কে এই ল্যাংড়া আমির!

ঢাকার অদূরে কেরানীগঞ্জ থেকে ছয় মাসের শিশু পরাগ মন্ডলকে অপহরণের মূল নায়ক আমির ওরফে ল্যাংড়া আমিরকে গত ছয় দিনেও ধরতে পারেনি পুলিশ। তাকে ধরার জন্য পুলিশ, র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী রাজধানীসহ এর আশপাশের এলাকায় ব্যাপক অভিযান চালাচ্ছে। তাকে ধরতে অত্যাধুনিক ডিজিটাল পদ্ধতি অনুসরণ করা হলেও গ্রেপ্তার করা যাচ্ছে না।

জানা গেছে, আমিরের ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সঙ্গে উঠাবসা ছিল। অনেক সময় তাদের বিভিন্ন ধরনের কাজ করে দিত। আর এ কারণে বেশ কয়েকবার জেলেও গিয়েছে। পরাগকে অপহরণের একমাস আগে আমির জেল থেকে ছাড়া পান। এরপর স্থানীয় যুবলীগের এক নেতার পরামর্শে সে পরাগকে অপহরণের সিদ্ধান্ত নেন। এ কাজ বাস্তবায়ণ করতে তার সহযোগী হিসেবে দনিয়া কলেজের ছাত্রসহ স্থানীয় কয়েকজনকে কাজে লাগান। ওই বাসার পাশে কালাচাঁন নামে এক সিএনজি চালককে হাত করেন। কালাচাঁনকে পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে একটি নতুন সিএনজি কিনে দেয়ার প্রলোভন দেখানো হয়।

কালাচাঁন শিশু পরাগ মন্ডল ও তার বোন পিনাকি মন্ডলের স্কুলে যাওয়ার বিষয়টি খোঁজ খবর নিয়ে আমিরকে জানান। আমির সময় সুযোগ বুঝে গত ১১ নভেম্বর পরাগ মন্ডলের বোন, মা ও ড্রাইভারকে গুলি করে পরাগকে অপহরণ করে।

পরে পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় পরাগকে উদ্ধার করা হয়। তবে পুলিশ ও র‌্যাব পরাগকে উদ্ধারের বিষয়ে ভিন্নমত দেন। র‌্যাবের দাবি, পরাগকে ৫০ লাখ টাকার বিনিময়ে উদ্ধার করা হয়। আর পুলিশ বলছে মুক্তিপণ নয় শর্ত দিয়ে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের এ দ্বৈত আচরণে বিভ্রান্তির দেখা দিলেও পরাগকে উদ্ধারে সবার মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

তবে প্রশ্ন উঠেছে, পরাগকে অপহরণকারী কে এই ল্যাংড়া আমির? তাকে কেন ধরা হচ্ছে না। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে আলোচনার ঝড় শুরু হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আমিনুল ইসলাম ওরফে মোল¬­া জুয়েল দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের শুভাড্যা ইউনিয়নের যুবলীগ নেতা। জুয়েল তার সহযোগী হিসেবে আমিরকে নানা কাজে ব্যবহার করত। আমির এলাকায় ল্যাংড়া জুয়েল নামে পরিচিত। তার সন্ত্রাসী হয়ে ওঠার পেছনে জুয়েলের ভূমিকা ছিল সবচেয়ে বেশি।

তবে রাজধানী জুরাইনের ছাত্রলীগ ক্যাডার সাজেদুর রহমান সাজুর (মৃত) সঙ্গে তার সন্ত্রাসী জীবনের আত্মপ্রকাশ ঘটে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। সাজু মারা যাওয়ার পর থেকে আমির যুবলীগ নেতা জুয়েলের নেতৃত্বে বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করত।

জুয়েলের বিরুদ্ধে হত্যা, জমিদখল, চাঁদাবাজীসহ ৯/১০টি মামলা রয়েছে। জানা গেছে, যুবলীগ নেতাদের শেল্টারের কারণে সে শুভাড্যা ইউনিয়নে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠে। আমির ছাড়াও জুয়েলের সহযোগী হিসেবে আল-আমিন এসবের সঙ্গে জড়িত।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (দক্ষিণ) সিনিয়র এসি ছানোয়ার হোসেন জানান, আমির কেরানীগঞ্জের শুভাড্যা পশ্চিমপাড়া এলাকায় একটি বাসায় ভাড়া থাকত। তার বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলার সদর থানার মীরকাদির গ্রামে। আমির শুভাড্যা হেল¬ার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। কয়েকটি মাদক স্পটও সে পরিচালনা করে। গত এক বছর আগে জেল থেকে ছাড়া পায়।

এসি ছানোয়ার জানান, টাকার কারণেই আমির শিশু পরাগকে অপহরণ করে। তাকে ধরতে গোয়েন্দা পুলিশ সর্বোচ্চ প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। খুব শিগগির তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

র‌্যাব সদর দপ্তরের মিডিয়া শাখার সহকারী পরিচালক অভিষেক আহমেদ জানান, আমিরকে গ্রেপ্তার করলেই পুরো বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে যাবে। এদিকে আমিরের পরিবারের ওপর চলছে র‌্যাব ও পুলিশের ব্যাপক গোয়েন্দা নজরদারী। মোবাইল ট্রাকিং ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে ধরার চেষ্টা চলছে।

আমাদের সময়

Leave a Reply