ভাঙন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটে এলাকাবাসীর

মাওয়ার পদ্মা নদী তীরবর্তি মানুষের মনের ভেতর এখন ভাঙন আতঙ্ক বিরাজ করছে। নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন এসব এলাকার লোকজন। দিনে যেমন তেমন, রাত হলে খোলা আকাশের নীচে এদের রাত্রি যাপন করতে হচ্ছে। রবিবার রাতে আকষ্মিক পদ্মার ভাঙনে সর্বনাশী পদ্মার থাবায় মাওয়া ১ নং ফেরি ঘাট এলাকা তাদের চোখের সামনে বিলীন হবার পর এ এলাকার মানুষের চোখে মুখে এখন আনন্দ আর হাসির ছোয়া দেখা যায়না। তাদের দিকে তাকালেই দেখা যায় অজানা উৎকণ্ঠা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে এসব পদ্মা পারের মানুষের মাঝে। কখন জেনো নিজেদের বাপ-দাদার বাড়ির সাথে রাক্ষুসি পদ্মা গিলে কায় তাদের। মঙ্গলবার রাতে মাওয়া সংলগ্ন কান্দিপাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, মৃত মোঃ হাবিবুর রহমানের ছেলে জিলন মিয়া বাড়ির বাইরে হাটা হাটি করছে। তার বৃদ্ধ মা রাত জেগে বসে আছে বাড়ির ওঠনের মধ্যে। ওই সময় কথা হয় জিলনের সাথে। তিনি বলেন, ভাইরে রাতে ঘুম আহে না। চোখ বোজলে নদীর শো শো আওয়াজ হুনতে পাই। মা, ভাই-বোন, স্ত্রী নিয়ে বড়ই কষ্টে আছি। কহন জেনো নদীতে ডাক দিয়া বহে। তাই রাত জাইগা প্রানডা বাচানো চেষ্টা করতাছি। এ রকম দৃশ্য এখন লৌহজংয়ের কান্দিপাড়া, যশলদিয়া, উত্তর যশলদিয়া, মাওয়া, দক্ষিণ মেদিন মন্ডলসহ পদ্মা পারের দুশতাধিক পরিবারের মধ্যে দেখা দিয়েছে।

বুধবার সকালে মাওয়া ৪ নং ঘাট সংলগ্ন দক্ষিণ মেদিনী মন্ডল গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ি-ঘর আন্যত্র সড়িয়ে নিতে ব্যস্ত সবাই। মাওয়া ঘাটের দোকানী আলী হোসেন (৫২), মোঃ শাহনূর শেখ (৩৩), সাগর হোসেন সুজন(৩৬), ঠান্ডু মিয়া (৩৫), হাসিনা বেগম, কাজল বেগম পদ্মার ভাঙনে তাদের ঘাটের দোকান হারিয়ে আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে নিজেদের মধ্যে সশাপরামর্শ করছিলেন কিভাবে নিজেরে শেষ সম্বল বাপ দাদার বাড়িটি রক্ষা করা যায়। ইতোমধ্যে পদ্মা তীর সংলগ্ন এদের বাড়ির উঠোনে ভাঙনের ফাটল দেখা দিয়েছে। নিজেদের রক্ষায় ঘর-দুয়ার অন্যত্র সড়িয়ে নিয়েছেন। এখন মন খারপ করে সরিয়ে নেয়া ঘরের জায়গাটিতে বসে এরা শুধুই ভাবেন এ বাড়ির সাথে তাদের স্মৃতির কথা। সকালে এমনই ভাববার সময় জাতীয় সংসদের হুইপ ও স্থানীয় এমপি সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি তাদের মধ্যে পৌছে শান্তনা দেন, সরকারের থেকে করনীয় সকল প্রকার সাহায্য সহযোগিতা ও টিন প্রদানের কথা বললে ক্ষনিকের জন্য হলেও এদের মুখে হাটি ফুটেছিল। কিন্তু হুইপ চলে যাবার পর আবার তাদের মনটা চলে যায় সেই পৈত্রিক ভিটায় নিজেদের স্মৃতি বিজরিত নানান ঘটনার দিকে। মো. শাহনূর বলেন, মাওয়া ঘাটে আমাদের সকলেই দোকান ছিল। সর্বনাশা পদ্মা তা কাইড়া নিছে। এখন নিজেদের বাড়িডারেও কাইড়া নিতে চাইছে। পাশের একটি জমিতে এহন আমরা ঘরের চালের নীচে বসবাস করছি। সরকারী সাহায্য সহযোগিতা পেলে আমার আবার উট্টা দাড়াইতে পারতাম। হালিম বেগমের স্বামী রাজ্জাক খানের ঘাটের দোকান খানা নদীতে চলে যাওয়ায় বাড়ির সরিয়ে নেয়া ঘরের জায়গায় বসে ৬টি ছেলে মেয়ে ভবিষ্যত নিয়ে এখন সারক্ষন শুধু চিন্তা মগ্ন থাকেন। কি খাবেন, ছেলে মেয়েদের কি খেতে দেবেন, কোথায় গিয়ে বসবাস শুরু করবেন- এমনি সব চিন্তা করতে করতে এখন তাদের দিন কাটে। জশলদিয়া গ্রামের আবুল হাসেমের কন্যা আলেয়া বেগম (৩৫) আক্ষেপ করে বললেন, প্রতি বছর ভাঙ্গন অয়, আপনারা আহেন, লেক্কা নেন। লেক্কা কি আর অইব। আমাগো ১৭ কাঠা জায়গা আছিল নদীর ভাঙনে এখন কিছুই নাই।

আলেয়ার মত স্থানীয় বাসিন্দাদের আক্ষেপ না তাকলেও অভিযোগ আছে অনেক। তাদের দাবি পদ্মায় অপরিকল্পিতভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু কাটার ফলে নদীর গতি পথ পরিবর্তন হয়ে মাওয়া এলাকায় এখন ভাঙন শুরু হয়েছে। এসব ড্রেজিং যদি না থামানো হয়। নিখোঁজ ছয় ব্যক্তির মতো আরো অনেকে প্রান দিতে হতে পারে। জিলনদের মত শত শত পরিবারকেও ওইভাবে রাত জেগে পাহারা দিতে হতে পারে। আলী হোসেন, মোঃ শাহনূর শেখ, সাগর হোসেন সুজন(৩৬), ঠান্ডু মিয়া (৩৫), হাসিনা বেগমদের মত বাড়ির আঙ্গিনায় বসে নিজেদের বাড়ির স্মৃতি খুঁজতে হতে পারে। তাই এখনই এসব নদী ভাঙনে সরকারের জরুরী পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন বলে এলাকাবাসী মনে করেন।

এদিকে বিএনপি নেতা সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা বিকালে নিখোঁজ জাতীয়বাদী শ্রমিক দলের লৌহজং উপজেলা শাখার সভাপতি আখেরুজ্জামান বাইরনের বাড়িতে যান। তিনি তার পরিবারকে শান্তনা দেন।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply