ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা, ৩ শতাধিক রোগীকে চিকিৎসা

মুন্সীগঞ্জে তীব্র শীতের কারণে ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে শুধুমাত্র মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালেই ৩ শতাধিক ঠান্ডা জনিত রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বর্হি-বিভাগে ভর্তি হয়েছে অর্ধ-শতাধিক রোগী। বিশেষ করে শিশু ও বৃদ্ধরা টনশিল, কাশি, হাঁপানীসহ নানা রোগব্যধিতে আক্রান্ত হচ্ছে কনকনে শীতে। চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়া মোট রোগীর মধ্যে শিশু রোগীই অর্ধেকের বেশী। অত্যাধিক ঠান্ডায় শিশুরা শ্বাসকষ্ট ও বুকে কফ জমাট হওয়ার কারণে ভুগছে বেশী। শ্বাসকষ্টের জন্য বেশীর ভাগ শিশুকেই নেবুলাইজার গ্যাস দিতে হচ্ছে।


এতে জেনারেল হাসপাতালের কর্তৃপক্ষকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। বরাদ্ধ অনুযায়ী নেবুলাইজার যন্ত্রের ও ব্যবহৃত পথ্যের অভাব রয়েছে হাসপাতালটিতে।গত ৩দিনে ঠান্ডায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৩ শিশু। এরমধ্যে বুধবার দুপুর পর্যন্ত সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৭শিশু। প্রতিদিনই ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত নতুন নতুন রোগী আসছে সরকারি এ হাসপাতালে। ঠান্ডা জনিত কারণে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ও প্রশ্রাবে জ্বালা-পোড়া রোগে ভুগছেন অনেকে। শীতে অলসতার কারণে দীর্ঘক্ষন প্রশ্রাব আটকে রাখার কারনে নারীরাই বেশী প্রশ্রাবে জ্বালা-পোড়া রোগে ভুগছেন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত ডাক্তাররা। শীতে পানি কম খাওয়ার কারনে আগত রোগীদের বেশী ভাগই শরীরে পানি স্বল্পতায় ভুগছেন।

এক্ষেত্রে নারীদের সংখ্যাই বেশী। প্রতিদিন হাসপাতালের জরুরী বিভাগে গড়ে ৩৫ থেকে ৪০ জন ঠান্ডা জনিত রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ সবাই ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হলেও শিশু রোগী রয়েছে ৬০ শতাংশ। ৩০ শতাংশ বৃদ্ধ ও বাকী ১০ জন পুরুষ।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী

Leave a Reply