি পরিবারের পরিচয় ঘটে। এরপর ওই পরিবারের ছেলে আমাকে দেখে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয়। এরপর নানা মজার ঘটনা, বলতে চাই না। আশা করি, দর্শকদের ভালো লাগবে।”

গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর প্রেমিক আসাদুজ্জামান সেতুকে বিয়ে করার পর মিডিয়া থেকে প্রায় সরেই ছিলেন শায়না। সম্প্রতি তিনি আবারও তার কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। তারা দু’জনই এখন পড়াশোনা করছেন। সেতু একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ শেষ বর্ষে এবং শায়না লালমাটিয়া কলেজে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ২য় বর্ষে পড়ছেন।


বর্তমানে আবার নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করেছেন শায়না। সম্প্রতি নার্গিস আকতারের পরিচালনায় ‘পুত্র এখন পয়সাওয়ালা` ছবির শুটিং শেষ করেছেন। এ বছরই ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে। এ ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন ইমন।

মিডিয়ায় আবারও ব্যস্ত হওয়া প্রসঙ্গে শায়না জানান, পারিবারিক ব্যস্ততার কারণেই তিনি দীর্ঘদিন অভিনয়ের বাইরে ছিলেন। পারিবারিক ঝামেলা অনেকটাই কেটে গেছে। তাই আবারো কাজ শুরু করেছেন। একবারেই বেশি বেশি কাজ না করে তিনি ভালো গল্পের নাটক ও চলচ্চিত্রে কাজ করতে চান।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply