ধলাগাঁও বাজারের আড়ত গুলোতে প্রতিদিন অর্ধকোটি টাকার কাঁচা সবজি বিক্রি

মুন্সীগঞ্জে শীতকালীন সবজি বাজারে উঠতে শুরু করেছে। প্রতিটি বাজারেই এখন টাটকা শাকসবজি পাওয়া যাচ্ছে। মাঠ থেকে ওঠানো নতুন এ শাক সবজি বাজারে সয়লাভ হলেও দাম অনেক বেশি। খুচরা বিক্রেতারা বেশি দামেই বিক্রি করছে নতুন এ শাকসবজি। আর এদিকে সবজির আড়তে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার সবজি পাইকারী বিক্রি হচ্ছে। তবে এ জেলায় কি পরিমান সবজি বিক্রি হচ্ছে এবং মুনাফা অর্জন হচ্ছে এ তথ্য দিতে পারেনি জেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিস।

খোজ নিয়ে জানা গেছে,মুন্সীগঞ্জের বৃহৎ পাইকারীর সবজির আড়ৎ রামপাল। সদর উপজেলার রামপালের ধলাগাঁও বাজারের আড়ৎ গুলো এখন ব্যাস্ত দিন কাটাচ্ছেন। এই বাজারে ৪টি আড়ৎ রয়েছে। প্রতিটি আড়তেই সকাল হতে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে নানা রকম শীতকালীন সবজির পাইকারী বিক্রি। প্রতিদিন এখানে অর্ধকোটি টাকার পাইকারী সবজি বিক্রি হচ্ছে। এখান থেকে পাইকাররা সবজি কিনে স্থানীয় বাজার ও নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা নিয়ে যাচ্ছে। ধলাগাওঁ বাজারের সবজির আড়ৎ গুলোর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,১শ’ফুল কপি পাইকারী বিক্রি করা হচ্ছে ১৫শ’থেকে ২২শ’টাকা।


এছাড়া লাল শাক,মূলা,পালং, শাক,লাউ,লাউশাক,শিম বিক্রি হচ্ছে সবজির ধরন বুঝে। তবে ফুলকপিই বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তারা। আড়ৎ ব্যবসায়ী ও ইউপির সদস্য মো: আলী আজগর জানান, দৈনিক তার আড়ত হতে ৪/৫লাখ টাকার পাইকারী সবজি বিক্রি হচ্ছে। ঢাকার কারওয়ানবাজার, যাএাবাড়ী, ফতুল্লা, নবাবগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জসহ স্থানীয় খুচরা সবজি বিক্রেতারা এখান থেকে কিনে নিচ্ছেন। তিনি আরো জানান,আড়তে সবজি আসে আশপাশের গ্রাম থেকে। মহাকালি, আটপাড়া, সোনারং, রামশিং, ধলাগাঁও, সুয়াপাড়া, আজিমপুর, আলদী, দরজারপাড়, চরকেওয়ার, সেরাজাবাদ, চম্পাতলা,সাতরাপাড়া, বজ্রযোগিনী,পানহাটা ও পঞ্চসার থেকে কৃষকেরা তাদের সবজি নিয়ে আসেন।

অন্যদিকে সততা বাণিজ্যলয় এর পরিচালক মো: নোমান দেওয়ান এক প্রশ্নের উত্তরে জানান,কৃষকদের কাছ থেকে কোনো টাকা উঠানো হয়না। যারা পাইকার তাদের কাছ থেকে শতকরা ৫টাকা করে আড়ৎ খরচ(কমিশন) তোলা হয়ে থাকে। তিনি আরো জানান,আড়ৎ গুলো এখন কাচা সবজির সরগরম। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত আড়ৎ খোলা থাকে। মো:নোমান দেওয়ান বলেন, দৈনিক ধলাগাঁও বাজারের আড়ত গুলোতে অর্ধকোটি টাকার কাচা সবজি বিক্রি হয়ে থাকে। কৃষকেরা ভালো লাভ পাচ্ছেন বলেও তিনি জানান।

এদিকে রামশিং গ্রামের সবজি চাষী মো:বাবুল মিয়া বলেন, জমিতে যে পরিমান টাকা খরচ করে সবজি (ফুলকপি) চাষ করেছি এখন তা বাজারে এনে মোটামোটি মূল্যে বিক্রি করতে পাচ্ছি। নারায়ণগঞ্জ থেকে সবজি কিনতে আসা পাইকার মো: আবু তালেব জানান,ধলাগাঁও বাজারের ১/২টি আড়ৎ রয়েছে তারা নির্ধারিত ৫টাকা না নিয়ে আমাদের কাছ থেকে ১০/১৫টাকা রাখচ্ছেন। এদিকে জেলায় কি পরিমানের সবজি বিক্রির আর্থিক মুনাফা অজর্ন হচ্ছে সে তথ্য জানাতে পারেনি মুন্সীগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিস। এখানকার উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মিয়া আল-মামুন জানান, এবছর মুন্সীগঞ্জ জেলায় ৪ হাজার ৪শ’৯৩ হেক্টর জমিতে শীত মেীসুমের সবজি চাষের লক্ষমাএা নির্ধারন করা হয়েছে।

বেস্টনিউজবিডি

Leave a Reply