প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ: আসামির ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ

মুন্সীগঞ্জে এক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার শিপনের ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট। বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও ফরিদ আহমেদের বেঞ্চ রোববার এই আদেশ দেয়। আদালতে পুলিশ ওই কিশোরীর কাপড়চোপড়ের ল্যাবরেটরি পরীক্ষার ফল উস্থাপন করে, যেখানে ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এরপর আদালত আসামি শিপনের ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দেয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এই পরীক্ষা করতে বলা হয়। বিচারপতির খাস কামরায় ক্যামেরা ট্রায়ালে ধর্ষিত কিশোরী ছবি দেখে শিপনকে সনাক্ত করে।

তবে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী বাক প্রতিবন্ধী হওয়ায় তার বক্তব্য বোঝার জন্য আগামী ১৮ নভেম্বর বিজয়নগর বধির স্কুলের একজন শিক্ষককে আদালতে থাকতে বলা হয়েছে।

এছাড়া খাওয়া-দাওয়ায় সমস্যা হওয়ার কারণে ধর্ষিতকে মিরপুরের আশ্রয়কেন্দ্র থেকে সরিয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সেফ হোমে রাখার আদেশ দিয়েছে আদালত।

আদালত লৌহজং থানার ওসি জামিউর রহমানকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে। তবে ১৮ নভেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন মামলায় উল্লিখিত দুই আসামির ছবি আদালতে উপস্থাপনের নির্দেশ দিয়েছে।

মুন্সীগঞ্জে ধর্ষণের ঘটনায় মামলা না হওয়ায় গত ২ অগাস্ট লৌহজং থানার দুই পুলিশ কর্মকর্তা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মনির হোসেনকে তলব করে হাই কোর্ট।

১২ অগাস্ট তারা আদালতে হাজির হলে আদালত ধর্ষিতের ডাক্তারি পরীক্ষার নির্দেশ দেয়। রোববার সকালে ওই পরীক্ষার প্রতিবেদন নিয়ে আদালতে এসে ওসি বলেন, ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে।

গত ১ অগাস্ট জনকণ্ঠে প্রকাশিত ‘লৌহজংয়ে প্রতিবন্ধী ধর্ষিত, আওয়ামী লীগ নেতার হস্তক্ষেপে থানায় বসে রফা’ শিরোনামের একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পর তা নিয়ে হাই কোর্টে আবেদন হয়।

ওসি আদালতকে জানান, ওই ঘটনায় তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। প্রধান আসামি শিপন গ্রেপ্তারও হয়েছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply