আওয়ামী লীগ নেতার পুত্রকে ঢাবিতে অবৈধভাবে ভর্তিতে ৯ লাখ টাকার চুক্তি

মুন্সীগঞ্জ জেলার শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ছেলেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএতে অবৈধভাবে ভর্তির জন্য ৯ লাখ টাকার চুক্তি করতে গিয়ে প্রতারক চক্রের এক সদস্য ধরা পড়েছে। মুন্সীগঞ্জ শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকলেও নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন। এ প্রতারক চক্রের সঙ্গে ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী জড়িত। ৯ লাখ টাকার চুক্তির কথোপকথন ও অবৈধ ভর্তির প্রক্রিয়াকালে প্রতারক চক্রের সদস্য আকিদুল কবির সৌম্যকে আটক করেছে পুলিশ। সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র। গতকাল বিকালে আইবিএ থেকে ওই ছাত্রকে আটকে করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, উল্লিখিত আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে সাইফুল ইসলাম সাব্বিরকে ৯ লাখ টাকার বিনিময়ে আইবিএ ভর্তি করাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ২য় বর্ষের জহুরুল হক হলের ছাত্র কামরুল ইসলামের সঙ্গে চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী কামরুল ও তার সহপাঠী সৌম্য একই হলের একাউন্টিং বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র সাকিব ও নাসির নামের একজন আইবিএ ভবনে যায়। বিষয়টি কয়েকজন শিক্ষার্থীর নজরে এলে তারা প্রক্টরিয়াল টিমকে খবর দেয়। টিম একজনকে ধরে শাহবাগ থানায় দেয়। সূত্র জানায়, একটি কোচিং সেন্টারে পড়াকালে সাব্বিরের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কামরুলের পরিচয় হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘গ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে চান্স না পাওয়ায় তার সঙ্গে ৯ লাখ টাকার বিনিময়ে আইবিএতে ভর্তি বিষয়ে চুক্তি করে।


সে অনুযায়ী গতকাল আইবিএতে ভর্তি হতে যায়। ভর্তির সময় সাব্বিরের পিতা সাইদুর রহমানও উপস্থিত ছিলেন। কামরুল আন্তর্জাতিক বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র। জহুরুল হক হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে থাকে। সাইদুর রহমান বলেন, আমার ছেলে টাকার বিষয়ে ভর্তির কথা আমাকে জানায়। তিনি বলেন- আমার ছেলে কোথায় ভর্তি হবে, কারা টাকা চায়, কিভাবে ভর্তি হবে- এ বিষয়ে খবর নিতে ঢাবিতে যাই। তিনি বলেন, ভর্তি করাতে নয়, আমি প্রতারক চক্রকে ধরিয়ে দিতেই ঢাবিতে গিয়েছিলাম। অবৈধ উপায়ে কেন ভর্তি করাতে এসেছেন জানতে চাইলে ওই নেতা বলেন- ভর্তি করাতে আসিনি, কারা টাকা নিয়ে ভর্তি করাবে তাদের ধরিয়ে দিতেই ঢাবিতে এসেছি। এ বিষয়ে আইবিএ’র পরিচালক অধ্যাপক জি এম চৌধুরী মানবজমিনকে বলেন, গতকাল ভর্তির বিষয়ে কেউ আমার সঙ্গে দেখা করেনি।

এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তিনি আরও বলেন, এখন কোন ভর্তি প্রক্রিয়াও চলছে না। বিবিএ’র ফল প্রকাশের পর ভর্তি শুরু হবে। এ বিষয়ে ছাত্রদল নেতা ইসতিয়াক আহমেদ নাসির বলেন, আমরা তো এমনিতেই ক্যাম্পাসে যেতে পারি না। আর আমি গতকাল ক্যাম্পাসে যাইনি। তিনি বলেন, কেউ উদ্দেশ্যপ্রণোধিতভাবে আমার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ধ্বংসের জন্য মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেয় না ছাত্রলীগের নেতারা। কেউ হয়তো নিজেকে বাঁচাতে আমার নাম ব্যবহার করেছে বলে উল্লেখ করেন নাসির। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. আমজাদ আলী বলেন, অসদুপায়ে ভর্তি একটি চক্রের একজনকে ধরা হয়েছে। এ চক্রে কয়েকজন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে আমরা পুলিশে দিয়েছি। তারা বিষয়টি দেখবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে একাডেমিক শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান। আওয়ামী লীগ নেতা হওয়ায় অভিভাবককে ছেড়ে দেয়া হয়েছে কিনা জনতে চাইলে তিনি বলেন, অভিভাবক তো আমাদের সহায়তা করেছেন। প্রয়োজনে তাকে আবার ডাকা হবে। প্রক্টর আরও বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রক্রিয়া চলছে।

মানবজমিন

Leave a Reply