পিতা’য় কল্যাণ-শায়না

sayanaaসংসদ ভবনের পেছনের রাস্তা দিয়ে গুনগুন করে গান গাইতে গাইতে হাঁটছেন শায়না আমিন। দেখা হতেই মিষ্টি হেসে বললেন, ‘অনেকদিন পর এ পথ দিয়ে হাঁটছি। কিছুদিন আগেও বন্ধুদের সঙ্গে এখানে নিয়মিত আড্ডা দিতাম।’ একটি চটপটির দোকান দেখিয়ে বলেন, ‘ওখানে বসে চটপটি খাওয়ার দিনগুলো খুব মনে পড়ছে। বড় মধুর ছিল সেসব দিন!’ এরপর একটু থেমে, ‘আরে ভাই কল্যাণ কই_?’ উত্তরের অপেক্ষা না করে নিজেই মুঠোফোনে কল্যাণের নম্বর ডায়াল করলেন। সে মুহূর্তেই কল্যাণ এসে পেছন থেকে দু’হাত দিয়ে শায়নার চোখ চেপে ধরলেন। এরপর নির্মল হাসাহাসি। ট্রাফিক জ্যামের কারণে দেরি হওয়ায় কল্যাণ বেশ দুঃখ প্রকাশ করলেন। পাশের চটপটির দোকানের সামনে বসে কথা হয় তাদের সঙ্গে।

মুক্তিযুদ্ধের ওপর নির্মিত রুবাইয়াৎ হোসেনের ‘মেহেরজান’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক শায়না আমিনের। এদিকে মাসুদ আখন্দের ‘পিতা’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে হাজির হচ্ছেন কল্যাণ। মুক্তিযুদ্ধের নতুন এ ছবিতে একসঙ্গে দেখা যাবে তাদের। দু’জনই মডেলিংয়ের মাধ্যমে মিডিয়ায় পথচলা শুরু করেন। এরপর ছোট পর্দা ঘুরে বড় পর্দায় অভিষেক।


‘পিতা’ চলচ্চিত্রের গল্পে দেখা যাবে তদানিন্তন পুর্ব পাকিস্তানের প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি গ্রাম ছয়আনি। গ্রামে কোন রেডিও নেই। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের গণহত্যার উড়ো খবর শুনে হিন্দু পাড়ার মাতব্বর নিতাই ঠাকুরের বাড়িতে সভা বসেছে। বিপিন আজ রাতেই ভারতে চলে যেতে চায়। কিন্তু তার একরোখা ছেলে শরৎ কোন অবস্থাতেই পালিয়ে যেতে রাজি না। রূপবতি স্ত্রী পল্লবী অন্তসত্বা, যে কোন সময় প্রসব বেদনা উঠতে পারে। এক ভোরে বুনা শুকরের মতো পাকিস্তানী হানাদাররা ঢুকে পড়ে গ্রামে। জ্বালিয়ে পুড়িয়ে তছনছ করে দেয় পুরো পাড়া। নির্বিচারে হত্যা করে সকল হিন্দু পুরুষদের। মা হারা তিন ছেলে এক মেয়েকে নিয়ে জলিল ভীষণ বিপদে। এ এলাকায় জলিলই একমাত্র মুসলমান কামার। জঙ্গলে, ডোবায়, পানিতে লুকিয়ে জান বাঁচায় জলিল ও তার তিন ছেলে। শরৎ অন্তস্বত্বা পল্লবীকে নিয়ে লুকায় গভীর জঙ্গলে, কিন্তু এই পল্লবীর জন্যই তাকে বের হতে হয় জঙ্গল থেকে। ধরা পড়ে পাকিস্তানী সেনাদের হাতে। হতভম্ভ দরিদ্র মানুষের মাঝ থেকে ঝলসে উঠে এক পিতা চরিত্র। শুরু হয় গোলা বারুদের বিপরীতে বাংলার গ্রাম্য অস্ত্র, কাঁচি, বল্লম, দা ট্যাটা, হাতুড়ির যুদ্ধ।এমন জীবনের বিচিত্র সব অধ্যায় নিয়ে ছবিটি।
sayanaa
শায়না এতে পল্পবী নামে সদ্য বিবাহিতা এক নারীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন। অন্যদিকে শরৎ চরিত্রে কল্যাণ। আগামীকাল কল্যাণ ও শায়না অভিনীত এ চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাচ্ছে। ছবি সম্পর্কে কল্যাণ বলেন, ‘অনেক স্নায়ুচাপের মধ্যে আছি। একই সঙ্গে বেশ উত্তেজনাও কাজ করছে। বড় পর্দায় নিজেকে দেখব ভাবতেই অন্যরকম লাগছে।’ কল্যাণ আরও বলেন, ”এর আগেও ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব এসেছে। গল্প ও চরিত্র পছন্দ হয়নি। ‘পিতা’র সবকিছুই আমার পছন্দের। আমার অভিনীত শরৎ চরিত্রটি দর্শকের মনে দাগ কাটবে বলে বিশ্বাস করি।

এতক্ষণ মনোযোগ দিয়ে কল্যাণের কথা শুনছিলেন শায়না। তিনি বলেন, ‘ছবির পরিচালকসহ কলাকুশলীরা আমাকে বেশ সহযোগিতা করেছেন। বিশেষ করে আমার অভিনীত পল্লবী চরিত্রে অভিনয় বেশ উপভোগ্য ছিল। চরিত্রটি প্রতি মুহূর্তে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়। কাহিনীর ধারাবাহিকতায় চরিত্রের প্রয়োজনে পল্লবী তথা আমাকে বারবার রূপ বদল করতে হয়েছে। কঠিন এ কাজটি করতে পেরে এখন বেশ ভালো লাগছে। আশা করি ছবিটি দর্শক ভালোভাবে গ্রহণ করবেন।

সমকাল

Leave a Reply