বাড়ি দখলের নামে ১৮টি হিন্দু পরিবারের মালামাল লুটপাট

উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করিয়া বাড়ি দখলের নামে দেশী ও বেদেশী অস্ত্র নিয়ে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার মীরকাদিম পৌরসভার গোপালনগর গ্রামে সংখ্যলঘু ১৮টি পরিবারের মালামাল লুটপাট করেছে কয়েকশত সন্ত্রাসী। জানা যায়, একই এলাকার হাজী বশির আহম্মেদের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী শনিবার দুপুরে বাড়ির ১৮টি হিন্দু ভাড়াটিয়াকে জোর করে বের করে দিয়ে দখল নেয় পাল বাড়িটি। এই বাড়িটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলে আসছিল বলে জানা যায়। তবে দীর্ঘ ৩৫বছর যাবৎ বাড়িটি ভোগদখল করে আসছিলেন শামসুর রহমান ও তার পরিবার। এ সময় বর্বর নির্যাতনের অভিযোগ করেছে ভাড়াটিয়া প্রতিটি হিন্দু পরিবারের লোকজন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শণকালে দেখা যায় মিরকাদিম পৌরসভা থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। লুটপাট ও নির্যাতনের চিহ্ন প্রত্যেকটি ঘরে বিদ্যামান। বাড়িতে উচ্ছেদ হওয়া সংখ্যালুঘু পরিবারের মাঝে চরম আতংক বিরাজ করছে। অনেকে মুখ খুলতে নারাজ, আবার যদিও কেউ কথা বলতে চাইলেও বলতে পারছেনা মুর্ছে যাচ্ছেন লুটপাটের দৃশ্যের কথা মনে করে।

উচ্চ আদালতের আদেশনামা থেকে জানা যায়, উচ্চ আদালত থেকে ২৯নভেম্বর বিকাল ৩.৪৫ঘটিকার সময় ১৫১ধারায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা বিষয়। ২৬ তারিখের রায়ের বিরুদ্ধে এই আদেশ প্রদান করা হয়। মহামাণ্য আপীল বিভাগ পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ না করা পর্যন্ত মুলতবী করেন নিম্ন আদালতের রায়।

এই মর্মে ১জানুয়ারী সদর থানায় মো. শামসুর রহমান বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। বশির মিয়ার ছেলে খোকা মিয়াকে ১নং আসামী দিয়ে মেয়র শাহীনকে হুকুমের আসামী হিসেবে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। তার নির্দেশেই সকল লুটপাট হয়েছে বলে তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা অভিযোগকারীরা জানান,সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ওই বাড়ির ভাড়াটে সংখ্যালঘু ১৮টি পরিবারকে উচ্ছেদ, ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে বাড়িটির দখল নেওয়া হয়। এ সময় ২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

২৫ বছর যাবত বসবাসকারি আশি উর্ধ্বো বৃদ্ধা মহিলাবলেন, আমারা বের হওয়ার পূর্বেই আমাদের সকল জিনিসপত্র ভেঙ্গে তছনছ করে দিয়ে লুটপাট করেছে সন্ত্রাসীরা।


ভাড়াটিয়া হিন্দু পরিবারের নির্যাতিত গৃহবধু বলেন, হাত পা ধরেও ঘরের কোন কিছূ রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। ভাংচুর করে টাকা-পয়সা, ঘরে রাখা লক্ষলক্ষ টাকার মালামাল লুটপাট করে নিয়ে গেছে তারা। শত শত ক্যাডার বাহিনী তান্ডবলীলা চালায় বলে তিনি অভিযোগ করেন।

অপর এক ভাড়াটিয়া যিনি এখন নিস্ব সকল কিছু হারিয়ে। সেই নির্যাতিত গৃহবধু মিলি সাহা জানান, তাদের তিন মাসের সকল চাল-ডাল, কাপড় চোপড়, সোনা গয়না, একটি মেয়ে মাকে বাঁচাতে গিয়ে তার গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন লুট করে নিয়ে গেছে। এমনকি শোবার খাটও লুটপাট করে নিয়ে গেছে।

শামসুর রহমানের ছেলে সাইদুর রহমান সা’দ বলেন, কষ্টিপাথরের মূর্তি ছিল, এনটিক কয়েন ছিল সেগুলো লুটপাট করে নিয়ে গেছে। হিন্দু ভাড়াটিয়াদের গলা থেকে স্বর্নের চেইন লুটে নেয়। থানা পুলিশ কিনে নিছে বলে অভিযোগ করেছেন সে।


শামসুর রহমানের স্ত্রী সাহিদা রহমান জানান, তাকে উপর থেকে ফেলে দিতে উদ্যত হয় সন্ত্রাসীরা। পরে তাকেও শরীরে ধরে টানা হেচড়া করে ঘর থেকে বের করে দেয়। তিনি আরো বলেন, এ রকম বর্বর অসভ্যতা পৃথিবীর কোথাও হয়েছে কিনা তার জানা নেই। পাকিস্তানী হায়েনাদেরও হার মানিয়েছে তারা। পিস্তল, রামদা, চাইনিচ কুড়াল নিয়ে আসে সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীরা বলে ৩০বছর এমনিতেই খাইছোছ এখন উপর থেকে তোকে ফেলে দিবো। পরে তাকে হেস্তনেস্ত করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে ঘরের সকল কিছু লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। তিনি আরো বলেন, আইনের লোক ছাড়াই বাড়িটি দখল করে। তার ছেলেদেরও মারধর করার অভিযোগ করেন তিনি।

অভিযোগকারীর ছোট ভাইয়ের বউ সানজিদা বেগম জানান, আলমারী খাট কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে ভেঙ্গে নীচে ফেলেছে। লুটপাটের সময় নির্যাতিত লোকদের কান্নাকাটিও করতে দেয়নি সন্ত্রাসীরা। সিনামার মধ্যে দেখা গেছে টাকা পয়সা উড়িয়ে ফেলেছে। একজন মেয়র হয়ে তার কাজ ঠিক হয়নি। আসলে মেয়র একজন ভদ্রভেসী শিক্ষিত সন্ত্রাস। সরকারের কাছে এই ভদ্রভেসী সন্ত্রাসের বিচার চেয়েছেন। তিনি আরো বলেন, টাকার বিনিময় ভোট কিনে মেয়র হয়েছেন।

৮০বয়জোষ্ঠ জায়েদা বেগমকান্নাজড়িত কন্ঠে চোখের লোনা জল ফেলে বলেন, কুরআন শরীফ ও বই ২০০জায় নামাজগুলো টান দিয়া পুড়িয়ে দিয়েছে। তিনি আরো বলেন এই কুরআন শরীফ ও জায়নামাজগুলো যারা পুড়েছে তাদের উপর আল্লাহর গজব পড়বে।

অভিযোগকারীর ছোট ভাইয়ের অপর বউ পারুল বেগম বলেন, জায়নামাজ, ৬টি কুরআন শরীফ ও ছেলেদের বই পুস্তক সকল কিছু পড়ে ছাই করে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

বাড়ির মালিক শামসুর রহমান জানান,হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা থাকা স্বত্বেও পুলিশ প্রটেকশন চাইলেও পুলিশ তাকে প্রটেকশন দেয়া হয়নি। জালাল গ্রুপ, কাইল্লা গ্রুপ, সুমন গ্রুপ এরা সবাই মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী। তিনি আরো বলেন, পাকিস্তানীরাও এভাবে নারীদের উপর অত্যাচার চালায়নি। এই হিন্দু পরিবারগুলোকে চুল ধরে টেনে হিচড়ে ঘর থেকে বের করেন। তাদের ঘর থেকে কিছূ নিতে দেননি এই সন্ত্রাসীরা।

এ বিষয় মিরকাদিম পৌর মেয়র শাহিনবক্তব্য না দিয়ে উল্টো একজন ভদ্রলোকের এহেন কার্যকলাপের সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, দখল নেয়ার সময় কেউ কেউ লুটপাট করতে পারে বলে তিনি স্বীকার করেন। ভাই হিসেবে এই সংবাদটি আমার সম্মান রক্ষার্থে পরিবেশন না করেন তিনি সেই অনুরোধ করেন। সব কথার শেষ কথা, আমার এই বিষয়টির একটু আপনি এড়িয়ে যাবেন। এই রিপোর্টটি না আনলেই ভালো হয়।

টিএনবি
=======

মুন্সীগঞ্জে পালবাড়ীর দখল নিয়ে তোলপাড়

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মীরকাদিমে শনিবার সারাদিন কয়েক কোটি টাকার পালবাড়ীর দখল নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত সেখানকার সংখ্যালঘু ১৮টি পরিবারকে উচ্ছেদ, ভাংচুর, ব্যাপক লুটপাট ও অগি্নসংযোগ করার মধ্য দিয়ে কোটি কোটি টাকা দামের পালবাড়ির দখল নেয়া হয়। এ সময় ২০ সংখ্যালঘু আহত হয়েছেন। সেখানে দ্বিতল ২টি সুরম্য অট্টালিকাও রয়েছে। ১০৪ শতক সম্পত্তি জুড়ে এ বাড়িতে সংখ্যালঘু ১৮টি পরিবার ভাড়াটে হিসেবে বসবাস করে আসছিল।

আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে মীরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম শহীন গোপালনগর এলাকার প্রায় ৮ কোটি টাকা দামের পালবাড়ির দখল নেয়। তার আমেরিকা প্রবাসী শ্বশুর বশির উদ্দিন এ বাড়ির মালিক বলে দাবি করা হয়েছে। শনিবার বেলা ১১টার দিকে পৌর মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীনের শতাধিক লোক বাড়ির দখল করতে গেলে ১৮টি পরিবারের লোকজন বাধা দেয়। এ সময় এলোপাতাড়ি লাঠিপেটায় শিশির পাল, নুকুল পাল, উত্তম সাহা, তপন সাহা, কালাই পাল, জীবন পালসহ ২০ নারী-পুরুষ আহত হন। তাদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পরিবারগুলোর দাবি, প্রায় ১০০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুটপাট ও কয়েক লাখ টাকার আসবাবপত্র ভাংচুর করা হয়।

এ সময় বাড়িটির মালিকানা দাবিদার শামসুর রহমানের ঘরের ভেতর আসবাবপত্র ও মূল্যবান কাগজপত্রে অগি্নসংযোগ করা হয়। নুকুল পাল, উত্তম সাহা, কালাই পাল জানান, তারা স্থানীয় সারওয়ার উদ্দিন ও শামসুর রহমানের কাছ থেকে ভাড়া নিয়ে ১৮টি পরিবার বসবাস করে আসছেন। ২ বন্ধু সারওয়ার ও শামসুর রহমান এ বাড়ি কিনেছেন বলে ভাড়াটেরা জানেন। তবে তারা শুনে আসছেন যে, কয়েক কোটি টাকার এ বাড়ির মালিক দাবি করছেন মীরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীনের আমেরিকা প্রবাসী শ্বশুর বশিরউদ্দিন। দু’পক্ষের মধ্যে হাইকোর্টে পর্যন্ত মামলা-মোকদ্দমা চলছে।

সদর থানার ওসি আবুল বাসার জানান, আদালতের লোকজন মেয়র শাহীনকে বাড়িটি বুঝিয়ে দেয়। তার প্রবাসী শ্বশুর মূলত এ বাড়ির মালিক। তবে অপর একটি পক্ষও বাড়ির মালিকানা দাবি করছে। ওই পক্ষের ভাড়াটে ১৮ পরিবার সেখানে বসবাস করছে। শনিবার তাদের উচ্ছেদ করা হয়। ভাংচুর ও লুটপাট কিছু হয়েছে। তবে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। মীরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম জানান, মুন্সীগঞ্জ আদালত থেকে রায় পেয়ে বাড়ির মালিকানা প্রতিষ্ঠিত করা হয়। আদালত থেকে লোকজন এসে বাড়ির দখল বুঝিয়ে দেন। এ বাড়ির প্রকৃত মালিক তার শ্বশুর। অন্যপক্ষে শামসুর রহমান জানান, বাড়ির মালিক তার বন্ধু। সেখানে তাদের ভাড়াটে রয়েছে। তাদের জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়েছে। মেয়রের লোকজন ভাংচুর-লুটপাট চালিয়েছে।

যায় যায় দিন
==============

মিরকাদিম পৌর মেয়রের নেতৃত্বে কোটি টাকার পাল বাড়ি দখল, উত্তেজনা

মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে পালবাড়ির দখল স্বত্ব নিয়ে তোলপাড় চলছে। খোদ মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র কর্র্তক এ সম্পত্তির দখল নিয়ে সেখানে যে কোন সময় রক্তয়ী সংঘর্ষে সম্ভবনা দেখা দিয়েছে। ঠিকানাবিহীন হয়ে পড়েছে বিতাড়িত হওয়া পরিবারগুলো । শনিবার মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিমে কয়েক কোটি টাকার পাল বাড়ি দখল করতে গিয়ে সংখ্যালঘু ১৮ টি পরিবারকে উচ্ছেদ, ভাঙচুর, ব্যাপক লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করার ঘটনা ঘটে। এ সময় হিন্দু পরিবারের ভাড়াটিয়া ২০ জন আহত হয়।

অন্তত ১শ’ ভরি সোনারগহনা লুট হয়। ঘটনার সময় সমির নন্দী নামে এক ভাড়াটিয়ার ৩ মাসের শিশু কন্যা জুইকে দখলকারীরা ছুড়ে ফেলে। প্রতিপরে অভিযোগ, প্রায় ৮ কোটি টাকা দামের এ বাড়ির দখল কাজের নেতৃত্ব দেন মীরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম শাহীন। তার আমেরিকা প্রবাসী শ্বশুর বশির উদ্দিন এ বাড়ির মালিক বলে দাবি করা হয়েছে। এলোপাতাড়ি লাঠিপেটায় ১৮ পরিবারের ওই নারী-পুরুষ আহত হন। এ সময় বাড়িটির মালিকানা দাবিদার শামসু রহমানের ঘরের ভেতর আসবাপত্র ও মুল্যবান কাগজপত্রে অগ্নিসংযোগ করা হয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যদর্শীরা। নকুল পাল, উত্তম সাহা, কালাই পাল জানান, তারা স্থানীয় সারওয়ার উদ্দিন ও শামসু রহমানের কাছ থেকে ভাড়া নিয়ে ১৮ টি পরিবার বসবাস করে আসছেন। ২ বন্ধু সারওয়ার ও শামসু রহমান এ বাড়ি কিনেছেন বলেই জানেন ভাড়াটেরা।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল বাসার জানান, আদালতের লোকজন মেয়র শাহীনকে বাড়িটি বুঝিয়ে দেয়। তার প্রবাসী শ্বশুর মূলত: এ বাড়ির মালিক বলে জানা গেছে। তবে অপর একটি পও বাড়ির মালিাকানা দাবি করছে। ওই পরে ভাড়াটে ১৮ পরিবার সেখানে বসবাস করছে। শনিবার তাদের উচ্ছেদ করা হয়। ভাঙচুর ও লুটপাট তো কিছু হয়েছেই। গতকাল রোববার দু’দিনেও কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি থানায়।মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহীদুল ইসলাম বলেন- মুন্সীগঞ্জ আদালত থেকে রায় পেয়ে এ বাড়ির মালিকানা স্বত্ব বুঝে নেওয়া হয়েছে। আদালত থেকে লোকজন এসে বাড়ির দখল বুঝিয়ে দেন।

এ বাড়ির প্রকৃত মালিক আমার শ্বশুর। অন্যপে শামসুর রহমান বলেন- বাড়ির মালিক আমরা ২ বন্ধু। সেখানে আমাদের ভাড়াটে রয়েছে। তাদেরকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়েছে। ভাঙচুর-লুটপাট চালিয়েছে মেয়র ও তার লোকজন।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী

Leave a Reply