বিরোধী দলের সাফল্য জাপান

রাহমান মনি
জাপানের পার্লামেন্ট নির্বাচনে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে বর্তমান বিরোধীদলীয় জোট। শিনজো আবে’র নেতৃত্বাধীন লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এলডিপি) পেয়েছে বিপুল বিজয়। ভরাডুবি ঘটেছে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি অফ জাপান (ডিপিজে)। অর্ধশত বছর ক্ষমতার পর মাত্র তিন বছরের মাথায় তাদের এই ভরাডুবি ঘটল। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে ভোটারদের দেয়া প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ এর অন্যতম কারণ। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে দীর্ঘদিন ক্ষমতায় এসে ডিপিজে তিন বছরে তিনজন প্রধানমন্ত্রী উপহার ছাড়া আর কিছুই দিতে পারেনি। তারা মনে করেন অর্থনীতি, ফুকুশিমা সঙ্কট মোকাবেলা এবং দ্বীপপুঞ্জগুলো নিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর সঙ্গে সমঝোতা চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে দলটি। এ কারণে হতাশ ও বিরক্ত ভোটাররা ব্যালটের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন দলকে উপযুক্ত জবাব দিয়েছে।

১৬ ডিসেম্বর নির্বাচনে ৪৮০ আসনের নিম্নকক্ষে এলডিপি ২৯৪ আসন এককভাবে এবং অন্যতম শরিক দল নিউ কোমেইতো পার্টি পেয়েছে ৩১টি আসন। বিগত দিনে তাদের আসন ছিল ১১১টি। অপরদিকে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল ডিপিজে পেয়েছে মাত্র ৫৭টি। আগের নির্বাচনে যেখানে দলটির আসনসংখ্যা ছিল ২৩০টি। নিম্নকক্ষে একক বা জোটগতভাবে ২৪০টি আসন পেলেই সরকার গঠন করা যায় জাপানে। সেই হিসেবে দুই শরিক দল মিলে ৩২০টিরও বেশি আসন লাভ করে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে সক্ষম হয়। এলডিপি এবং কোমেইতো জোটের উচ্চকক্ষেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে।

অপরদিকে ওসাকা মেয়র তারু হাশিমোতো এবং টোকিওর সাবেক গভর্নর শিনতারো ইশিহারার নবগঠিত জাপান পুনর্গঠন পার্টি ৫৪টি আসন পেয়ে তৃতীয় স্থানে থেকে তৃতীয় শক্তি হিসেবে জানান দিয়েছে। যদিও দলটির প্রত্যাশা ছিল এলডিপির পরেই অর্থাৎ ২য় স্থান অর্জন করা। তবে নতুন একটি দল গঠন করে প্রথম নির্বাচনেই তৃতীয় স্থান বা ৫৪টি আসন লাভ রাজনীতিতে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকগণ।


শোচনীয় পরাজয়ের পর প্রধানমন্ত্রী নোদা বলেন, জনগণের রায় তিনি গুরুত্বসহকারে নিয়েছেন এবং পরাজয়ের সমস্ত দায়ভার কাঁধে নিয়ে দলের নেতৃত্ব থেকেও সরে দাঁড়াবার ঘোষণা দেন।

ব্যাপক সাফল্যে এলডিপি আবের নেতৃত্বে সরকার গঠনে কাজ শুরু করেছে। আবে বলেন, এলডিপি ও নিউ কোমেইতো ইতোমধ্যেই যৌথ সরকার গঠন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেই লক্ষ্যে দল দুটির সঙ্গে আলোচনাও শুরু হয়েছে। আগামী সপ্তাহের শুরুতেই মন্ত্রিসভা গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে।

বিজয়ী ভাষণে শিনজো আবে বলেন, আমরা প্রত্যাশার চেয়েও বেশি সাফল্য অর্জন করেছি। আমাদের এই সাফল্য ধরে রাখতে হবে। এ জয়ের মাধ্যমে আমাদের দায়দায়িত্ব অনেক বেড়ে গেছে। দেশের স্বার্থে কাজ করার দায়িত্ব অনেক বেশি এখন। দায়িত্বে অবহেলা করলে ভোটাররা আবার আমাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এলডিপি জয়ের মাধ্যমে আবারও দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন আবে। শিনজো আবে এর আগেও ২০০৬-২০০৭ সালে প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন।
হবু প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শিনজো আবে বলেন, চীন-জাপান সম্পর্ক অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তিনি বলেন, চীনের সঙ্গে জাপানের সাম্প্রতিক উত্তেজনা শুধু দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককেই ক্ষতিগ্রস্ত করেনি, জাতীয় স্বার্থও ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। তিনি আরও বলেন, তবে সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে কোনো ধরনের ছাড় দেয়া হবে না।

শিনজো আবে নির্বাচনী প্রচারাভিযানে চীনের সঙ্গে বিরোধ নিয়ে কট্টর অবস্থান নেন। কিন্তু নির্বাচনে জয়ী হবার পর কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করেন। সংবাদ সম্মেলনে আবে বলেন, সেনকাকু দ্বীপপুঞ্জ জাপানের অন্তর্নিহিত অংশ। এই নিয়ে পুনরায় আলোচনার সুযোগ নেই। কারণ ভৌগোলিক এবং আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে দ্বীপপুঞ্জটি জাপানেরই অংশ এবং এর নিয়ন্ত্রণও জাপানই করছে। আবে বলেন, তাকেশিমা দ্বীপপুঞ্জের বেলায়ও একই কথা প্রযোজ্য। কট্টর চীনবিরোধী আবে সিনহুয়ার এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

এদিকে আবের জয়ে এবং বিজয়ী ভাষণের পর প্রতিবেশী দেশ চীন উদ্বেগ প্রকাশ করে। চীন আবেকে অস্থির হিসেবে আখ্যায়িত করে। চীনের সরকারি বার্তা সংস্থা সিনহুয়া বলেছে, শান্তির জন্য জাপান ইতিবাচক হলেও আবের অস্থিরতার জন্য সারা বিশ্বে নতুন করে সংঘাত সৃষ্টি করতে পারে জাপান।


এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ১৭ ডিসেম্বর টেলিফোন আলাপে আবেকে অভিনন্দন জানান। টেলিফোনে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হবু দুই নেতা আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তার মাইলফলক হিসেবে দু’দেশের মধ্যে মৈত্রী সম্পর্ক অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন। কাকতালীয়ভাবে দুই নেতাই দ্বিতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আরোহণ করবেন। ২০০৬ সালে আবে যখন প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন, সেই সময় আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছিলেন বুশ। তাই ১৭ ডিসেম্বর ওবামার সঙ্গে টেলিফোন আলাপের পর সাংবাদিকদের জানান প্রেসিডেন্ট বুশের সঙ্গে আমার টেলিফোনে কথা হয়েছে। ওবামাকে বুশ বলার মতো মারাত্মক ভুল তিনি করে বসেন যদিও পরক্ষণেই তা শুধরে নেন।

এবারের নির্বাচনে জাপানের নির্বাচনী ইতিহাসের বেশ কয়েকটি রেকর্ড সৃষ্টি হয়। ১৬ ডিসেম্বর নির্বাচনে ১৯৪৫ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর জাপানে অনুষ্ঠিত নিম্নকক্ষের নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি ছিল সর্বনিম্ন। ৫৯.৩২ শতাংশ ভোটার নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। ১০,৩৯,৫৯,৮৬৬ জন ভোটারের মধ্যে ৬,১৬,৬৯,৪৭৩ জন নির্বাচনে ভোট প্রদান করেন। ২০০৯ সালে ভোটারের উপস্থিতি ছিল ৬৯.২৮%। অর্থাৎ ১০% ভোটার নির্বাচনে মুখ ফিরিয়ে নেয়। প্রবাসী জাপানিরাও ভোট প্রদান করেন। নির্বাচনে এই প্রথমবারের মতো বিগত মন্ত্রিসভার ৮ জন সদস্য নির্বাচনী তরী পাড়ি দিতে পারেননি। অনেক বাঘা বাঘা মন্ত্রীরও নির্বাচনে ভরাডুবি ঘটেছে। ১৭ সদস্যবিশিষ্ট মন্ত্রিপরিষদের ৮ জনই তাদের আসন হারিয়েছে তবে প্রধানমন্ত্রী নোদা, উপ-প্রধানমন্ত্রী ওকাদা তাদের স্ব স্ব আসন ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছেন। আসন ধরে রেখেছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান এবং ডিপিজে থেকে পদত্যাগী নেতা ওজাওয়া। নিম্নকক্ষের ৪০ জন সদস্য নিয়ে দল গঠন করলেও ওজাওয়া মাত্র ২টি আসন পান। নোদা প্রশাসনের মুখপাত্র ফুজিমুরা ওসামু, প্রভাবশালী মন্ত্রী তানাকা মাকিকো, মিৎসুই ওয়াকিও, কোদাইরা তাদামাসা, জোজিমা কোরিকি, নাকাৎসুকা ইক্কোউ, তারুতোকো শিনজি, শিমোজি মিকিও তাদের আসন হারান।

হবু প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে তার প্রশাসনকে ঢেলে সাজানোর কাজ শুরু করে দিয়েছেন। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তারো আসোকে ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেয়ার অনেক ধাপ তিনি এগিয়ে গেছেন। জাপান পুনর্গঠনে আবে কর্মক্ষম একটি চৌকস মন্ত্রিসভা উপহার দিতে চান।

দুই-তৃতীয়াংশ আসন নিয়ে সরকার গঠন করলেও আবের জন্য সামনে চলার পথ যে মসৃণ হবে না তা নিশ্চিত বলা যায়। কারণ আবের বিরুদ্ধে চীনবিরোধী তোকমা এবং ভঙ্গুর অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা সহজ হবে না। যদিও নির্বাচনী ফলাফল জানার পরপরই টোকিও একচেঞ্জ বেশ চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply