“জাপানে ঢিলাঢালা ঈদ” সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন প্রবাসীরা

রাহমান মনি
গত ২৯ অক্টোবর ২০১২ বাংলানিউ২৪জডটকম, দৈনিক আমাদের সময় সহ আরো কয়েকটি প্রচার মাধ্যমে জনৈক পি আর প্লাসিড এর “জাপানে ঢিলাঢালা ঈদ” সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন জাপান প্রবাসী বাংলাদেশিরা। দল-মত, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

ঐহিত্যগত ভাবে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতিটি ধর্মের যে কোনো আয়োজনে সকল ধর্মের লোকেদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে। এ যেন সকলের আয়োজন, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। ধর্মীয় আয়োজনের মধ্যে ঈদ, পূজা, প্রবারণা পূর্ণিমা, ক্রিসমাস, ইফতার আয়োজন নিয়মিত ভাবেই হয়ে আসছে জাপানে এবং সকলকে সবান্ধব আমন্ত্রন জানানোর ঘোষণা দেয়া হয় বিভিন্ন ওয়েবসাইট, ওয়েব পোর্টাল, ফেসবুক, টুইটার সহ ইন্টারনেটে। এতে সাড়া দিয়ে সকল ধর্মের লোক অংশ গ্রহণ করে থাকে এবং সক্রিয় ভাবে। এটাই জাপান প্রবাসীদের ঐতিহ্য।

জাপানে গত ২৬ অক্টোবর পবিত্র ঈদ উল আযহা উদযাপিত হয়। দিবসটি সাধারণ কর্মদিবস হওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই সবাই কর্মক্ষেত্রে ব্যস্ত থাকেন। জাপানে ধর্মীয় আয়োজন কোনো বন্ধ থাকেনা। এমনকি ২৫ ডিসেম্বর ক্রিসমাসেও কোনো সরকারি ছুটি থাকেনা। ছুটি থাকেনা মে দিবসেও। কাজেই ঈদের দিন প্রবাসীরা স্বাভাবিক ভাবেই কাজে যান। তবে অনেকেই ২ ঘন্টা ছুটি করে, এক আধাবেলা ছুটি করে আবার কেউ সারাদিন ছুটি নিয়ে ঈদের নামায সহ অন্যান্য আনন্দে মেতে ওঠেন। তবে নিকটতম (পরবর্তী) রোববার সকলে মিলিত হয়ে ঈদ, পূজা, প্রবারণা পূর্ণিমা কিম্বা ক্রিসমাস আনন্দে মেতে ওঠেন। তবে এখানে হল পাওয়াটিও একটি বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। এ বছর ১১ নভেম্বর টোকিওর পাশে সাইতামা প্রিফেকচারে ঈদ পুনর্মিলনী হয়। সেখানে কয়েকশ’ লোক সমাবেত হন ঈদ আনন্দে। কোরবানীর মাংসে সবাইকে আপায়্যন করা হয়। অনুষ্ঠানে দূতাবাসর রাষ্ট্রদূত সহ সকল অফিসার স্বপরিবারে উপস্থিত ছিলেন। প্রশ্ন হলো- সেই অনুষ্ঠানে কেন প্লাসিড উপস্থিত ছিলোনা বা কেন বিবেকবার্তায় বাংলাদেশিদের ঈদ পুনর্মিলনীর সংবাদ আসেনি? সে কি সেখানে অবাঞ্ছিত ছিলো? তাকে মুন্সীগঞ্জ -বিক্রমপুর সোসাইটি অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে -কেন করেছে? এ তারই কর্মফল।


গত ১৬ অক্টোবর শুধু টোকিওতেই ১৫/১৬টি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় এবং প্রতিটি জামাতে শত শত প্রবাসীরা নামায আদায় করেন। জাপানের আইন অনুসারে রাজধানীতে পশু জবাই নিষিদ্ধ। উন্মুক্ত স্থানে তো নয়ই। এই জন্যে টোকিওর বাইরে যেখানে খামার রয়েছে যেমন নিইগাতা, ইবারাকি বা অন্যান্য স্থানে পশু কোরবানী দিয়ে ব্যবসায়ীরা প্রক্রিয়াজাত করার পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে কোরবানীর মাংস নিজেদের লোক দিয়ে মাংস নিয়ে আসেন। আর চাকুরীজীবিরা খামার মালিকদের আনুসাঙ্গিকতার উপর নির্ভর করে ২/১ দিন পর মাংস পেয়ে থাকেন। যার যার সামর্থ অনুযায়ী কোরবানী দিয়ে থাকেন। অনেকে আবার দেশে কোরবানীর ব্যবস্থা করে থাকেন। এর সবগুলিই প্রচলিত রীতি।

এইবার মিঃ প্লাসিডের নিউজের প্রতিবাদ প্রসঙ্গেঃ কোন ধর্মেই ধর্মীয় অনুশাসনে প্রতিযোগিতার স্থান নেই। ইসলাম ধর্মেও নেই। এখানে পাকিস্তানি আর বাংলাদেশিদের মাঝে প্রতিযোগিতার কোনো প্রশ্নই ওঠেনা। ধর্মে প্রতিযোগিতা নামে কোন শব্দ নেই, ধর্মের উদ্ভব প্রতিযোগিতা বন্ধের। তাই অজ্ঞানতার কারণে এটি ইসলামের অপব্যাখ্যা। কোরবানী দেয়া না দেয়া ব্যক্তির উপর ফরজ এবং সেই বিধান মোতাবেক আদায়ের সদিচ্ছার প্রতিফলন। প্রতিযোগিতা নয়। পাকিস্তান প্রেমিক জনৈক প্লাসিড পাকিস্তানিদের উদ্বৃতি দিয়ে পাকিস্তানিরা গরু পাননি। তাই ছাগলের ছবি সহ পাকিস্তানিদের ছবি দিয়ে পাক সার জামিন প্রেমের এবং আনুগত্যের প্রমান দিয়েছেন। কিন্তু প্রকৃত সত্য হচ্ছে প্রবাসী বাংলাদেশিরা বরাবরের মত এবারও কোরবানী দিয়েছেন এবং তা গরু। বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের দেয়া কোরবানীর মাংসেই ১১ নভেম্বর ঈদ পূনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়। এখানে কোরবানী দেয়া বাংলাদেশি ব্যবসায়ীই শতাধিক কেজি মাংস দেন। অন্যান্য প্রবাসীরা তো আছেনই।


পাকিস্তান প্রেমী এই সব ব্যবসায়ীদের চোখে দেখেননি। দেখেছেন পাকিস্তানি ব্যবসায়ী নাইম খানের ছাগল। তিনি মসজিদে মনির এবং আনিস নামের দু’জন বাংলাদেশিদের দেখা পেয়েছেন অথচ তাদের ছবি তিনি দেননি। দিয়েছেন পাকিস্তানিদের ছবি। পরিচয় দিয়েছেন মসজিদের প্রধান বলে। মসজিদের প্রধান শব্দটি বোধহয় প্রথম পেলাম। মসজিদ কমিটির সভাপতি কিম্বা ইমাম, পুরহিত বা এই জাতীয় শব্দ প্রচলিত। মসজিদ, মন্দির, গীর্জা কিম্বা প্যাগোডা কারোর ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়। এমনকি ব্যক্তি অর্থে নির্মিত হলেও তা হয়ে যায় সার্বজনীন। কাজেই মসজিদ প্রধান বোধগম্য নয়।

প্লাসিড নিজেই বলেছে মসজিদে দু’জন বাংলাদেশির সাথে দেখা হয়েছে অথচ ছবিতে কাপড় চোপড় থেকে দেখা যাচ্ছে তিনজনেই পাকিস্তানি। প্লাসিড বাংলাদেশের সাংবাদিক হয়ে বাংলাদেশিদের ছবি না দিয়ে পাকিস্তানিদের ছবি দেয়ার উদ্দেশ্য কি হতে পারে? পাকিস্তানি ব্যবসায়ি নাইম খানের গাড়িতে কোরবানী দেখতে গেলেন কিন্তু টোকিওর অধিকাংশ বাংলাদেশিরা জানেন বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী কোরবানী দিয়েছেন। তাহলে তাদের প্রসঙ্গ কেন না টেনে পাকিস্তানির কোরবানী স্পটে গিয়ে ছবি তুললেন? এর থেকে কি প্রমাণিত হয়? অনেকেরই ধারণা যে সে পাকিস্তানিদের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করে থাকে।

তিনি লিখেছেন তার অনুগতরা বিবেকবার্তা লোগো লাগানো একই ধরনের বিশেষ পাঞ্জাবির কথা। প্রবাসীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে ওসাকা থেকে জানিয়েছেন এমন কাউকে এখানে ঈদের নামাযে দেখা যায়নি। ঢিলেঢালা ঈদ উদযাপন কেবল বিবেকবার্তা লোগো অনাবিল আনন্দ এনে দিলো এবং জাপানের ঈদগাহ ময়দান আলোকিত করে ফেললো। প্রবাসীরা বলেন বিবেকবার্তা লোগোর সাথে ঈদের সম্পর্ক জড়িত নয়।

জাপানের প্রবীন বাংলাদেশি সুপরিচিত মুনশী আজাদ জানিয়েছেন তিনি যেখানে ঈদের নামায পড়েছেন সেখানে তিনটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। তিনি ২য় জামাতে অংশ নেন এবং প্রতিটি জামাতই কানায় কানায় পূর্ণ ছিলো বলে তিনি জানান। কর্ম দিবস হওয়া সত্বেও উচ্ছাসের কমতি ছিলোনা বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতির সুখেন ব্রম্ম বলেন জাপানে বাংলাদেশি মুসল্লীরা অন্য যে কোনো দেশের মুসলমানদের চাইতে ধর্মভীরু এবং ধর্ম-কর্ম করেন শত ব্যস্ততা সত্বেও। তিনি বলেন ঈদ কাজের দিন হলেও সকালে ঈদের নামায আদায় এবং সাধ্যমত কোরবানী দেয় প্রতি বছর। সেই মাংসে আবার সবাইকে দাওয়াত করে। ঈদ পূণর্মিলনীর মাধ্যমে আনন্দ উৎসব ও আপ্যায়ন করা হয়। সব ধর্মের লোকেরা তাতে অংশ গ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ সাংবাদিক লেখক ফোরাম জাপান’র সভাপতি সজল বড়ুয়া ক্ষোভের সাথে জানান, আমি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী হলেও মুসলিম পরিবেশে, মুসলিম বন্ধুদের সাথেই বড় হয়েছি। জাপানেও বন্ধুদের অধিকাংশই মুসলিম। প্রতিটি ঈদে আমরা তাদের দাওয়াতে অংশ নিয়ে থাকি। প্রবাসে বিশেষ করে ছোট কমিউনিটিতে কর্মদিবসে বাংলাদেশের আমেজে ঈদ করার করাটা বেশ কঠিন বলেই মনে হয়। তারপরও আমরা যথেষ্ট উৎসবের সাথে আমরা সবাই যার যার ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকি এবং সব ধর্মের লোকেরা তাতে অংশ গ্রহণ করে থাকে। আমি এ সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।

বাংলাদেশ খৃষ্টান সোসাইটির সভাপতি যেরম গোমেজ বলেন এখানে প্রতিটি প্রবাসী বাংলাদেশি মুসলিম ঈদের আনন্দ করে থাকে। সাধ্যমত কোরবানীও দিয়েছে। তিনি বলেন যার দৌড় যতটুকু তিনি ততটুকুই প্রকাশ করবেন। ঢিলাঢালা ভাবে ঈদ বলতে কি বোঝানো হয়েছে তা আমার বোধগম্য নয়।

নিজ ধর্ম খৃষ্টান সোসাইটি থেকে বিতাড়িত জনাব প্লাসিডের পাকিস্তান প্রীতি এই প্রথম নয়। এর আগেও তিনি আত্ম প্রচার মাধ্যমে পাকিস্তানিদেরকে বাঙালী মুসলিমদের চাইতে উদার ও ধর্মভীরু মন্তব্য করে প্রবাসীদের তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন। বিতর্কিত কাজ করার জন্য তাকে প্রবাসীদের অনুষ্ঠানে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করায় তিনি বাংলাদেশিদের একহাত নেন সুযোগ পেলেই। ছিঁটেফোটার বিনিময়ে তিনি পাকিস্তানের গুনগান করে থাকেন। আর্থিক, রাজনৈতিক বা অজানা কারণে প্লাসিডের যে পাকিস্তান প্রীতি দেখা গেছে তা বাংলাদেশিদের জন্য অত্যান্ত উদ্বেগজনক ও লজ্জাজনক।

অতিসম্প্রতি পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিনা রাব্বানি খার বাংলাদেশ সফরে গেলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপু মনি ১৯৭১ সালের নৃশংসতার জন্যে পাকিস্তানকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলেন। জবাবে হিনা রাব্বানি অতীত ভুলে সামনে তাকানোর কথা বলেন। পরের দিন সকল জাতীয় দৈনিকে উভয় বক্তব্য ছবি সহ আসে। পি আর প্ল্যাসিড তার বিবেকবার্তায় কেবলমাত্র পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিনা রাব্বানি’র বক্তব্য অন্য পত্রিকার থেকে তুলে দেন। পাকিস্তানিদের খুশি করার জন্যে দিপু মনির ক্ষমা চাইবার আহ্বান চেপে যান।

আগে বাঙালীদের অনেক অনুষ্ঠানে মুখে সাদা দাগওয়ালা একজন পাকিস্তানি ফটো সাংবাদিককে প্লাসিড সব সময়ে নিয়ে আসতো। সেই পাকিস্তানি অনুষ্ঠানের ছবি ও ভিডিও ধারন করতো। সেই ছবি ও ভিডিও কোথায় পাঠানো হয় প্লাসিড তার কোনো সদুত্তর বা প্রমান দিতে না পারায় টোকিওর বাংলাদেশিরা প্রবল আপত্তি সহ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এরপর থেকে সেই রহস্যময় পাকিস্তানির অনুষ্ঠানে আসা বন্ধ হয়।

ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রবাসীরা বলেন, এতই যদি পাকিস্তান প্রেমী হন তাহলে পাকিস্তানি পাসপোর্ট নিলেই পারেন। তারা আরও বলেন, হাতির কেবল লেজ দেখে হাতি দড়ির মত দেখতে বলে মন্তব্য করা আর পাকিস্তানিদের সাথে ছাগল দেখে সেই ছবি প্রকাশ করে জাপান প্রবাসীরা গরু পায়নি বলে মন্তব্য করার মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। প্রকৃত সত্য প্রকাশ না করে বাঙালী মুসলমান তথা বাংলাদেশের সুনাম নষ্ট করছেন, বলে প্রবাসীরা মন্তব্য করেন। জাপানে বাংলাদেশিরা চাকুরি, ব্যাবসা করছে আইন মেনে। সামাজিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান ইত্যাদি সামাজিক অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রেও জাপানিদের কাছে বাংলাদেশিদের ইমেজ খুব ভালো। অথচ প্লাসিড রহস্যজনক পাকিস্তান প্রীতির কারণে পাকিস্তানিদের কাছে বাংলাদেশিদের ছোট করেছে।

পি আর প্লাসিডের পাঠানো বিতর্কিত সংবাদটির লিঙ্কটি নীচে দেয়া হলোঃ

www.banglanews24.com

rahmanmoni@gmail.com

কমিউনিটি নিউজ

Leave a Reply