ঘুরে দাঁড়িয়েছে মুন্সীগঞ্জ বিএনপি সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে

ঘুরে দাঁড়িয়েছে মুন্সীগঞ্জ বিএনপি। দলের মধ্যে ক্ষুদ্র একটি অংশের বিরোধ, কর্মসূচি পালনে আওয়ামী লীগের বাধা ও ১৪৪ ধারা জারিসহ সব বাধা উপেক্ষা করে ঈদের পর পুরোদমে মাঠে নেমেছে মুন্সীগঞ্জ বিএনপি। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিজ এলাকায় কর্মী সমাবেশ, উঠান বৈঠক ও কেন্দ্রীয় কর্মসূচিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন। তৃণমূলের দলীয় কর্মী-সমর্থকদের সক্রিয় করে মাঠে রাখাই এর উদ্দেশ্য বলে মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সাবেক এমপি, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহার অভিমত।

ইতিমধ্যে তার নির্বাচনী এলাকার টঙ্গীবাড়ী ও লৌহজং উপজেলায় যুবদল-বিএনপি’র পৃথক ২টি সভায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ পাল্টা সভা আহ্বান করায় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে সমাবেশ পণ্ড করে দেয়। ঈদের পরদিন ২৮শে অক্টোবর সকাল ১০ টায় টঙ্গীবাড়ীর হাসাইলে এক বিএনপি নেতার ব্যক্তি মালিকানাধীন সানরাইজ কিন্ডার গার্টেন স্কুলে আয়োজিত উপজেলা যুবদলের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে ১৪৪ ধারা জারি করা হলে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা বিএনপি তাৎক্ষণিক ওইদিন বেলা ১১টার দিকে কামারখাড়া বাজার মাঠে ও পরদিন ২৯শে অক্টোবর যশলং ইউনিয়নের বাগিয়াবাজারে ইউনিয়ন বিএনপি প্রতিবাদ সভা করেন।


এরপর গত ২৯শে অক্টোবর বিকাল ৩টায় লৌহজংয়ের বেজগাঁও ইউনিয়নের সন্ধিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা বিএনপি ঈদ পুনমির্লনী সভা আহ্বান করলে উপজেলা আওয়ামী লীগ সেখানে পাল্টা সভা আহ্বান করে। এতে সেখানেও উপজেলা প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেন। এতে ওইদিন একই সময়ে উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি শাহজাহান খানের বেজগাঁও ইউনিয়নের কুড়িগ্রাম বাড়ি সংলগ্ন মাঠে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ সভা করে উপজেলা বিএনপি। এ সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা।

মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি গত ৩০শে অক্টোবর সকাল ১০টায় শ্রীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কর্মী সভা আহ্বান করার প্রস্ততি নিলে ইউনিয়র যুবলীগ একই দিনে একই সময়ে সম্মেলন আহ্বান করায় ১৪৪ ধারা জারি হওয়ায় অশঙ্কায় স্থানীয় বিএনপি তাদের অনুষ্ঠান অন্যত্র সরিয়ে নেয়। এরপরও বাধা হয়ে দাঁড়ায় দলের একটি ক্ষুদ্র বিরোধী অংশ। একই দিন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মমিন আলীর ভাই হাজী ফজল হকের ব্যক্তি মালিকানাধীন কোলাপাড়া মাদরাসা মাঠে উপজেলা বিএনপি কর্মী সভার আয়োজন করে।


একইদিনে একই সময়ে ও একই স্থানে উপজেলা ওলামা দলের ব্যানারে দলের ক্ষুদ্র বিরোধী একটি অংশ সভা আহ্বান করে। উপজেলা বিএনপি আয়োজিত কর্মী সভাটি ব্যাপক শোডাউনে রূপ নিলে বিরোধী অংশটি পিছু হটে বলে শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন জানান। আলহাজ মমিন আলীর সভাপতিত্বে এ সভায় প্রধান ও বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, এ আসনে বিএনপি’র সম্ভাব্য প্রার্থী, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, সাবেক মন্ত্রী, বিএনপি’র স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা বিএনপি’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হাই, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রকাশনা সম্পাদক শফি বিক্রমপুরী, জেলা বিএনপি’র অন্যতম উপদেষ্টা জিএম মোস্তাফিজুর রহমান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক সহকারী প্রেস সচিব একেএম মহিউদ্দিন খান মোহন প্রমুখ। এটি মুন্সীগঞ্জের একমাত্র ভিআইপি আসন।

২০০৩ সালে এ আসনের সাবেক এমপি, সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী দল থেকে বিচ্যুৎ হলে শ্রীনগর-সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপি অভিভাবকশূন্য হয়ে পড়ে। শ্রীনগর উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মমিন আলী ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনসহ জেলার অভিভাবক মিজানুর রহমান সিনহা ও আবদুল হাইয়ের নিরলস প্রচেষ্টায় সে শূন্যতা কাটিয়ে ওঠে উপজেলা বিএনপি। তবে এ এলাকায় স্বেচ্ছাসেবক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু একটি অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন। উল্লেখ্য, গত ১১ই সেপ্টেম্বর রাতে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে গুলশানের কার্যালয়ে জেলা, ৬টি উপজেলা ও ২টি পৌরসভা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা মতবিনিময় সভা করার পর মুন্সীগঞ্জ বিএনপি ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে।

মানবজমিন

Leave a Reply