সংসদ ভেঙে নতুন নির্বাচনের ঘোষণা

রাহমান মনি
অবশেষে প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিকো নোদা জাপান পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ ভেঙে দিয়ে নতুন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা দিয়েছেন। ১৬ নভেম্বর শুক্রবার তিনি এই ঘোষণা দেন। ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ১৬ ডিসেম্বর রববার নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নিম্নকক্ষ ভেঙে দেয়া এবং জাপানের সম্রাট আকিহিতো কর্তৃক অনুমোদনের পর প্রধানমন্ত্রী নোদা ১৬ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন কক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সম্মেলনে তিনি বলেন, নিম্নকক্ষ ভেঙে দিয়ে আমি গত আগস্ট মাসে দেয়া আমার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করেছি। একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন অন্যতম মহান দায়িত্ব এবং কর্তব্যÑ যা আমি করতে পেরেছি। উল্লেখ্য, গত আগস্ট মাসে প্রধানমন্ত্রী নোদা বিরোধী দল এনডিপির সঙ্গে এক সমঝোতায় আসেন যৌথভাবে এই মর্মে যে, ডায়েটের উচ্চকক্ষ যদি সামাজিক সংস্কার এবং কর ব্যবস্থা সংস্কার বিল পাস করতে সাহায্য করে তা হলে তিনি যত দ্রুত সম্ভব এবং বছরের শেষ নাগাদ জাতীয় নির্বাচন দেবেন। সমঝোতা অনুযায়ী উচ্চকক্ষে বিল দুটি পাস হবার পর আইনে পরিণত হয়। জাপানের নিয়ম অনুযায়ী নিম্নকক্ষে বিল তৈরি অনুমোদন এবং উচ্চকক্ষে তা পাস হবার পর আইনে পরিণত হয়। বর্তমান উচ্চকক্ষে বিরোধী দল এলডিপি সংখ্যাগরিষ্ঠ।

নোদা বলেন, জাপানের জনগণ আগামী চার বছরের জন্য সুযোগ্য নেতা নির্বাচন করে নেবেন যিনি জাপানকে যোগ্য নেতৃত্ব দিয়ে কেবল সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামী নির্বাচনকে পাঁচ বিষয়ে প্রাধান্য দিয়ে নেতা নির্বাচন করতে হবে। বিষয়গুলো হচ্ছেÑ ১. সোসাল সিকিউরিটি, ২. ইকোনোমিক পলিসি, ৩. এনার্জি পলিসি, ৪. ডিপ্লোমেটিক সিকিউরিটি এবং ৫. পলিটিক্যাল রিফর্ম।

সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি উক্ত পাঁচটি পয়েন্টের বিশদ ব্যাখ্যা দেন। তিনি বলেন, ঘড়ির কাঁটা সামনের দিকে যাবে এটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। কিন্তু ঘড়ির কাঁটাকে ইচ্ছা করলে পিছনে নেয়া যায়। তিনি নাম উল্লেখ না করে বিরোধী দলের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, জনগণই ঠিক করবেন তারা ঘড়ির কাঁটা পেছনের দিকে নিয়ে গিয়ে তাদের পুনরায় নির্বাচন করবেন, নাকি তারা স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় অর্থাৎ সামনের দিকে চলতে সাহায্য করে তাদের দায়িত্ব দেবেন। তিনি বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীন জোট ঘড়ির কাঁটা সামনের দিকে চলতে সাহায্য করে।

নোদা বলেন, ১১ মার্চ ২০১১ পারমাণবিক বিপর্যয়ের পর এনার্জি পলিসি নিয়ে আমাদের নতুন করে ভাবতে হয়েছে। জনগণ থেকেও জোর দাবি জানানো হয়। ক্ষমতাসীন দল সেই লক্ষ্যে কাজ করছে। কিন্তু হঠাৎ করেই তা জিরোতে আনা সম্ভব নয়। ২০৩০ সাল নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট জিরো করার লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। এরপর তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

এদিকে নতুন নির্বাচনকে নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক নয়া মেরুকরণ। নির্বাচনে জয়ী হবার লক্ষ্যে নিত্য নতুন কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

নোদার আকস্মিক ঘোষণায় দলের মধ্যে সমালোচনার মুখে পড়েছেন নোদা। ইতোমধ্যে সুবিধাবাদীরা দল ত্যাগের ঘোষণা দিচ্ছেন প্রকাশ্যেই। তবে ক্ষমতাসীন ডিপিজে (উচঔ)’র নীতিনির্ধারকরা মতভেদ ভুলে দলকে পুনরায় ক্ষমতায় আসার জন্য ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান এবং নির্বাহীরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন।

অন্যদিকে অর্ধশত বছর ক্ষমতায় থেকে ক্ষমতা হারানোর পর বর্তমান বিরোধী দল এলডিপি (খউচ) এককভাবে ক্ষমতায় আসার জন্য সঠিক প্রার্থী মনোনয়নে দলীয় কোন্দল নিরসনে কাজ করে যাচ্ছে। বিরোধী দলের বর্তমান নেতা সিনজো আবে যিনি আগেও একবার (৬-৬-২০০৬ থেকে ৬-২৬-২০০৭) এক বছর ক্ষমতায় ছিলেন। তিনি ক্ষমতায় আসার জন্য নানান কৌশল অবলম্বন করছেন। এ ক্ষেত্রে তিনি বেছে নিয়েছেন বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে ওকিনাওয়ার ফুতেন্মা আমেরিকান ঘাঁটি সরানো নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্ক অবনত হওয়াকে।

তিনি বলেন, জাপানের স্বার্থেই আমেরিকার সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়ন জরুরি। আবে আরো বলেন, জাপানের অর্থনীতিকে শক্তিশালী, বিশ্বের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের পুনর্গঠন, জাপানের স্বার্থ বিষয়ে জোরালো ভূমিকা রাখতে ভুল নেতৃত্বের অবসান হওয়া জরুরি। বর্তমান জোটের ভুল নেতৃত্বের ফলে অভ্যন্তরীণ রাজনীতি এবং অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়েছে। এ অবস্থা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। আমাদের এমন নেতৃত্ব বেছে নিতে হবে যেন ভবিষ্যৎ প্রজন্ম জাপানকে নিয়ে গর্ব করতে পারে।

তবে আবে রাজনৈতিক বক্তব্য যা-ই রাখুন না কেন সাধারণ জাপানিরা মনে করেন আবে ক্ষমতায় আসলে সেনকাফু দ্বীপপুঞ্জ নিয়ে চীনের সঙ্গে জাপানের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ছাড়া উন্নতির কোনো আশা নেই। সাধারণ জনগণ মনে করেন আবে কট্টর আমেরিকানপন্থি এবং চীনবিরোধী। বিভিন্ন কারণেই চীনের সঙ্গে জাপানের গভীর সম্পর্কের প্রয়োজন। চীন বর্তমান বিশ্বের দ্বিতীয় অর্থনৈতিক পরাক্রমশালী দেশ। জাপানের খাদ্য চাহিদার সিংহভাগ জোগান আসে চায়না থেকে। জাপানে চীনের প্রবাসীরা সংখ্যাগরিষ্ঠতায় এক নাম্বারে।

এদিকে তৃতীয় শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার জন্য জোট বাঁধতে চাচ্ছেন ছোট ছোট সাতটি দল। অতি সম্প্রতি টোকিওর গভর্নর থেকে পদত্যাগ করে রাজনৈতিক দল গঠনকারী ৮০ বছর বয়স্ক শিনতারো ইশিহারা-ই এই উদ্যোগের মূল হোতা। বিদেশি বিদ্বেষী এবং কট্টরপন্থি হিসেবে পরিচিত ইশিহারা সমঝোতা বৈঠক করেছেন আরেক কট্টরপন্থি এবং স্পষ্টবাদী নেতা হিসেবে পরিচিত জাপান পুনর্গঠন পার্টির নেতা তারু হাশিমোতো’র সঙ্গে। হাশিমোতো জাপানের বাণিজ্যিক রাজধানী ওসাকার বর্তমান গভর্নর। ইশিহারা গত ২৫ অক্টোবর টোকিওর গভর্নর থেকে পদত্যাগপত্র জমা দেন এবং পাঁচ জন আইন প্রণেতাকে ১৩ নভেম্বর সানরাইজ পার্টি নামে নতুন দলের আত্মপ্রকাশ ঘটান। তার আগে তাচি আগার নিহোন নামে রাজনৈতিক দল গঠন করেছিলেন। জাপানে দলবদল নতুন কোনো ঘটনা নয়। মতের অমিল হলেই রাজনৈতিক নেতারা অনুসারীদের নিয়ে নতুন দল ঘোষণা দেন। বর্তমান ক্ষমতাসীন দলও একই সমস্যার সম্মুখীন। ওজাওয়ায় নেতৃত্বে ৫০ জন আইন প্রণেতা ইতোমধ্যে নোদা জোট থেকে বেরিয়ে নতুন দল গঠন করা হয়েছে। আর এর ভুক্তভুগী হতে হচ্ছে সাধারণ জনগণকে। ছয় বছরের মধ্যে নিতে হচ্ছে সপ্তম বারের মতো প্রধানমন্ত্রীকে। সাধারণ জনগণ মনে করেন এটা রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে ক্ষমতা ভাগাভাগির সমঝোতা। নইলে মাত্র ৬ বছরের মধ্যে কেন সপ্তম প্রধানমন্ত্রী পেতে হবে তাদের? বিশ্বের অস্থিতিশীল দেশগুলোতেও এ অবস্থা বিরল বলে মনে করেন তারা।

নিম্নকক্ষ ভেঙে দেয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী নোদা বিরোধী দলের কাছ থেকে আগামী বছরের শেষ দিকে ডায়েটের সাধারণ অধিবেশনে নিম্নকক্ষের আসন সংখ্যা হ্রাস এবং আইন প্রণেতাদের বার্ষিক বেতন কমানোর প্রতিশ্রুতি আদায় করে নেন। উল্লেখ্য, ডায়েটের নিম্নকক্ষের সদস্য সংখ্যা ৪৮০ জন এবং উচ্চকক্ষে এই সংখ্যা ২৪২ জন। ২০০৭ সালের হিসাব অনুযায়ী আইন প্রণেতাদের গড় বেতন বছরে ২৮৯৫৫০০০ ইয়েন। মাসিক গড় বেতন ১৮৮৭০০০ ইয়েন এবং ৬৩২০০০০ ইয়েন করে ২টি বোনাস। যা বিশ্বে সবচেয়ে বেশি বেতন হিসেবে স্বীকৃত।

তথ্য সহযোগিতায় : রাহমান আমিকুর হিরোআকি
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply