মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী লীগে দুই গ্রুপ

মোজাম্মেল হোসেন সজল: গতি হারিয়ে ফেলছে মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী লীগ। দলীয় উপদলীয় কোন্দলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে দলটি। শীর্ষ নেতারা দুই গ্রুপে বিভক্ত। শীর্ষ নেতাদের দ্বন্দ্বের প্রভাব তৃণমূল নেতাদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়েছে। এতে তৃণমূল নেতাকর্মীরাও ঝিমিয়ে পড়ছেন। জেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নামমাত্র কমিটি রয়েছে। তাদের দলীয় কোন কার্যক্রম নেই। শহরে জেলা আওয়ামী লীগ দলীয় কোন কার্যালয় করতে পারেননি।

জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগের কমিটির মেয়াদ ফুরিয়ে গেছে অনেক বছর আগে। ২০০৩ সালে জেলা যুবলীগের কমিটি গঠিত হয়েছে। কমিটির মেয়াদও ফুরিয়ে গেছে। কোন কার্যক্রম নেই তাদের। সর্বশেষ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয় ২০০৪ সালে। দুই বছর মেয়াদি এ কমিটির বয়স এখন ৮ বছর। ১৯৮৮ সাল থেকে ২৪ বছর ধরে মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে ১৯৭৮ সাল থেকে দুই টার্মে ১০ বছর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। দীর্ঘ ৩৪ বছর সময়ে তিনি মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের একচ্ছত্র অধিপতি ছিলেন। ২০০৬ সালে ভাইপো তাপস হত্যাকে ঘিরে পারিবারিক বিরোধ সৃষ্টি হওয়ায় আওয়ামী রাজনীতিতে তিনি একা হতে শুরু করেন। ছোট ভাই আনিসুজ্জামান বাদী হয়ে বড় ভাই মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ও তার ছেলে ফয়সাল বিপ্লবকে আসামি করলে ওই হত্যা মামলায় পিতা-পুত্র জেল খাটেন। এরপর ২০০৭ সালে ওয়ান ইলেভেন সরকার এলে রাজনীতিতে তার ধস শুরু হয়।


শীর্ষ ৫০ সন্ত্রাসীর তালিকায় তার নাম এলে তিনি আত্মগোপনে চলে যান। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর তিনি ফিরে আসেন রাজনীতিতে। কিন্তু এর আগেই তার ক্ষমতা খর্ব হয়ে যায়। তার একচ্ছত্র রাজনীতিতে ভাগ বসায় দলীয় বিদ্রোহী গ্রুপ। পারিবারিক বিরোধকে কাজে লাগিয়ে লাইম লাইটে চলে আসে ওই গ্রুপটি। দল ক্ষমতায় আসার পর কোন সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি তিনি। তবে ধীরে ধীরে বালুমহাল, জেলা পরিষদের বিভিন্ন প্রকল্পের টেন্ডার ভাগ-বাটোয়ারা চলে যায় তার নিয়ন্ত্রণে। দলীয় সূত্রমতে, মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি রয়েছেন মহিউদ্দিনের সঙ্গে।

অপর শিবিরে রয়েছেন মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, মহিলা এমপি মমতাজ বেগম ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিনের ছোট ভাই আনিসুজ্জামান আনিস। এদিকে এ সুযোগে আগামী জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মহিউদ্দিনের ছোট ভাই আনিসুজ্জামান আনিসকে পুঁজি করে কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস মুন্সীগঞ্জ আওয়ামী রাজনীতিতে নিজের অবস্থান তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দলীয় নেতাকর্মীদের অভিমত। ইতিমধ্যে জেলার রাজনীতিতে খবরদারিও করছেন।


তবে দলীয় কতিপয় সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করার অভিযোগে শুরুতেই তিনি রাজনৈতিক মহলে সমালোচনার মুখে রয়েছেন। সন্ত্রাসীদের পক্ষ নিয়ে নিজে ও কেন্দ্রীয় নেতাদের দিয়ে তদবির করায় প্রশাসনও ক্ষুব্ধ। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহিউদ্দিনের অনুপস্থিতিতে সদর আসনে এম ইদ্রিস আলী দলীয় মনোনয়ন পেয়ে আওয়ামী লীগের এমপি নির্বাচিত হন। এরপর উপজেলা নির্বাচনে মহিউদ্দিনের বড় ছেলে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফয়সাল বিপ্লব ও চাচা আনিসুজ্জামান চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এতে আনিসুজ্জামান জয়লাভ করেন। এ নির্বাচনে চলাকালে মহিউদ্দিন পলাতক ছিলেন।

এরপর মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে ফয়সাল বিপ্লব মেয়র পদে প্রার্থী হন। এ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মেয়র এডভোকেট মজিবুর রহমানকে নিয়ে সংসদ সদস্য এম ইদ্রিস আলী, মহিলা এমপি মমতাজ বেগম, আনিসুজ্জামান ও মৃণাল কান্তি দাস মাঠে নামে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাদের প্রার্থী সামান্য ভোট পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন। নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর সঙ্গে বিপ্লব সামান্য ভোটের ব্যবধানেব পরাজিত হন। এ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে মহিউদ্দিন আবার রাজনীতিতে শক্ত অবস্থানে ফিরে আসার চেষ্টা চালান। এরপর গত বছরের ২১শে ডিসেম্বর জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ায় তিনি ও তার অনুসারীরা রাজনীতিতে নতুন করে কিছুটা শক্তি ফিরে পান। কিন্তু গত কয়েক মাস আগে জেলা পরিষদের অধীনে মাওয়া খেয়াঘাটের ইজারার ডাক গতবারের চেয়ে তিনগুণ কম দিয়ে দলীয় কর্মীকে ইজারা দেয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েন।


গত বার জেলা পরিষদ এই খেয়াঘাটের মাওয়া অংশ ৪ কোটি ৮০ লাখ টাকায় ইজারা দেয়। কিন্তু এবার মাত্র ১ কোটি ৪ লাখ টাকায় জেলার লৌহজং উপজেলার মেদেনীমণ্ডল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হামিদুল ইসলামকে ইজারা দেয়া হয়। এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলনকে সামনে রেখে মহিউদ্দিন সভাপতি হওয়ার আশায় তার সমর্থকদের অনেকটা দূরে সরিয়ে রেখেছেন। পৌরসভা নির্বাচনে বড় ছেলে ফয়সাল বিপ্লব পরাজয়ের পর তাকেও ঢাকায় পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

মানবজমিন

Leave a Reply