গাজা আমাকে ছাড়ে না…!

mojidআরিফ হোসেন: পয়ত্রিশ বছর যাবৎ গাজা সেবন করি। সেবন করতে গিয়ে প্রায় পনের বছর আগে এ ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ি। এপর্যন্ত পুলিশ ও র‌্যাবের হাতে ১৪-১৫ বার গ্রেপ্তার হয়েছি । প্রতিবারই জামিনে বের হয়ে আবার গাজা বিক্রির ব্যবসায় জড়িয়ে গেছি। এজন্য পরিবারের কেউ আমাকে দেখতে পারেনা। ছেলে মেয়েরা বড় হয়েছে। আমার কারনে তারা সমাজে মুখ দেখাতে পারেনা । যতবার ধরা পড়েছি জেলে বসে প্রতিজ্ঞা করেছি ভাল হয়ে যাব । কিন্তু বের হওয়ার পর গাজা ছেড়ে দেওয়ার অনেক চেষ্টা করেও পারিনি। আমি গাজা ছাড়তে চাইলে কি হবে গাজাইতো আমাকে ছাড়েনা।

রবিবার সকালে শ্রীনগর থানা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে উপজেলার সিংপাড়া গ্রামের চিন্হিত গাজা ব্যবসায়ী আ ঃ মজিদ (৬৫) এ কথাগুলো বলেন।


শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান জানান,গত শনিবার রাতে মজিদকে সিংপাড়া বাজার থেকে গাজাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। গত দেড় বছরে সে একই ভাবে শ্রীনগর থানা পুলিশের কাছে চার বার গ্রেপ্তার হয়েছে। তিনমাস আগে তার স্ত্রীকেও ছয়শ গ্রাম গাজা সহ গ্রেপ্তার করা হয়। মজিদ সেই মামলার ও আসামী।
mojid
মজিদ বলেন, সিংপাড়ার এক সাধকের সঙ্গ ধরে সিদ্ধি লাভের জন্য গাজা ধরেন। একসময় ঐ এলাকায় প্রকাশ্যে গাজা সেবনের অনুমতির জন্য সে অন্যান্য গাজাসেবিদের নিয়ে মিছিল বের করলে তার নাম হয়ে যায় গাজা মজিদ। এ নামেই এলাকার সবাই তাকে চেনে। একারনে পুলিশের খাতায়ও নাম উঠে যায়। ওয়ান ইলেভেনের সময় সেনাবাহিনী তাকে গ্রেপ্তার করে অনেক মারধর করে পানিতে নামিয়ে রাখে। তার দুই ছেলে দুই মেয়ের মধ্যে এক মেয়ে মারা গেছে। সবাই এখন বড় হয়েছে। ছেলেরা পরিবহনের ব্যবসা করে । সমাজে তাদের পরিচিতি আছে। মজিদের কাজের জন্য তারা ছোট হয়। বড় ছেলে পড়শু দিন কক্সবাজার বেড়াতে গেছে। তাকে নেওয়ার জন্য অনেক জোড় করলেও সে যায়নি। এখন পুলিশের কাছে ধরা পরছে।

এতসব কিছুর পর নিজের কাজের জন্য খারাপ লাগে কিনা জানতে চাইলে মজিদ আবেগ অপ্লুত হয়ে বলেন, খারাপতো লাগেই। তবে অনেক দিন ধরে আমি আর এসব বিক্রি করিনা। কিন্তু খাওয়া ছাড়তে পারিনি। নেশা লাগলে একাই খাই,কারো সাথে সঙ্গ ধরে আসর বসাইনা। আম ভুল করছি প্রশাষনের কাছে ক্ষমা চাই।

Leave a Reply