মহুয়া – শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

মহুয়ার যে একজন প্রেমিক আছে সেটা আমি বিয়ের পর পরই টের পাই। ঝামেলা ঝঞ্ঝাট, জটিলতা এবং সাসপেন্স এসব আমি একেবারেই মোকাবিলা করতে পারি না। সবসময়েই যে কোনও সঙ্কটে আমার লেজে-গোবরে অবস্থা হয়। মহুয়া ফুলশয্যার রাতেই আমাকে ঠারেঠোরে প্রত্যাখ্যানই করেছিল। সেটা আমি লজ্জা বলে ভুল করেছিলাম। আর আমারও তো কিছু লজ্জা এবং সঙ্কোচ ছিলই। ফলে আমি একরকম তার গাত্র স্পর্শ করতে বিরত ছিলাম। একটু আধটু কথা হয়েছিল মাত্র। আমাদের সম্বন্ধ করে বিয়ে, কাজেই পূর্ব পরিচয় ছিল না। ফুলশয্যায় সেটাই বরং হল, আলাপ পরিচয় আর কি। মনে হল মহুয়া বেশ বুদ্ধিমতী এবং তার আইকিউ আমার চেয়ে বেশিই। আমি যে আমেদাবাদে থাকি এটা মহুয়ার বেশ পছন্দই হল। তবে সে জানিয়ে দিল, পিএইচডি করছে বলে সে এখন আমেদাবাদ যাওয়ার কথা ভাবছে না। অর্থাৎ যাবে না। আমি তখন বললাম, আমার কোম্পানি আমাকে কলকাতায় বদলি করতে চাইছে। এতে মহুয়া খুব একটা খুশি হল না। বলল, কলকাতা আর এমন কি ভালো জায়গা! আমেদাবাদই তো ভালো।
এসব কথা থেকে আমি কিন্তু অনুমান করতে পারিনি। আমার তত অনুমানশক্তি নেইও। যাই হোক রাত দুটো নাগাদ নতুন বউয়ের সঙ্গে এক খাটেই আমি নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে পড়ি। এবং ঘুমের আগে শুনতে পাই_ খুব আবছাভাবে অবশ্য_ মহুয়া বাথরুমে ঢুকে মোবাইলে কার সঙ্গে যেন কথা বলছে। চাপা গলা। না, আমার সন্দেহ হয়নি। ঘুমেরও বিঘ্ন ঘটেনি। বিয়ের দু’দিন পরেই মহুয়া বাপের বাড়ি চলে গেল, তার পিএইচডি’র ক্লাস এবং লাইব্রেরি ওয়ার্ক করার জন্য। আমারও সামান্য ছুটি, চারদিন পরই আমেদাবাদে ফিরে যেতে হবে। এবং এইভাবেই বিচ্ছেদের সূচনা হয়ে রইল।
মাস চারেক বাদে কোম্পানি আমাকে প্রোমোশন দিয়ে তাদের সিঙ্গুরের কারখানায় বদলি করে দেয়।
ফিরে আসার আগে অবশ্য মহুয়ার সঙ্গে আমার রোজই আমেদাবাদ থেকে ফোনে কথাবার্তা হত। খুব দীর্ঘক্ষণ ধরে নয় অবশ্য। কারণ, কথা দীর্ঘায়িত হয় প্রেম ভালোবাসা থাকলে। আমার দিক থেকে যথেষ্ট আবেগ থাকলেও মহুয়ার দিক থেকে ছিল না। বেশ ভদ্রগলায় কথা বলত সে, কুশল প্রশ্ন করত, শরীরের যত্ন নিতে বলত, মন দিয়ে চাকরি করতে বলত, এমনকি শরীর খারাপ হলে উদ্বেগও প্রকাশ করত। কিন্তু কোনও ঝড় উঠত না, তরঙ্গ দেখা দিতো না। একটু যেন উষ্ণতার অভাব টের পেতাম। মহিলাবিষয়ক অভিজ্ঞতার অভাবে সেটাই স্বাভাবিক বলে ভেবে নিয়েছিলাম।
মহুয়া জানিয়েছিল আমেদাবাদ থেকে ফেরার দিন সে এয়ারপোর্টে রিসিভ করতে আসবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত একটা জরুরি ক্লাসের জন্য সে আসতে পারেনি। এবং আমি কিছু মনেও করিনি। কলকাতায় ফিরে পরদিনই আমি সিঙ্গুরে জয়েন করি এবং ব্যস্ত হয়ে পড়ি।
আমার বিচক্ষণ এবং পয়সাওয়ালা বাবা অনুমান করেছিলেন যে, বিয়ের পর ছেলে এবং বউমা আলাদা থাকলেই সংসারে এবং সম্পর্কে শান্তি থাকবে। সেই কারণে তিনি আমার জন্য বেহালায় একটি ফ্ল্যাট কিনে রেখেছিলেন। সাজানো গোছানো প্রস্তুত ফ্ল্যাট, ফার্নিচার, বিছানাপত্র, টিভি, ফ্রিজ_ এমনকি বাথরুমে গীজার অবধি সব কিছুই। কিন্তু সেই ফ্ল্যাটে গিয়ে ওঠার কোনও মানেই হল না। মহুয়া পরদিন এসে দেখা করল বটে, কিন্তু বলল যে, বাপের বাড়ি থেকেই তার কাজকর্মে সুবিধে বেশি হচ্ছে। দিন দশ বারো সময় চাইল, তারপর আসবে।
তার এই আড় হয়ে আলগা থাকাটা আমার খুব একটা পছন্দ হল না। আমি বললাম, তুমি তো ভালো করে আমার সঙ্গে মিশলেই না এখন অবধি! কী করে সম্পর্কটা তৈরি হবে বলো তো!
ও বলল, এ কি আর দু’দিনের সম্পর্ক? আর বিরহ তো ভালোই, তাতে আগ্রহ থাকে। কেউ কারও কাছে পুরনো হয় না, ভালবাসা বাড়ে।
এসব বাংলা কথা আমি বুঝতে পারলাম। মন্দও লাগল না। তবে ফ্ল্যাটে কয়েকদিন আমাকে একাই বসবাস করতে হল। অফিসের ক্যান্টিনে দুপুরে খেয়ে নিতাম। রাতে হোম ডেলিভারি। দিন দশেক বাদে নিউ আলিপুরে যৌথ পরিবারে ফিরে যেতে হল। এবং সেখানকার পরিবেশে একটা থমথমে ভাবের বিরাজমানতা টের পেতে বেশি দেরি হল না।
আমার বোন ঋতুই একদিন আমাকে আড়ালে ডেকে বলল, বউদি সম্পর্কে একটু খোঁজখবর রাখিস।
কেন রে?
কিছু আজেবাজে কথা কানে আসছে।
কি কথা?
সেটা বলতে পারব না। গুজবও হতে পারে। বউদির ক্লাসমেট দময়ন্তী আমার এক বন্ধুর খুব চেনা। সে-ই বলেছে। বউদি আদিত্য নামে কোনও একজনের সঙ্গে ইনভলভ্ড।
রাগের চেয়ে আমার বেশি হল ভয়। আমি জটিলতা একদম সহ্য করতে পারি না। এবং ঘাবড়ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে যাই। ঋতুই বুদ্ধি দিল, তুই যে নিজে কিছু পারবি না সেটা আমি জানি। আমার এক ক্লাসমেটের দাদার একটা ডিটেকটিভ এজেন্সি আছে। তারা এসব খোঁজখবর করে পাকা রিপোর্ট দেয়। ফটো বা ভিডিও করেও দেয় শুনেছি।
অগত্যা সেটাই করতে হল। এক বা দেড় মাসের মাথায় তারা সত্যিই রিপোর্ট দিল। ফটো এবং ভিডিও সমেত। আদিত্য সুপুরুষ এবং অতীব স্মার্ট। মহুয়ার সঙ্গে তাকে দুটি রিসর্টে, পুরীতে এবং কলকাতার বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও নাইট ক্লাবে দেখা গেল। ডিস্কোতেও। রিপোর্টে পরিষ্কার জানানো হয়েছে এদের ঘনিষ্ঠতা খুবই গভীর। ফিজিক্যাল রিলেশনও আছে। তারা একাধিকবার রাত্রিবাস করেছে। মাত্র এক বা দেড় মাসেই যদি এতটা হয়ে থাকে তবে তো গভীর গাড্ডা।
মুখোমুখি সংঘর্ষ বা ঝগড়া বিবাদ আমার পক্ষে সম্ভব নয়। আমি পেরেও উঠি না। কিন্তু তাই বলে আমি উন্মার্গগামীও নই। আমি ভিডিও এবং ছবির কপি করে সিডি এবং রিপোর্টের জেরক্স কপি মহুয়াকে ক্যুরিয়ারে পাঠিয়ে দিলাম। সঙ্গে একটা ছোট্ট নোট_ তোমার এ ব্যাপারে কিছু বলার আছে কি? যদি না থাকে তবে আপসে ডিভোর্স নিয়ে নাও।
তিনদিন বাদে রাত্রে ফোন করল মহুয়া। প্রথম প্রশ্নটাই ছিল, ব্যাপারটা কি সবাইকে জানিয়ে দিয়েছ?
তার মানে?
তোমার বাড়ির সবাই কি ভিডিও দেখেছে?
তাতে কী যায় আসে?
না, কিছুই যায় আসে না। মামলাটা কি তুমি করবে?
মামলা তুমিও করতে পারো।
আমার তো কোথাও অভিযোগ নেই। অপরাধী তো আমিই।
বিয়েটা করার তো দরকার ছিল না মহুয়া। এটা করলে কেন?
সেটা এখন আর ব্যাখ্যা করে লাভ নেই। যা বলব তা তোমার বিশ্বাস হবে না। তবে আমি নির্দোষ নই।
আদিত্যর সঙ্গে তোমার প্রেমটা তো দোষের ব্যাপার নয়। কিন্তু একজনের সঙ্গে প্রেম থাকা সত্ত্বেও আর একজনকে বিয়ে করাটা অপরাধ। সেন্স অব পজেশন ব্যাপারটা বোঝা? মানুষের ওই এক মস্ত দুর্বলতা, কিন্তু ওইটেই তার প্যাশন।
ঠিক আছে। তুমি মামলা করো, আমি ডিভোর্স দিয়ে দেবো। মিউচুয়ালি।
বাই।
বাই।
এইভাবে মহুয়ার সঙ্গে আমার খুব দুর্বল এবং ক্ষীণ বৈবাহিক সম্পর্কটা ছিন্ন হয়ে গেল। কিন্তু তার সঙ্গে কোনও শরীর বা মনের মেলামেশা হয়নি বলে বিচ্ছেদটা দুঃখের হল না। তবে মহুয়া ভারি লাবণ্যময়ী মেয়ে ছিল। হয়তো নিখুঁত সুন্দরী নয়, কিন্তু অনেকে সুন্দরী না হয়েও আকর্ষণীয়া তো হতেই পারে। মহুয়া ঠিক তেমনি। তাই মহুয়ার কথা বেশ মনে ছিল।
স্থির করলাম আর বিয়ে-টিয়ের চক্করে যাব না। একটা বিয়েতেই যথেষ্ট অপপ্রচার এবং লজ্জাজনক ঘটনা ঘটে গেছে। কোম্পানি কিছুদিনের মধ্যেই আমাকে একটা ট্রেনিং নিতে সুইজারল্যান্ডে পাঠিয়ে দিল। বাঁচলাম।
ফিরে এসে আমি আমার ব্যবসা শুরু করি। গুরগাঁওয়ে আমার ছোট কারখানা খুলে চাকরি ছেড়ে দিই। মন দিয়ে ব্যবসাতে মজে থাকি। এবং ক্রমে ব্যবসা জমে উঠতে থাকে। কারখানা বড় হয়, ঋণ শোধ হয়ে যায় এবং কারখানার আশপাশটায় গড়ে ওঠে ছোটখাটো আমার নিজস্ব উপনগরীর মতো। রীতিমতো বিশেষজ্ঞ আনিয়ে প্রকৃতির চর্চা করে গাছপালা লাগিয়ে জায়গাটা ভারি মনোরম করে তুলতে যথেষ্ট খরচও হয়ে যায় আমার। কিন্তু তৃপ্তিও তো কম নয়।
আমার উপনগরীর বিশাল ভিআইপি অতিথিশালায় কখনও বিশিষ্ট অতিথির আনাগোনার বিরতি ছিল না। অনেকে শুটিং করার জন্যও আসত। কারণ উপনগরীর জাপানি বাগানে ফুলের সমারোহ ও চমৎকার শুটিং স্পটও ছিল। সরোবরটি বেশ বড় এবং তার মাঝখানে চমৎকার একটি দ্বীপও রচনা করা হয়েছে। নানারকম জলযান, স্পিড বোটেরও আমদানি করা হয়েছে। এসব দেখাশোনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য আমার আলাদা ম্যানেজার এবং স্টাফ ছিল। মোটামুটি একটা মোটারকম টাকাও আসত ভাড়া বাবদ। নিজের টাকাপয়সা বা সাফল্য নিয়ে আমার কোনও চিন্তাভাবনা বা অহঙ্কার ছিল না। আসলে কাজে ডুবে থাকতে আমার ভীষণ ভালো লাগে। কাজের মধ্যেই আমার প্রাণ।
ঋতুর বিয়ে হয়েছে দিলি্লতেই ওর বর আমার কোম্পানিতেই চাকরি নিয়েছে অন্য চাকরি ছেড়ে। ভাইবোন কাছাকাছি থাকি বলে ঋতু আমার দেখাশোনাও করে। মাঝে মাঝে মা আর বাবাও এসে থাকে। বিয়ের প্রস্তাবগুলো আমি অবশ্য ফিরিয়ে দিই। ঋতুর একটা ছেলে হয়েছে। মাত্র দেড় বছর বয়স। আমার ইচ্ছে ওই আমার উত্তরাধিকারী হবে। ওকেই মনের মতো মানুষ করব।
কিন্তু মানুষ যা-ই ভেবে রাখুক না কেন সব তার পরিকল্পনামাফিক ঘটে না।
এক শীতকালে আমার অতিথিশালায় কিছু কর্পোরেট মানুষজন এলো। তাদের কোম্পানির সর্বভারতীয় কনফারেন্সে। তিন দিনের দিন আমার ম্যানেজার ফিরোজ সিরকা আমাকে জানালো একজন মিস্টার আমার সঙ্গে দেখা করতে চান। তাঁর বিশেষ দরকার।
আমি বললাম, আমাকে কি তিনি চেনেন?
বোধহয় না। কিন্তু খুব টেনশনে আছেন মনে হয়।
দরকারটা কী?
বলছেন ব্যক্তিগত।
স্ট্রেঞ্জ। ঠিক আছে, ব্রেকফাস্টে আসতে বলো।
দশ মিনিট।
যে ভদ্রলোক দেখা করতে এলেন তাঁর বয়স আমার মতোই। পঁয়ত্রিশ বা ছত্রিশ। বেশ ভালো চেহারা, তবে শরীরে মেদ জমেছে।
আমি তাঁকে ব্রেকফাস্টে আপ্যায়ন করতে চাওয়ায় সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করে বললেন, আমি গত পাঁচবছর ধরে আপনার নাগাল পাওয়ার চেষ্টা করছি। পারিনি। আপনি বিদেশে গেলেন, আমাকেও যেতে হল। ফিরে আসার পরও আবার নানারকম ইনভলভমেন্টে জড়িয়ে যেতে হল। এতদিন পর আপনার সঙ্গে দেখা হল। যদিও জানি আর কোনও লাভ নেই। তবু কথাটা আপনাকে জানানো দরকার।
বলুন।
কথাটা মহুয়াকে নিয়ে। আমিই আদিত্য ঘোষ।
ওঃ, হ্যাঁ, আপনাকে একটু চেনা চেনা লাগছিল। বটে! মহুয়াকে তো নিশ্চয়ই আপনি বিয়ে করেছেন।
না, করিনি।
কিন্তু আপনারা তো ডিপলি ইনভলভড্ ছিলেন।
আদিত্য মস্নান একটু হাসল। তারপর বলল, মহুয়ার সঙ্গে আমার কোনও সম্পর্কই ছিল না।
কিন্তু ভিডিও রেকর্ডিং এবং ফটোগ্রাফ যে অন্য কথা বলছে।
হ্যাঁ, তাও ঠিক। কিন্তু যা দেখেছেন তা বিশ্বাস করলে ভুল করবেন।
এ কথা ঠিক যে, আপনাদের বিয়ের বছর দেড়েক আগে মহুয়া প্রেমে পড়েছিল। তবে বাঙালি মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে তো, তাদের খুব লজ্জা আর সঙ্কোচ। প্রেমের কথাটা সে অবশেষে একটি চিঠি লিখে আমাকে জানায়। কিন্তু আমি যে তার প্রেমে পড়িনি সেই নিষ্ঠুর সত্যটা তাকে জানাতে আমার ভারি সঙ্কোচ হয়েছিল।
আপনি ওর প্রেমে পড়েননি?
না। পড়া সম্ভব ছিল না। আজ আপনাকে বলতে সঙ্কোচ নেই যে, আমি কিশোর বয়সেই প্রথম টের পেয়েছিলাম যে, আমি হোমো সেক্সুয়াল।
মাই গড!
কোনও মেয়ের প্রেমে পড়া আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না। কিন্তু সেই সত্যটা দুর্বলতাবশে মহুয়াকে সময়মতো বলতে পারিনি বলেই মেয়েটার অনেক ক্ষতি হয়ে গেল।
তখন কি আপনার কথাটা বলে দেওয়া উচিত ছিল না?
একটু দেরি হলেও শেষ অবধি সত্যটা আমি প্রকাশ করে দিই মহুয়ার কাছে। সে বোধহয় বিশ্বাস করতে পারেনি। কিংবা ভেবেছিল আমি এই রোগ থেকে ভালো হয়ে যাব যদি কোনও মেয়ের সংস্পর্শে থাকি। তাই বিয়ে করার জন্য ঝোলাঝুলি করতে থাকে। সেটা সম্ভব নয় জেনে অবশেষে সে অনিচ্ছের সঙ্গে আপনাকে বিয়ে করে। কিন্তু গ্রহণ করতে পারেনি। আমিই তার সেই শনিগ্রহ।
কিন্তু আপনারা তো রাত্রিবাস করেছেন।
আপনার ডিটেকটিভ এজেন্সি যখন আমাকে আর মহুয়াকে ফলো করতে শুরু করে তখন আমি সেটা টের পেয়ে যাই। মহুয়াকে ব্যাপারটা জানাতেই সে আমাকে বলে যে, এই সুযোগটা কাজে লাগালে তার ডিভোর্স পেতে সুবিধে হবে। সুতরাং আমরাই আপনার এজেন্সির এজেন্টদের ডেকে তাদের সুবিধেমতো ছবি তুলতে সাহায্য করি। যাতে আপনার হাতে ব্রহ্মাস্ত্র তুলে দেওয়া যায়। মহুয়ার সঙ্গে কখনও শারীরিকভাবে ঘনিষ্ঠতা ঘটেনি। রাত্রিবাসের প্রশ্নই ওঠে না। আমি যে হোমোসেক্সসুয়াল তা আমার বন্ধবান্ধব, পরিবারের লোক এবং আমার বসও জানে। খোঁজ নিলেই জানতে পারবেন। মহুয়া শুধু চেষ্টা করেছিল আমাকে এই প্রবণতা থেকে উদ্ধার করতে। পারেনি। ডিভোর্সের পরও কিছুদিন আশায় আশায় থেকে সে হাল ছেড়ে দেয়। কিন্তু বড্ড দেরি হয়ে গেছে তখন। এখন আর মহুয়ার কথা আপনাকে জানিয়ে লাভ নেই জানি, কিন্তু একটা মিথ্যে ও ভুল প্রচার থেকে মহুয়াকে মুক্ত করার দরকার ছিল বলে আপনার কাছে আজ সব বললাম।
আমি একটা বড় শ্বাস ছেড়ে বললাম, তাতে আর কী লাভ বলুন? মহুয়া তো তবু আপনাকে ভালবেসেছিল। আমি তো তার আনুষ্ঠানিক স্বামী ছিলাম মাত্র। সম্পর্কই হয়নি।
সেটা হয়তো আপনার দিক দিয়ে দেখলে যথার্থ বিচার। কিন্তু আসল ব্যাপারটা হয়তো অত সহজ এবং সরল অঙ্ক নয়। কারণ মহুয়া আজও কাউকে বিয়ে করেনি এবং তার কোনও বয়ফ্রেন্ডও নেই। মা-বাবার সঙ্গেই থাকে। আমি যতদূর জানি ঘটনাহীন, নিস্তরঙ্গ এবং খানিকটা নিঃসঙ্গ জীবনই সে যাপন করে।
আপনার সঙ্গে তার কি এখনও সম্পর্ক আছে?
সেই অর্থে নেই। প্রথম কথা আমি ভীষণ ব্যস্ত, প্রচ- ট্যুর এবং নানারকম কমিটমেন্ট থাকে। দ্বিতীয়ত, মহুয়ার সঙ্গে আমার সেন্টিমেন্টাল কোনও অ্যাটাচমেন্ট নেই। ফলে আমাদের বন্ধুত্বটাও একটু আলগা ধরনের। মহুয়ার মোহটাও তো অনেকদিন আগেই কেটে গেছে।
এইসব খবরে আমার আর কোনও আগ্রহ নেই। পাঁচ-ছয় বছর আগেকার ঘটনা। আমি ভুলেও গেছি প্রায়।
স্বাভাবিক। আর আপনিও এখন ফ্যামিলি ম্যান, বউ বাচ্চা আছে। আমি শুধু এই কথাটাই আপনাকে জানাতে চেয়েছিলাম যে, মহুয়া আর আমাকে নিয়ে যে রটনাটা হয়েছে তার সবটাই আরোপিত। এই সত্যটা আপনার কাছে প্রকাশ করে আমি খানিকটা ভারমুক্ত হলাম আর কি। মহুয়া আপনাকে ঠকিয়েছে বটে, কিন্তু নিজেও বড্ড ঠকে গেছে।
ওর পিএইচডি কি হয়েছিল?
না। সোসিওলজি নিয়ে কাজ করছিল। ডিভোর্সের পরই মানসিক বিপর্যয়ে ওর সব এলোমেলো হয়ে যায়। কিছুদিন সাইকিয়াট্রিক ট্রিটমেন্টও করিয়েছিল। প্রচ- ডিপ্রেশনে ভুগত। আমি ডিটেলস বলতে পারব না। কিন্তু খুব একটা ক্রাইসিস পিরিয়ড গেছে শুনেছি। এখন বোধহয় কোনও মন্তেসরি স্কুলে বাচ্চাদের পড়ায়। আর বোধহয় কোনও রিলিজিয়াস অর্গানাইজেশনের হয়ে কিছু মিশনারি ওয়ার্ক করে। ওসব জেনে আপনার লাভ নেই।
আদিত্য আমাকে কিন্তু দ্বিধায় ফেলে চলে গেল। যদি না মহুয়া সম্পর্কে আমার একটা মনেপড়া না থাকত তাহলে এ ব্যাপারটা নিয়ে আর মাথা ঘামাতাম না। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় মহুয়ার কথা আমার আজও বিরলে, বিজনে, অবসরে খুব মনে পড়ে। লাবণ্যময় একটি মুখ এবং নরম সরম কথাবার্তা।
কয়েকদিন ভেবে আমি স্থির করলাম, খোঁজখবর করাটা দরকার। দ্বিধায় থাকা ঠিক নয়।
কলকাতায় এসে সেই পুরনো ডিটেকটিভ এজেন্সিকেই ডেকে পাঠালাম। খোঁজ করে দেখলাম পাঁচ বছর আগেকার অপারেটরদের মধ্যে দুজন এখনও আছে। তাদেরই ডেকে এনে অকপটে জিজ্ঞেস করলাম, মহুয়া আর আদিত্যের ব্যাপারে তাদের ইনফরমেশনটা গটআপ ছিল কিনা।
কিছুক্ষণ অস্বীকার করার পর তারা কবুল করল যে, হ্যাঁ, ব্যাপারটা গটআপ ছিল, কিন্তু তাতে আমার উদ্দেশ্য সফলই হয়েছিল বলে মনে হয়েছিল তাদের।
আমি বললাম, আমি দু’জন সম্পর্কেই কারেন্ট ইনফরমেশন চাই। এবার কোনও গটআপ হলে চলবে না। পনেরো দিনের মধ্যে প্রথম রিপোর্ট পেশ করতে হবে। এবং আগামী দু’মাস ধরে অবিরল নজরদারি চালিয়ে যেতে হবে।
পনেরো দিন বাদে প্রথম রিপোর্টে যা জানা গেল তা নিতান্তই সাদামাটা। অনুত্তেজক। আদিত্য তার পুরুষ সঙ্গীর সঙ্গে পার্ক স্ট্রিটের একটি ফ্ল্যাটে থাকে। সে অবশ্য খুবই ব্যস্ত মানুষ। আজ এখানে, কাল সেখানে। আর মহুয়া সম্পর্কেও আদিত্য যা বলেছিল তা সত্য। গ্রিন হাউস নামে একটি মন্তেসরি স্কুলে পড়ায়। সৎসঙ্গের হয়ে কাজ করে। মোবাইল ফোন বা কম্পিউটার ব্যবহার করে না। সাদা খোলের শাড়ি ছাড়া কিছু পরে না। সবচেয়ে বড় কথা কখনও বিউটি পার্লারে বা শপিং-এ যায় না। গাড়ি নেই, বাস বা অটোতে যাতায়াত করে। কাজের সময় ছাড়া বাড়ি থেকে বেরোয় না। মা আর বাবার সঙ্গে থাকে। নিরামিষ জীবন, কোনও পুরুষবন্ধুর খোঁজ পাওয়া যায়নি এখনও পর্যন্ত।
মাসখানেকের মাথায় একইরকম রিপোর্ট এলো। সঙ্গে ভিডিও সিডি। তাতে নানা অ্যাঙ্গেল থেকে মহুয়াকে দেখানো হয়েছে। সে সকালে বাজার করছে, অটোতে উঠছে, বাসে বসে আছে। বাড়িতে ঢুকছে বা বেরোচ্ছে। সৎসঙ্গের একটি মাতৃ সম্মেলনে বক্তৃতা দিচ্ছে। ছাদে দাঁড়িয়ে আছে। কোনও ঘটনা নেই।
কিন্তু ঘটনা আছে। সেটা হল মহুয়ার চেহারা। অনেকটাই রোগা হয়ে গেছে। কিন্তু ভারি সি্নগ্ধ, কৃশ একটা অন্যরকম সৌন্দর্য ফুটেছে তার চেহারায়। সেক্স অ্যাপিল না হলেও বেশ সন্ত্রম হয় দেখলে, ভালো লাগে, বয়স এখন তিরিশের কাছে-পিঠে। দেখলে আরও কম বলে মনে হয়। আর সবচেয়ে ভালো লাগল, পোশাকের পারিপাট্য তেমন নেই। সুন্দর হওয়ার আয়াস প্রয়াস নেই। অল্প বয়সে ঘা খেয়েছে বলেই কি একটা কোনও শুদ্ধিকরণ ঘটেছে মহুয়ার?
পুরো দু’মাসের গোয়েন্দাগিরির ফলে যেসব খবর জমা হল তা তেমন কৌতূহলোদ্দীপক নয়, কিন্তু স্বস্তিকর।
আমি প্রথমে ঋতুকে জানালাম।
ঋতু বুদ্ধিমতী মেয়ে। সব শুনে বলল, আমি বলি তুই বউদিকে নিয়ে আবার ঘর কর।
অতটা আগ বাড়িয়ে ভাবছি না। আর একটু স্টাডি করি, তারপর।
ঋতুর মারফত কলকাতায় মা আর বাবাও জানাল, এক রাতে আমাদের মধ্যে অর্থাৎ আমি, ঋতু, মা আর বাবার একটা টেলি কনফারেন্সও হয়ে গেল। সকলেরই মত হল, মহুয়াকেই ফিরিয়ে আনা হোক।
কিন্তু কাজটা সহজ নয়। একটা মেয়েরও তো ইগো প্রবলেম আছে। মহুয়া তো আমার প্রতি প্রেমাসক্ত নয়। আমি চাইলেই সে রাজি হবে কেন? সুতরাং সাবধানে পা ফেলা দরকার।
মহুয়ার মোবাইল নেই, সুতরাং একদিন তার ল্যান্ডমাইনেই রাত দশটা নাগাদ ফোন লাগালাম। একজন বুড়ো মানুষ_ বোধহয় মহুয়ার বাবা ফোন ধরলেন, হ্যালো।
মহুয়া আছে?
হ্যাঁ আছে, মহুয়া, তোর ফোন… বলে ফোনটা রেখে দিলেন। জিজ্ঞেস করলেন না কে বলছেন, আর সেটা আমার বেশ পছন্দ হল।
মহুয়া ফোন তুলে বলল, হ্যাঁ বলুন।
কেমন আছো?
মহুয়া বেশ খানিকটা স্তব্ধ হয়ে রইল। তারপর কেমন স্বলিত তদগত গলায় বলল, উঃ! কতদিন পর তোমার গলা শুনলাম?
বুকটা একটু দুলে উঠল, পাঁচ বছর পরও কি মহুয়া আমার গলা মনে রেখেছে? নাকি অন্য কারও গলা বলে ভুল করেছে?
বললাম, আমি কে বলো তো!
মহুয়া একটু হাসল, তারপর বলল, ভুল করিনি গো! ভয় পেও না, আদিত্য একদিন ফোন করে জানাল, তুমি দিলি্লতে আছো, ভীষণ ব্যস্ত মানুষ। আর খুব নাকি বড়লোক! সত্যি?
হ্যাঁ, সত্যি, খুব না হলেও, মন্দ নয়।
তোমরা তো এমনিতেই বড়লোক ছিলে। এত টাকা দিয়ে কী হবে বলো তো! বেশি টাকা আমার কেন যেন ভালো লাগে না!
টাকার কথা থাক মহুয়া, ওটা কোনও পয়েন্ট নয়। আমার একটা কথা জানার আছে।
বলো।
বাকি জীবনটা কীভাবে কাটাবে?
মহুয়া আবার একটু হাসল। বলল, ওটা একটা প্রশ্ন হল বুঝি? জীবন কেটে যাবে, যেমন যায়। বিয়ে করবে না?
মহুয়া আবার স্তব্ধ। অনেকক্ষণ পরে বলল, সেটা কি সম্ভব?
কেন নয়?
সেটা তুমি বুঝবে না। তোমার মুখ থেকে প্রশ্নটা শুনে আমার কিন্তু একটুও ভালো লাগল না। আর বোলো না, প্লিজ।
আচ্ছা। আজ ছাড়ছি। বাই।
মহুয়া কিছু বলল না। ফোনটা বোধহয় অনেকক্ষণ ধরে ছিল।
স্তব্ধ টেলিফোনটায় মায়াময় হাত রেখে আমিও অনেকক্ষণ স্মিতমুখে বসে রইলাম। চারদিকে হিরণ্ময় অন্ধকার, সোনার গুঁড়ো মেশানো বাতাস।

Leave a Reply