মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান’র ঈদ পুনর্মিলনী ২০১২

প্রবাসীদের ব্যাপক অংশগ্রহণ ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদ উল আযহার ঈদ পুনর্মিলনী। ১১ নভেম্বর সাইতামা-কেন, সোকা-শি সেজাকি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত “ঈদ পুনর্নিমলনী ২০১২” অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলো মুন্সিগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান।

প্রয়োজন মত হলের বুকিং না পাওয়ায় এবার সারাদিন ব্যাপি অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে না পারলেও সান্ধ্যকালীন অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হয়। তবে আগের রাত থেকেই রান্নার আয়োজন, পূর্ব প্রস্তুতি এবং প্রবাসীদের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণে ঈদ পুনর্মিলনী ২০১২ উৎসবমুখর হয়ে ওঠে। ধর্ম-বর্ণ, দল-মত নির্বিশেষে সকলেই অনুষ্ঠানে যোগ দেন। সেই সাথে বৈরি আবহাওয়ার মধ্যেও বাংলাদেশের প্রবাসীরা আনন্দ উৎসব ও গরু-ছাগল কোরবানী দিয়ে বিপুল উৎসাহে ঈদ উদযাপন করেছে।


ঈদ পুনর্মিলনীতে টোকিওর বাংলাদেশে দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ স্বপরিবারে অংশ নিয়ে প্রবাসীদের সাথে একাত্বতা প্রকাশ করেন।

মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক বাদল চাকলাদার অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জাপানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। এর পর নৈশ ভোজের ফাঁকে ফাঁকে অতিথিরা ঈদ শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জুয়েল আহসান কামরুল। সুস্বাদু নৈশ ভোজে কোরবানীর মাংস, সবজি, সালাদ, মিষ্টি ছাড়াও বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে বিভিন্ন ধরনের মেন্যু রাখা হয়।

সবশেষে ঈদ আনন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিল্পিদের অংশগ্রহণে বিচিত্রা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রবাসীদের বিনোদনের সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন যেরম গোমেজ। তাকে তবলায় সহযোগিতা করেন জাহিদ চৌধুরি। অনুষ্ঠানের এ অংশটিও পরিচালনা করেন কামরুল আহসান জুয়েল। শিশু-কিশোররাও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয়।

উল্লেখ্য প্রতিষ্ঠিত হবার পর থেকেই মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান নিয়মিত ভাবে ঈদ পুনর্মিলনী ও ইফতার মাহফিল এর আয়োজন করে আসছে। প্রতিটি আয়োজনেই বিপুল সংখ্যক প্রবাসী অংশগ্রহণ করে থাকে।

কমিউনিটি রিপোর্ট

Leave a Reply