হাসপাতালে যাওয়ার পথে লাশ হলেন দম্পতিসহ ৩ জন

টঙ্গীর খোকন পাঠান নীলু (৪৭) মঙ্গলবার মধ্যরাতে বুকে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেন। পরিবারের লোকজন তাকে একটি অ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের উদ্দেশে রওনা দেন। হাসপাতালে পেঁৗছার আগেই বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সামনের ক্রসিংয়ে ঘাতক ট্রাক কেড়ে নেয় তার প্রাণ। একই সময় অ্যাম্বুলেন্সে থাকা নীলুর স্ত্রী ফারজানা লিপি (৪৫) ও অ্যাম্বুলেন্সের চালক আলমগীর হোসেন (৪৫) নিহত হন।

আহত হয়েছেন ছেলে নাবিল পাঠান (২২), ছোট ভাই লিটন পাঠান (৩৭), বড় ভাই মিলু পাঠান (৫০) ও তার ছেলে সজীব (২১) এবং নিহতের বাড়ির ভাড়াটে মানিক। তারা ঢাকা মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এমন মর্মান্তিক ঘটনায় দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া অ্যাম্বুলেন্সটি (ঢাকা মেট্রো ছ-৭১-০৯৫২) শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ উদ্ধার করে থানার সামনে রেখেছে। ঘটনার জন্য দায়ী ক্ষতিগ্রস্ত ট্রাকটি জব্দ করেছে পুলিশ। তবে ট্রাকের চালক পালিয়ে গেছে। ট্রাকটির কোনো রেজিস্ট্রেশন নম্বর নেই।

অ্যাম্বুলেন্সে থাকা মিলু পাঠান সমকালকে বলেন, মঙ্গলবার মধ্যরাতে তার ছোট ভাই নীলু বুকে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করে। তাকে টঙ্গী বাজারসংলগ্ন হারিচপুরের বাসা থেকে উত্তরার সেন্ট্রাল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে প্রাথমিক পরীক্ষার পর অ্যাম্বুলেন্সে হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে পাঠিয়ে দেন। এ সময় তারাও অ্যাম্বুলেন্সে ওঠেন। রাত সাড়ে ৩টার দিকে অ্যাম্বুলেন্সটি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সামনের ক্রসিংয়ে ঘুরছিল। এ সময় বালুবাহী একটি ট্রাক অ্যাম্বুলেন্সটির ডানদিকে জোরে ধাক্কা দেয়।

শেরেবাংলা নগর থানার উপপরিদর্শক বজলার রহমান সমকালকে জানান, সবাইকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে ভোর ৪টার দিকে নীলু ও তার স্ত্রী লিপিকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। ভোর ৬টার দিকে চালক আলমগীরকে মৃত ঘোষণা করা হয়। তিনি বলেন, নিহত দম্পতির ছেলে নাবিলের অবস্থা গুরুতর। তাকে ধানমণ্ডির একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নীলুর বোন দিলারা ইসলাম জানান, তার ভাই টঙ্গীতে ব্যবসা করতেন। তাদের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ হলেও তারা দীর্ঘদিন ধরে টঙ্গী বাজারসংলগ্ন হারিচপুরে থাকতেন। তিনি জানান, নিহত দম্পতির ছেলে গুরুতর আহত নাবিল রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

সমকাল

Leave a Reply