মাওয়া ও দৌলতদিয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ

ঘন কুয়াশার কারণে শনিবার রাত সোয়া ১০টা থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এদিকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটেও প্রায় একই সময়ে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সহস্রাধিক যাত্রীসহ মাঝ পদ্মায় আটকা পড়েছে ৮টি ফেরি। ঘন কুয়শার কারণে কাওড়াকান্দি থেকে রাত ৯টার পর থেকে কোন ফেরি ছাড়েনি।

পাশাপাশি রাত সাড়ে ১০টা থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় ঘাট কর্তৃপক্ষ।

ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পদ্মার দু’পাড়ে নাইট কোচসহ চার শতাধিক যান পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

যানবাহন নিয়ে মাঝনদীতে নোঙর করেছে কুমারী, কপোতী, কাবেরী, কেরামত আলী ও শাহ আলী নামের ৫টি ফেরি। ফলে আটকা পড়েছে কয়েকশ যাত্রী।
এ ছাড়া পাটুরিয়া ঘাটে শাহ পরাণ, এনায়েতপুরী ও বীরশ্রেষ্ট মতিউর রহমান এবং দৌলতদিয়া ঘাটে শাহ জালাল ও আমানত শাহ যানবাহন বোঝাই করে নোঙর করে আছে।

মাওয়াস্থ বিআইডব্লিউটিসি’র ব্যবস্থাপক সিরাজুল হক জানান, ঘন কুয়াশার কারণে রাত সোয়া ১০টা থেকে ফেরি চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। কুয়াশার তীব্রতায় নদীর মধ্যে নৌ-যান চলাচলের নির্দেশক বাতি ও মার্কিং পয়েন্ট দেখতে না পারায় চালকরা নদীর মাঝখানে ফেরি নোঙর করতে বাধ্য হয়।

ঘনকুয়াশার কারণে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে রাত ৯টা পর কোন ফেরি ছাড়েনি বলে কাওড়াকান্দিস্থ বিআইডব্লিউটিসির ব্যবস্থাপক আব্দুল বাতেন জনান।
কুয়াশার পরিমান কমে গেলে আবারও ফেরি চলাচল শুরু হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার পাটুরিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আশরাফ উল্লাহ খান।

ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলায় যাতায়াতকারী পণ্য পরিবহনকারী যানবাহন এবং বাস ও নৈশকোচের যাত্রীরা প্রায় প্রতিদিনই চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন। এতে ওইসব অঞ্চলগুলোতে উৎপাদিত কৃষিপন্য বাজারজাত ও ব্যবসা বাণিজ্যসহ অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply