জীবন যাত্রা – প্রথম পর্ব

(এক হতভাগ্য মুক্তিযোদ্ধার জীবন থেকে নেওয়া)
ব.ম শামীমঃ শরৎতের রাত। রুপালী চাদেঁর আলো পানির মধ্যে পড়তেই পানিগুলো ঝকঝক করে উঠে। দক্ষিনা হাওয়ার শিহরণে উন্মুক্ত বিলটির পানি নৌকার তলে তলতল শব্দ তুলে। বৈঠা হাতে মোসলেম মিয়া নৌকায় চাপ দেয় আর কন্ঠে মায়াবী শুর তুলে গান গায়, মাঝিরে তোর বৈঠা নেড়ে আমি আর বাইতে পারলাম না। সারা জীবন ওজান বাইলাম ভাটির নাগাল পাইলাম না। এ গান মোসলেম মিয়া আজ থেকে ৫০ বছর আগে হতেই গেয়ে আসছে। কিন্তু তারপর থেমে নেই তার নৌকা বাওয়া। সারা জীবন মোসলেম মিয়া শুধু উজানই বাইছেন আজো বেয়ে চলেছেন থেমে নেই তার জীবন যাত্রা। নৌকা চালান আর মাঝে মাঝে গল্প জুড়েন স্বাধিনতার গল্প,মুক্তিযোদ্ধের গল্প, ৭১ এর ঐতিহাসিক যুদ্ধের দিনগুলোর গল্প করেন তিনি।

সে সময় তার নৌকায় চরে অনেক মুক্তিযোদ্ধা বিভিন্ন অপোরেশনে অংশ নিয়েছিলো। জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধাদের পারাপার করছেন তিনি। সে সময়ের স্মৃতি চারন করতে গিয়ে আবেগে অপ্লুত হয়ে পড়েন প্রায়। মুক্তিযোদ্ধের কথা বলতে বলতে তার দুটি চোখও চাঁদের আলোর মতো ঝলঝল করে উঠে। এলকার লোকজনের মুখে প্রায় শুনা যায় মুক্তিযোদ্ধের সময় মোসলেম মিয়ার বিরত্বের কথা। এই অঞ্চলের লোকজনের এই লোকটিকে নিয়ে সব সময় আফসোস করে বলেন সুখ হইলো না মোসলেম মিয়ার। ৩ টা কন্যা সন্তানের পর একটা মাত্র পুত্র সন্তান জন্ম নেয় তার। ছেলেটি জন্মের পর নিজের পুরানো ছই আলা নৌকাটি বিক্রি করে ধুমধাম আয়োজনে এলাকার লোককে নিমন্ত্রন করে খাওয়ান তিনি। তার কর্মকান্ড দেখে এলাকার লোকজন সকলে বলেন কি মোসলেম মিয়া নৌকা বেইঁচা দিলা এখোন বাইবা কি ?

সে দেখা যাওবো আমার পোয়া বাইচাঁ থাকলে এমোনো দশ নৌকা কিনোন যাইবো।

ছই আলা নৌকাটি বেইচা দিলেও মোসলেম মিয়ার নৌকা চালানো থেমে যায়নি। এলাকার লোকের সহয়তায় নতুন নৌকা হইছে তার। তবে নতুন নৌকাটিতে ছই নেই। মোসলেম মিয়া বলে ভাইজান এহোন আর ছই আলা নৌকা দিয়ে নতুন বৌ বাপের বাড়ি যায়না তাই ছই আলা নৌকার চাহিদাও কম। এ ছাড়া আইজকাইলের মানুষ খোলা মেলা নৌকা ছাড়া চলতে চায়না তাই নতুন নৌকায় ছই লাগাই নাই।

মোসলেম মিয়া নৌকায় লোকজনদের চডায় আর তার বিরত্বের কথা শুনায়। চলতে চলতে যাতায়ত পথের বিভিন্ন স্থানে চিহ্ন দেখিয়ে স্বাধিনতা যুদ্ধের বিরত্বের গল্প শুনায়। ঐই যে ভাই ঐ স্থানটিতে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে যাওয়ার সময় পাক বাহিনী জিগাইছিলো আমারে, মুক্তি কিদার হায়? আমি কইছি জানিনা। হেই সময় আমার নৌকায় দশজন মুক্তিবাহিনী ছিলো। কিছ্ক্ষুন পর নৌকা হতে মুক্তিবাহিনীরা আমায় শিক্ষায় দিলো বলো ওদার ঐযে ঐ দিকটা দেখতাছেন ঐই হানে বলতে বললো । ঐই হানে যাওয়ার পর ঐযে গাছটা পানিতে তলাইয়া আছে গাছটার উপরে দশজন মুক্তিযোদ্ধা আগেই বইয়া ছিলো। ও দিক যাওয়ার পর যহোন ঐই মুক্তিযোদ্ধারা গুলি শুরু করে ঐ যে ঐই খালটি দিয়া পাকিস্থানীরা পালাইয়া যাইতে ছিলো। তহোন আমার নৌকা থাইকা মুক্তিবাহিনীরা গুলি শুরু করে। পাইক্কারা আর দেহে রক্ষা নাই লাফ দিয়া পানিতে পইরা ভাইগা যাইতে লয়। আর হেই সময় আমার নৌকা হইতে মুক্তিবাহিনী তাড়াতাড়ি নামতে গিয়ে আমার নৌকা পানিতে তলায় যায়। তহোন আর কিয়ের নৌকার খবর কে রাহে আমি তাড়াতাড়ি গিয়ে পাইক্কাগো ধইরা পানির মধ্যে চুপ শুরু করি। কিন্ত এ দেশের রাজাকারগুলি ওরা সাতারে খুব পটু থাকায় আমরা আসার আগেই ওরা বাই¹া যায়। হুনছি হেদিন মইত্তা, আইত্তা, সুলতান, সোবহান সহ আরো দশ বারো জন রাজাকার ওগো লগে ছিলো।

এই মইত্তা, সোবহান, সুলতানগো কারনেইতো এ অঞ্চলে শত শত নারীর ইজ্জত গেলো। স্বাধিনতার পর তারা এলাকা ছাইড়া ঢাকা গেলো হেয়েনে গিয়ে মাইনষের জাগা ফুটপাত দহল কইরা লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক আইছে।

অহোন মাঝে মাঝে দেশে আসে আসলে হেগো নৌকায় ওডানের লই¹া অনেকে পাগল আইয়া যায়।

হেগো দেখলে আমার শরীরের রক্ত গরম আইয়া আহে। একদিন আমার নৌকায় অন্যগো লগে রাইতে আমারে না কইয়া মইত্তা উঠছিলো। আমারে কয় মোসলেম মিয়া তোমার হেই ছই আলা নৌকা কই দেশের লই¹াতো অনেক কিছু করলা কিন্তু লাফটা আইলো কি? হুনলাম তুমি নাহি মুক্তিযোদ্ধার কার্ডটা পাওনাই।

হেই তালিকায় তো তোমার নাম নাই, কিন্তু যুদ্ধের সময় তুমি না থাউক। আমি কইলাম কি থামলেন কেন কন ? ঐযে যাগাটা দেখছেন মনে পরে ঔইহানে যে আপনারে চুবাইছিলাম আইজ আবার চুপ খাইতে মন চায় আপনার।

মোসলেম এহোনো দেহি তোমার শরীরের তেজ কমে নাই। বৃদ্ধ বয়সেও নৌকা বাইতাছো শরীর ভাইঙ্গা তিন বেহা দিয়া গেছে কিন্তু তেজ দেহি একটুও কমে নাই।

চলবে

Leave a Reply