কয়েকটি কবিতা – সরকার মাসুদ

বিবর্তন
যে কোনো জিনিস তার প্রাথমিক রূপ থেকে
ক্রমশ নিজস্ব রূপ নেয়;
বয়স হলে মানুষ সরল হয়
অনেকটাই ভালো মানুষ হয়
বয়স হলে মানুষ ডায়েরি আর ভ্রমণ কাহিনী
বেশি ভালোবাসে।
যে কোনো মানুষ তার আগেকার রূপ থেকে
ক্রমশ বয়স্ক রূপ নেয়
কবি পরিণত হয়,
হাওয়া লাগা মৃদু স্রোতে প্রগলভতা খসে পড়ে পাতা!
কবি পরিণত হলে
খুব কম কথা বলে কল্পচিত্রে, কবিতায়।

রূপালি

চোখে বিকালের গোলাপি সবুজ ছায়া
পৃথিবীর নিকটতম তারাটির ফর্সা আলোয়
রূপালির মুখ প্রসাধিত,
সিকিজ্যোৎস্নার কাজ করা চিকন জামায়
তাকে আজ ভালো লাগছে অপূর্ব লাগছে!
কীসের কোমল মায়া ছড়িয়ে পড়েছে
অস্পষ্ট সন্ধ্যার কালচেসবুজ মেঠো পথে!

কীভাবে প্রেমিক মনে

মনে পড়ে একদিন বিষণœ আলোর সূর্য স্বাস্থ্যকর বনপাড়া
টিলার আঁধার
আর সুন্দরের এলোমেলো চূড়া
পার হয়ে দিশাহারা
দু’জোড়া তৃষ্ণার্ত চোখ একটি ক্যামেরা
আনন্দের ছেঁড়া ছবি তুলে কেন যে তাকানো
আত্মবেদনার দিকে;
ভাবি আর দেখি, কীভাবে প্রেমিক মনে
স্মৃতিবিকালের আলো হয়ে আসে ফিকে!

খয়েরি বৃশ্চিক

মনোযোগ দাও সাদা প্রজাপতির দিকে
মনোযোগ দাও শান্ত মনোবেদনার দিকে
দেখতে দেখতে
তোমার রঙিলা দিন হয়ে এলো ফিকে
মালখানগরে …!
এখন জাগাও ধুতুরাবিষ
শোভাপাথরে হেলান দেয়া ঠা-া মাথায়
এখন তুমি মনোযোগ দাও
ব্রিজের ফাটল ধরা সাদা জায়গায়;
মরণের আগে শেষ নাচ নেচে যাক খয়েরি বৃশ্চিক!

জনকন্ঠ

Leave a Reply