গজারিয়ায় গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কার ও কোটি টাকা হাতিয়ে উধাও ব্যবসায়ী

জেলার গজারিয়া উপজেলার দুই শতাধিক নারী-পুরুষের গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা নিয়ে পালিয়েছে এক বন্ধকী ব্যবসায়ী। ওই বন্ধকী ব্যবসায়ী এসব নারী-পুরুষের শত শত ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও সুদে নেওয়া কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সেখানকার হোসেন্দী বাজারের ‘হৃদয় অলঙ্কার’ নামে স্বর্ণের দোকানের কর্ণধার সঞ্জয় মণ্ডল এ কাণ্ড ঘটিয়েছে।

সঞ্জয় মণ্ডল হোসেন্দী বাজারের পুরনো স্বর্ণ ব্যবসায়ী। স্বর্ণের দোকানের অন্তরালে স্বর্ণালঙ্কার বন্ধক রাখা ও সুদে অন্যের কাছ থেকে টাকা নেওয়াই ছিল তার আসল ব্যবসা। প্রথমদিকে গ্রামের নারী-পুরুষের কাছ থেকে সুদে টাকা নিয়ে লাখপ্রতি তিন থেকে চার হাজার টাকা লাভ দিয়ে সবার আস্থা অর্জন করে সে। এ ছাড়া কম পরিমাণের স্বর্ণালঙ্কার হলে বেশি সুদ ও বেশি পরিমাণের স্বর্ণালঙ্কার হলে কম সুদ_ প্রকারান্তে নারী-পুরুষের কাছ থেকে স্বর্ণালঙ্কার গচ্ছিত রেখে শতকরা চার থেকে সাত টাকা হারে সুদে টাকা লাগাত সে। সম্প্রতি গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কার ফিরিয়ে নিতে যারাই তার কাছে গেছেন, সবাইকে দিই-দিচ্ছি করে স্বর্ণালঙ্কার ফেরত দেয়নি সে। আবার চড়া সুদের প্রলোভন দেখিয়ে অনেকের কাছ থেকে নিয়েছে আরও কয়েক কোটি টাকা। দু’এক মাস সুদের অংশ দিলেও শেষ পর্যন্ত শত শত নারী-পুরুষের স্বর্ণালঙ্কার ও কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে ১০ নভেম্বর রাতের আঁধারে সপরিবারে পালিয়ে যায় সঞ্জয় মণ্ডল। তার বসতঘর ও বাজারের হৃদয় অলঙ্কার স্বর্ণের দোকানে এখন তালা ঝুলছে। হোসেন্দী গ্রামের প্রয়াত সুধীর মণ্ডলের ছেলে সে। সঞ্জয় মণ্ডলের চাচা গোবিন্দ মণ্ডল জানান, সঞ্জয় কোথায় পালিয়েছে, তা তাদের জানা নেই।


এদিকে সঞ্জয় মণ্ডলের পলায়নের খবর পেয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন ভুক্তভোগীরা। ভুক্তভোগীরা গত বুধবার সকালে সঞ্জয় মণ্ডলের বিরুদ্ধে সভা-সমাবেশও করেছেন। থানার ওসি শহীদুল ইসলাম ভুক্তভোগীদের আদালতে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছেন। থানার ওসি বলেন, চড়া সুদের প্রলোভনে পড়ে ওই সব নারী-পুরুষ স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা দুই-ই হারিয়েছেন। এখন সর্বস্ব হারিয়ে সবাই দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

গজারিয়া উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের ধনু মিয়া জানান, মাসে ১৮ হাজার টাকা সুদ পাওয়ার প্রলোভনে পড়ে সঞ্জয় মণ্ডলকে পাঁচ লাখ টাকা দেন। তিনি কয়েক মাস সুদের ১৮ হাজার টাকা পান ঠিকই; কিন্তু সঞ্জয় পালিয়ে যাওয়ায় আসল পাঁচ লাখ টাকাই খুইয়েছেন তিনি। লস্করদী গ্রামের নাজমা রহমান বলেন, গচ্ছিত ২৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ছাড়িয়ে নিতে সঞ্জয়কে ১০ লাখ টাকা দেন। কিন্তু সঞ্জয় দিই-দিচ্ছি বলে কালক্ষেপণ করার পর একদিন সপরিবারে সে উধাও হয়ে যায়। হোসেন্দী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আলী আকবর খোকন ধরা খেয়েছেন ওই বন্ধকি ব্যবসায়ীর প্রতারণার জালে। তার চার ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ৬৫ হাজার টাকা গচ্ছিত ছিল ওই ব্যবসায়ীর কাছে। একই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মোবারক মিয়া সম্প্রতি গচ্ছিত পাঁচ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ফিরিয়ে নিতে এক লাখ ১০ হাজার টাকা দেন সঞ্জয়কে। এই ইউপি সদস্যের স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা দু-ই গেছে।
এমন অসংখ্য ভুক্তভোগীর পরিবারে এখন চলছে কান্নার রোল। তারা আদৌ টাকা বা গচ্ছিত স্বর্ণালঙ্কার ফেরত পাবেন কি-না, তা নিয়ে রয়েছেন সংশয়ে।

মামুনুর রশীদ খোকা – সমকাল

Leave a Reply