মুন্সীগঞ্জে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাংস বিতরণ করলেন

ঈদকেন্দ্রিক রাজনীতি
জাতীয় নির্বাচন কাছাকাছি সত্ত্বেও এবার মুন্সীগঞ্জে সম্ভাব্য প্রার্থীদের কোরবানির ঈদ কেন্দ্রিক ভোটারদের মনজয়ে তেমন সাড়া মেলেনি। তবে অনেকেই গরু কোরবানি দিয়ে মাংস বিতরণ করেছেন। মুন্সীগঞ্জ-৩ সদর আসনে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাই শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুরের গোসাইবাড়িতে চারটি গরু কোরবানি দিয়েছেন। তাঁর অনুজ সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ কোরবানি দিয়েছেন ১৫টি গরু। অধিকাংশ মাংসই গ্রামবাসী, দরিদ্র জনগোষ্ঠী এবং নেতাকর্মীদের মাঝে বিতরণ করেছেন। তবে মুন্সীগঞ্জ সদর আসনে বিগত নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক তথ্য মন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম এবার কোরবানির ঈদে এলাকায় আসেননি। তিনি অসুস্থতার কারণে আসতে পারেননি। তাই ঈদের পরদিন সদর উপজেলার শুখবাসপুরের নিজবাড়িতে তাঁর পুত্র বিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি শিল্পপতি ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল ইসলাম ২টি গরু কোরবানি দেন।

এই আসনের বর্তমান সরকার দলীয় সাংসদ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এম ইদ্রিস আলী ঢাকায় বসবাস করলেও ঈদ করেছেন সদর উপজেলার চন্দ্রনতলার নিজ বাড়িতে। তিনি একটি গরু কোরবানি দিয়েছেন। জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মোঃ মহিউদ্দিন শহরের কোটগাঁওয়ে নিজবাড়িতে একটি গরু ও একটি খাসি কোরবানি দিয়েছেন। তাঁর অনুজ উপজেলা চেয়াম্যান আনিস-উস-জামান নিজ বাড়িতেই ৫টি গরু কোরবানি দিয়েছেন। তবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ দফতর সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস ঈদের আগের দিন শহরে এবং ঈদের দিন গজারিয়ায় ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।


মুন্সীগঞ্জ-২ আসন থেকে বিগত সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা নিজ গ্রাম লৌহজং উপজেলার কলমায় ১২টি গরু কোরবানি দিয়েছেন। তিনি গ্রামবাসী ছাড়াও নেতাকর্মীদের মাঝে কোরবানির মাংস বিতরণ করেন। অনেকে বাড়িতে মাংস পাঠিয়ে দেন। তবে এই আসনের বর্তমান সরকার দলীয় সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি নিজ গ্রাম লৌহজংয়ে ৩টি গরু কোরবানির দিয়েছেন। এছাড়া তিনি ঈদের পরদিনও এলাকা ঘুরে ঘুরে সাধারণ মানুষ ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

মুন্সীগঞ্জ-১ আসন থেকে বিগত নির্বাচনে অংশ নেয়া সাবেক রাষ্ট্রপতি বিকল্পধারা প্রধান একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং তাঁর পুত্র এই আসনের সাবেক সাংসদ মাহী বি চৌধুরী সপরিবারে হজব্রত পালনে সৌদি আরবে থাকায় ঈদে এবার এলাকায় আসতে পারেননি। এই আসন থেকে বিএনপি প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করা কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ঈদে এলাকায় আসেননি। তিনি অসুস্থ বলে জানা গেছে। তবে বর্তমান সাংসদ সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ঈদে এলাকায় চষে বেড়িয়েছেন। এছাড়া বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরেন কুসুমপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে একটি গরু কোরবানি দিয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক ও সম্ভাব্য প্রার্থী শিল্পপতি শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ হজব্রত পালনে সৌদি আরবে রয়েছেন। আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী শরাফত আলী সপু ঈদের দিন না এলেও ঈদের পরদিন শ্রীনগর উপজেলার দামলার নিজ বাড়িতে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।


ঈদের পরপরই মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা এলাকায় ঈদ পুনর্মিলনি দিয়ে মাঠ গরম করার চেষ্টা করেছেন। টঙ্গীবাড়ির হাসাইল ও লৌহজংয়ের বেজগাঁওয়ে সন্ধিসারে নিজেকে প্রধান অতিথি রেখে ঈদ পুনর্মিলনির আয়োজন করেছিলেন। কিন্তু দু’টি অনুষ্ঠানই ক্ষমতাসীন দলের অঙ্গ সংগঠন পাল্টা কর্মসূচী আহ্বান করায় ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply