বি,এ,ডি,সির কর্মকতা, অসাধু ব্যাবসায়ী কারণে চলতি মৌসুমে আলু বীজের দাম বৃদ্ধি

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বি.এ.ডি.সি উন্নতমানের আলুর বীজ উৎপাদন করে বাজারজাত শুরু করে। এই প্রতিষ্ঠানটি বিদেশ থেকে উন্নত যাতের আলুবীজ এনে বিজ্ঞান সম্মত ভাবে চাষ করে বীজ উৎপাদন করে ডিলারের মাধ্যমে চাষীদের মধ্যে বিক্রির ব্যবস্থা করে থাকে। প্রথম দিকে এ সংস্থা আলুবীজ উন্নত মানের প্রমাণিত হওয়ায় বি.এ.ডি.সির আলুবীজের প্রতি চাষীদের আস্থা বেড়ে যায়। কিন্তু বিগত কয়েক বছর যাবৎ বি.এ.ডি.সির একশ্রেণীর উদাসীন কর্মকর্তার অবহেলারে কারণে এ সংস্থার আলুবীজের মান দিনের পর দিন খারাপ হয়ে যাচ্ছে এমনকি বিগত দিনে চাষীদের ক্ষতিপূরণও দিতে হয়েছে। এছাড়াও অসাধু কর্মকর্তাদের যোগশাজসে এক শ্রেণীর অসাধু আলুবীজ ব্যবসায়ী বি.এ.ডি.সি সীল, মনোগ্রাম ও লেবেল আটা বসস্তায় নিম্ন মানের আলুবীজ ভরে বাজারযাৎ করায় চাষীরা প্রতারিত ও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

বি,এ,ডি,সির কর্মকর্তাদের উদাসীনতা ও চলতি রবি মৌসুমে আলু বীজের দাম বৃদ্ধি পাওয়া সহ অসাধু ব্যাবসায়ীদের কারণে মুন্সিগঞ্জের আলু চাষীরা হতাশায় ভুগছেন। যে কারনে এবারও এলাকায় আলুচাষ কমে যেতে পারে এবং এর প্রভাব জেলার সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়তে পারে। এছাড়া আলু আবাদের আগ্রহ হারিয়ে ফেলতে পারে এ অঞ্চলের কৃষকেরা। দেশের সিংহভাগ আলু উৎপাদিত হয় এই মুন্সিগঞ্জে। আলুই হচ্ছে এই এলাকার প্রধান অর্থকরী ফসল, যে কারনে আলু মুন্সিগঞ্জের স্বর্ণপিন্ড হিসেবেও পরিচিতি লাভ করেছে দীর্ঘ দিন ধরে। কয়েক বছরে এ অঞ্চলের আলু আবাদে দরিদ্র কৃষকরা লোকসান গুনেছে, এছাড়া বাজারে কিছু অসাধু ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে আলুবীজ কিনে প্রতারিত হয়ে মেরুদন্ড ভেঙ্গে বসে আছে। তাই আগামী চলতি রবি মৌসুমে আলু আবাদকে কেন্দ্র করে মহাটেনশন ভোগ করছে এ অঞ্চলের কৃষকরা।

বি.এ.ডি.সি বীজ আলুর চড়া দাম, হিমাগারের অত্যাধিক ভারা বৃদ্ধি ও উপরন্তু হিমাগার কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে সংরক্ষিত আলু ও বীজ আলু পচে নষ্ট হয়ে যাওয়া সহ আলুর দাম অত্যাধিক কমে যাওয়ায় গত বছর ও এর আগে কয়েকবার বিশেষ করে গত ২০০৮ ও ২০০৯ অর্থবছরে মুন্সিগঞ্জে বিভিন্ন হিামাগার গুলিতে ছয়শত টনের অধিক আলু ও বীজ আলু পচে গলে নষ্ট হয়ে যায়। ফলে অনেক চাষী ও আলু সংরক্ষক সর্বস্ব হারিয়ে পথে বসে।

বিগত ২০০৯/২০১০/২০১১ অর্থবছরে মুন্সিগঞ্জের আলুচাষীরা লোকসান গুনতে গুনতে দেউলিয়া হয়ে যায়। এ বছর মার্চ, এপ্রিলে আলুর বাজার একটু ভাল থাকলেও গত আগষ্ট মাস থেকে আবার বাজার নিম্নমুখী। মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন হিমাগার গুলিতে প্রতি ৮০কেজি বস্তা ১২৫০টাকা থেকে ১৩০০টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। ফলে জমির ইজারা মূল্য, জমি তৈরী, বীজ, সার কমা, বীজ রোপন ও আলু সংগ্রহ এবং হিমাগার ভাড়া, পরিবহন খরচ সহ তাদের খরচ উঠছে না। গত মার্চ, এপ্রিল, মে ও জুন মাসে আলুর দাম ছিল ৮০ কেজির প্রতি বস্তা ১৭০০ থেকে ১৮০০ টাকা। তখন চাষীরা আশায় বুক বেধে ছিল যে এবার তারা কিছুটা হলেও লাভের মুখ দেখবে।


গত ২০১০/২০১১ অর্থবছরে বি.এ.ডি.সি’র কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের ভুলসিদ্ধান্তের কারনে শেষ পর্যন্ত বীজ আলুর ৩২০ টাকা মন দরে বিক্রি করতে হয় । ফলে এতে সংস্থাটি মোট অংকের টাকা লোকাসানে পরে। যা দেশের জনসাধানের টাকা। বর্তমান অর্থবছরে যদি বীজ আলুর দাম সহনশীল না হয় তবে এবারও গত অর্থবছরের মত অবস্থা হতে পারে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারনা। যেহেতু বি.এ.ডি.সি একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান, তাই কৃষকের স্বার্থ বিবেচনায় রেখে এবছর বি.এ.ডি.সির বীজ আলুর দাম নির্ধারণ করা উচিৎ বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারনা। বুধবার সরেজমিনে প্রতিবেদন তৈরী কালে এলাকার হত দারিদ্র বিভিন্ন্ কৃষকদের সাথে আলাপ হয়। এ বিষয়ে সদর উপজেলার হত দরিদ্র কৃষক ওয়াজল শিকদার সংবাদকে বলেন ‘‘গত দুবছর ভাড়াকৃত জমিতে আবাদ করে লোকসান গুনে মাথায় হাত পরেছে। গোয়াল ঘরের একমাত্র পালিত ২টি গরু বিক্রি করে দিয়ে দেনা শুধ করতে পারি নাই, এবং সুদে-আসলে দ্বিগুণ হয়ে আছে। তাই আগামী রবি মৌসুমে আশু আবাদের বিষয়টি মাথায় রেখে মহা টেনশনে পরেছি’’। একই কথা বলেছেন টঙ্গীবাড়ি উপজেলা আউটশাহী ইউনিয়নের মুজিবুর শিকদার বলেন, ‘‘গতবার বাজার থেকে বি.এ.ডি.সি সিল লাগানো বীজ কিনে প্রতানার শিকার হয়েছি। গাছে আলুই গজায়নি। এবং সার, কীটনাশক, শ্রম সবই জলে গেছে। এখন আর আলু আবাদ করবো না। প্রয়োজনে রিক্সা চালিয়ে সংসার চালাবো।


এ ব্যাপারে বি.এ.ডি.সির ডিলার সমিতির সভাপতি, ডাঃ মোবারক আলী দেওয়ান ও আঞ্চলিক কমিটির সাধারন সম্পাদক মোঃ চাঁন মিয়া বলেন, এ বছর বীজের মূল্য কেজি প্রতি ২০/২২ টাকা ধরে বিক্রি করা হলে বি.এ.ডি.সির বীজের প্রতি কৃষকের আগ্রহ বাড়বে। তারা বলেন, মুন্সিগঞ্জ বাজারে গত কয়েক বছর যাবত কিছু অসাধু ব্যাবসায়ী বাজারের নিম্ন মানের বীজের বস্তায় বি.এ.ডি.সির সিল মেরে বিক্রি করে সেই বীজ নিয়ে কৃষক প্রতারিত হওয়ায় কৃষক বি.এ.ডি.সির প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। এবার চলতি মৌসুমে নকল বীজের বিষয়ে একটি প্রশাসনিক মনিটরিং সেল গঠন করার দাবী জানান। এবং বি.এ.ডি.সির এই সমস্যা গুলোর বিষয়ে কৃষি মন্ত্রীর জরুরী হস্তক্ষেপ ও নজরদারী কামনা করছেন।

এ বিষয়ে বি.এ.ডি.সির সিনিয়র সহকারী পরিচালক এ.এস.এম খায়রুল হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বীজ আলুর দাম এবছর প্রতি কেজি ২৫ ও ২৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছর এর দাম ছিল ২৩ ও ২৫ টাকা কেজি প্রতি । তিনি এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন বর্তমান নির্ধারিত মূল্য থেকে কমানোর কোন সম্ভবনা নেই। তিনি আরও বলেন আলু বীজ নকল ও ভেজাল রোধে মনিটরিং সেলের দায়িত্ব হচ্ছে স্থানীয় কৃষি বিভাগের। তার পরও আমরা বিশেষ ব্যবস্থায় নজর দিব।

এ বিষয়ে জেলা প্রসাশক মোঃ আজিজুল আলম সংবাদ কে বলেন, গত ৯ই অক্টোবর জেলা সার-বীজ মনিটরিং সভায় বিএডিসির বীজ আলুর মূল্য কমানেরা বিষয়ে সংশি­ষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট অনুরোধ করা হয়েছে।

টিএনবি

Leave a Reply