টোলের নামে মাওয়া ঘাটে গরুর ট্রলারে ব্যাপক চাঁদাবাজি

যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার মাওয়া ঘুরে চাঁদাবাজি বন্ধের ব্যাপারে কঠোর নির্দেশ দিয়ে যাবার একদিন পরেই মাওয়াঘাটে গরুর ট্রলারে ব্যাপক চাঁদাবাজি করা হচ্ছে। জেলা পরিষদের ইজারাদারের লোকজন টোল বা বিটের নামে এ চাঁদাবাজিতে জড়িয়ে পড়েছে। পুলিশের চোখের সামনে এসব ঘটলেও নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে পুলিশ। পুলিশের সাথে সমঝোতা হওয়ায় পুলিশ দেখেও না দেখার ভান করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া ঘাটে চাঁদাবাজির ভাগ পাচ্ছে স্থানীয় এক সাংবাদিকসহ জেলার কিছু সাংবাদিক। স্থানীয় ওই সাংবাদিক চাঁদার ভাগ করার দায়িত্বে রয়েছেন বলে জানা গেছে।

রবিবার ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, টোল বা বিটের নাম করে জেলা পরিষদের ইজারাদার হামিদুল ইসলামের লোক দানেশ ও মোশারফসহ ১৮-২০ জন লোক গরুর ট্রলার থেকে চাঁদা আদায় করছে। প্রতিটি গরু থেকে ১ শ’ টাকা করে চাঁদা নিচ্ছে তারা। একটি সূত্র জানায়, পুলিশের সামনেই এসব চাঁদা আদায় করা হলেও পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। পুলিশের সাথে শনিবার রাতে চাঁদার ভাগ নিয়ে একটি দফারফা হওয়ায় পুলিশ নীরব দর্শকের ভ’মিকা পালন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


গরুর ব্যাপারী বাবু ব্যাপারী জানান, চন্দ্রপাড়া থেকে ১৭টি গরু নিয়ে ঢাকা যার উদ্দেশ্যে তিনি ট্রলারে করে মাওয়া ঘাটে এসে পৌঁছেছেন। এখানে ১৭টি গরুর জন্য তাকে ১৭ শ’ টাকা চাঁদা দিতে হয়েছে। একই ধরনের কথা বললেন, ইলিয়াস আলী নামে চন্দ্রপাড়ার আরেক গরু ব্যবসায়ী। ১৫টি গরুর জন্য তাকে দিতে হয়েছে ১৫ শ’ টাকা।

স্থানীয় এক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শনিবার যোগামন্ত্রী এখানে এলে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন খানও এসেছিলেন মাওয়ায়। গরুর ট্রলারে চাঁদাবাজির বিষয়টি তার নজরে আনলেও এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোন কার্যকর ব্যবসা নেয়া হয়নি। এতে জনমনে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই খন্দকার খালিদ হাসান জানান, সকালে আমার পুলিশ সদস্যদের দিয়ে সব ধরনের চাঁদা বন্ধ করে দিয়েছি। যদি এ ধরনের কিছু হয়ে থাকে তবে আমি তা দেখছি।


জেলা পরিষদের ঘাট ইজারাদার হামিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, চাঁদার বিষয়টি সঠিক নয়। গত কয়েক দিন পূর্বে টেকের হাটের গরু ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপ করে ঢাকাগামী প্রতিটি গরুর ট্রাক থেকে ১৫ শ’ টাকা করে বিট আদায়ের সিদ্ধাান্ত নেয়া হয়েছে। কারণ ঘাটে গরু ওঠানামার জন্য বিট তৈরি, বাঁশ দিয়ে গরু রাখার জায়গা তৈরি, লেবার এবং লাইট ও ২টি ট্রাক শ্রমিক সংগঠনের চাঁদাসহ ব্যয় এ টাকা থেকেই নির্বাহ করতে হচ্ছে। তবে গরুপ্রতি সরকারী টোল মাত্র ১৫ টাকা বলে তিনি স্বীকার করেন।

জনকন্ঠ

Leave a Reply