মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে নাব্য সঙ্কট

শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশ পথ মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে ভয়াবহ নাব্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে। অব্যাহত পানি হ্রাসের সাথে নৌরুটে বিরাজ করছে ডুবোচর। গত কয়েকদিন ধরে লঞ্চ ও ট্রলারসহ যাত্রীবাহী নৌযানগুলো আটকে যাচ্ছে ডুবোচরে। ফলে এ রুটে চলাচলরত শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও মুন্সীগঞ্জ জেলাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের যাত্রীরা পড়ছেন চরম ভোগান্তিতে।

গত কয়েক বছর আগে ভয়াবহ নাব্য সঙ্কটের কারণে এ রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় বিআইডব্লিউটি কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে নাব্য সঙ্কটে স্থানীয় বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ ড্রেজিংয়ের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছে বলে জানা গেছে।

অপরদিকে মাওয়া-চরজানাজাত নৌরুটের লৌহজং টার্নিং থেকে হাজরা পয়েন্ট পর্যন্ত চ্যানেল সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। ফলে এ চ্যানেলে ডাবল ওয়ে ফেরি চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার দেড় শতাধিক যাত্রী নিয়ে এমভি দূর-দূরান্ত নামে লঞ্চটি মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটের ডুবোচরে আটকা পড়ে। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নৌরুটের মাঝিকান্দি ঘাট ছেড়ে আসার পর ঘাটের ১ কিলোমিটার অদূরে লঞ্চটি ডুবোচরে আটকে যায়। মাঝিকান্দি ও নাওডোবা পয়েন্টের মাঝামাঝি স্থানে নৌরুটের ভেসাল সংলগ্ন স্থানে ১০০ মিটার এলাকা জুড়ে বিশাল ডুবোচর থাকার কারণে লঞ্চটি আটকা পড়ে বলে লঞ্চ মাস্টাররা জানায়।

সূত্র জানায়, প্রতিদিন ৭-৮ সেন্টিমিটার পানি হ্রাস পাচ্ছে পদ্মায়। এ কারণে নৌরুটে নাব্য সঙ্কট ভয়াবহ আকার ধারণ করছে । মাঝিকান্দি ও নাওডোবা পয়েন্টের মাঝামাঝি স্থানে নৌরুটে বিশাল এলাকা জুড়ে ডুবোচর দেখা দিয়েছে। নাব্যা সঙ্কট দেখা দেয়ায় এরই মধ্যে স্থানীয় বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ ড্রেজিংয়ের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছে।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএর উপ-পরিচালক আব্দুস সালাম জানান, পানি কমার কারণে মাঝিকান্দি ও নাওডোবা পয়েন্টের মাঝামাঝি স্থানে বালু ঘেঁেষ ঘেঁষে লঞ্চ চলাচল করলেও তেমন কোন সমস্যা নেই। ইতিমধ্যেই ড্রেজিংয়ের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানানো হয়েছে। তবে মাওয়া-চরজানাজাত নৌরুটে নাব্য সঙ্কট নেই বলে তিনি জানান।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply